আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী (রহ) কর্ম ও জীবন

আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী (রহ) কর্ম ও জীবন
আল্লামা শফী। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের ইসলামি শীর্ষ ব্যক্তিত্বের একজন ছিলেন আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী (রহ)। শতাব্দীর মহাজাগরণের মহানায়ক হিসেবে যিনি আমাদের মধ্যে উপস্থিত হয়েছিলেন।

তিনি ১৯১৬ সালে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া থানার পাখিয়ারটিলা গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। প্রাইমারি শিক্ষা শেষ করে ১০ বছর বয়সে তিনি ভর্তি হন দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসায়। এখানে ১০ বছর লেখাপড়া করে ১৯৪১ সালে তিনি উচ্চতর শিক্ষা লাভের জন্যে ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রাসায় যান। সেখানে উচ্চতর শিক্ষা অর্জনের পাশাপাশি তিনি ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম নেতা শায়খুল ইসলাম মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানীর (রহ) শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন। খুব অল্প দিনেই তিনি তার থেকে ইলেম তাসাউফের খেলাফত লাভ করেন।

দারুল উলুম দেওবন্দে চার বছর ইলমে হাদিস, তাফসির ও ফেকাহ্ শাস্ত্রে উচ্চতর শিক্ষা অর্জন শেষে তিনি দেশে ফিরে দারুল উলুম হাটহাজারী মাদ্রাসায় শিক্ষকতা আরম্ভ করেন। ১৯৮৬ সালে তিনি দেশের এই সর্বোচ্চ ইসলামি বিদ্যাপীঠ দারুল উলুম হাটহাজারীর মহাপরিচালকের দায়িত্ব লাভ করেন। দীর্ঘ ৩৪ বছর তিনি অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে তার দায়িত্ব পালন করে হাটহাজারী মাদ্রাসাকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন। ছাত্র-শিক্ষক সবার মধ্যে তিনি ছিলেন সর্বজনশ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব। সব ছাত্রকে তিনি সমভাবে গুরুত্ব দিয়ে পাঠদান করাতেন। ছাত্রদের প্রতি তার আচরণ ছিল স্নেহময় পিতার মতো।

শুধু দারুল উলুম হাটহাজারী নয়, দেশের কওমি শিক্ষা ব্যবস্থায়ও তিনি উল্লেখযোগ্য অবদান রেখে গেছেন। তিনি বাংলাদেশ বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার চেয়ারম্যান ছিলেন। ২০১৮ সালে জাতীয় সংসদে বিল পাশের মাধ্যমে কওমি মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসের সনদে রাষ্ট্রীয় যে স্বীকৃতি আসে তা তারই হাত ধরে। ২০০৯ সালে তিনি দেশের সিনিয়র ইসলামি ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে একটি যৌথ বিবৃতি প্রদান করেন, যেখানে ইসলামের নামে সন্ত্রাস ও জঙ্গি কার্যক্রমের নিন্দা জানানো হয়।

২০১০ সালে তিনি অরাজনৈতিক ইসলামি সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করেন। সেই থেকে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তিনি ব্যাপকভাবে সমাদৃত হন। ওয়াজ নসিহত বক্তৃতার মাধ্যমে আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী (রহ) মানুষকে ইসলামি শিষ্টাচার ও আত্মশুদ্ধির শিক্ষা দিয়েছেন। লেখালেখিতেও তার বিশেষ অবদান রয়েছে। বাংলা ও উর্দু ভাষায় তার রচিত গ্রন্থের সংখ্যা ২৫টি।

গত ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ লাখ লাখ ভক্তকে কাঁদিয়ে দীর্ঘদিনের প্রিয় কর্মস্থল হাটহাজারী মাদ্রাসার ‘মাকবারায়ে জামিয়া’য় চিরনিদ্রায় সমাহিত হয়েছেন সর্বজনশ্রদ্ধেয় আলেম আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী (রহ)।

লেখক :বাংলাদেশ বেতারের উপস্থাপক ও ধর্মীয় আলোচক

ইত্তেফাক/জেডএইচ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত