ঢাকা বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬
৩০ °সে


হাসপাতালে নজরদারি আর ভূমি উদ্ধারে পুরস্কার পাবেন ডিসিরা

ডিসি সম্মেলন
হাসপাতালে নজরদারি আর ভূমি উদ্ধারে পুরস্কার পাবেন ডিসিরা
ছবি-সংগৃহীত

হাসপাতালে ডিসিদের নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর আর ভূমি উদ্ধারে ডিসিদের পুরস্কারের ঘোষণা দিলেন ভূমিমন্ত্রী। জেলা-উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালে কর্মরত ডাক্তাররা নিয়মিত উপস্থিত থাকছেন কি না, সে বিষয়টির ওপর নজর রাখতে ডিসিদের নির্দেশ দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

আর ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ বলেন, যে যত বেশি সরকারি ভূমি উদ্ধার করতে পারবেন তাদের পুরস্কৃত করা হবে। এছাড়া ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের জন্য ডিসিদের প্রস্তুত হবাব তাগিদ দেন।

সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ কক্ষে জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনের চতুর্থ দিনের চতুর্থ অধিবেশনে নিজ নিজ মন্ত্রণালয়ের বিষয়াবলি নিয়ে ডিসিদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে পৃথক পৃথকভাবে এসব কথা বলেন। দিনের প্রথম অধিবেশন হয় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগ এবং মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম এতে সভাপতিত্ব করেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, ডিসিদের নিয়মিত মিটিং করার কথা বলা হয়েছে। স্বাস্থ্য সম্পর্কিত যে প্রতিষ্ঠানগুলো রয়েছে—জেলা, উপজেলা হাসপাতলে মিটিং করবেন তারা। সেসব জায়গায় যাবেন, পরিদর্শন করবেন। সেসব হাসপাতালে ডাক্তারদের উপস্থিতি লক্ষ রাখবেন। রোগীরা যাতে ভালো সেবা পান—এ বিষয়ে পরামর্শ দেবেন।

আরো পড়ুন: বাংলাদেশে ২ কোটির বেশি মানুষ ভালোভাবে খেতে পায় না

জাহিদ মালেক বলেন, ভেজাল খাবার প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার তাগিদ দেওয়া হয়েছে। পরিবেশ দূষণ, ইটের ভাটার ধোঁয়া যাতে বায়ুদূষণ করতে না পারে, সে বিষয়ে নজর রাখতে বলা হয়েছে। এর ফলে ক্যানসার ও স্ট্রোক হয়।’

সরকারি ভূমি উদ্ধার করলে পুরস্কার পাবেন ডিসিরা—বলেছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। তিনি বলেন, সরকারি ভূমি উদ্ধার আরো কীভাবে করা যায় সে বিষয়ে ডিসিদের বলা হয়েছে। তারপরও যে যত বেশি ভূমি উদ্ধার করতে পারবেন তাদের পুরস্কৃত করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমি বার বার বলেছি, ৭ এবং ৮ ধারা নোটিশের পরে কেন মামলা-মোকদ্দমা হয়, মামলা মামলার গতিতে চলবে। সেটা দেখা যাবে; কিন্তু যখন ৭ এবং ৮ ধারা নোটিশ হয়ে যাবে, তখন যার লেজিটিমেট ক্লেইম আছে সেটি গ্রহণযোগ্য হবে না।

চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের জন্য প্রস্তুত হতে ডিসিদের নির্দেশনা দিয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, বাংলাদেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে কানেক্টিভিটি (সংযোগ) তৈরি করা হবে। এটা আমাদের কমিটমেন্ট। এ কমিটমেন্ট রক্ষার জন্য আপনি যেভাবেই দেখেন না কেন, আমি যদি রেলপথ, নৌপথ, সডকপথের মতো আমরা ইন্টারনেটের পথ তৈরি করতে না পারি তাহলে যে বাংলাদেশের কথাই বলি, ডিজিটাল বলি আর যাই বলি—কিছুই হবে না।

ইত্তেফাক/জেডএইচ

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২১ আগস্ট, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন