সহজ হচ্ছে ব্যাংক হিসাব খোলা ও লেনদেনের প্রক্রিয়া

সহজ হচ্ছে ব্যাংক হিসাব খোলা ও লেনদেনের প্রক্রিয়া
বাংলাদেশ ব্যাংক [ফাইল ছবি]

কোনো ব্যাংকে নতুন হিসাব খুলতে গেলে সেই ব্যাংকের কাছে একজন ব্যক্তি অচেনা। তাই কোনো ব্যাংকে হিসাব খুলতে গেলে ঐ ব্যাংকেরই কোনো গ্রাহককে তার পরিচয়দানকারী বা ইন্ট্রোডিউসার হতে হয়। ব্যাংক হিসাব খোলার ক্ষেত্রে এ বিধান চলে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। এ শর্তের কারণে অনেক মানুষের ব্যাংক হিসাব খুলতে না পেরে ব্যাংক থেকে ফিরে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের মধ্যে নতুন গ্রাহককে পরিচয় করে দেওয়ার এই নীতি থেকে সরে এসেছে ব্যাংকগুলো। এ কারণে পরিচয়দানকারী ছাড়াই ঘরে বসে নতুন হিসাব খোলা যাচ্ছে। ফলে নতুন ব্যাংক হিসাব খোলার ক্ষেত্রে গ্রাহকদের যে ভোগান্তিতে পড়তে হতো, তা কেটে গেছে। ফলে ব্যাংক হিসাব খোলা অনেক বেড়ে গেছে।

দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য ব্যাংকে চলতি হিসাব খোলা এবং পরিচালনার পদ্ধতি সহজ করা হয়েছে। একই সঙ্গে বাড়ানো হয়েছে লেনদেনের সীমা। এর আওতায় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা বাণিজ্যিক ব্যাংক, মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ও পেমেন্ট সার্ভিস প্রোভাইডারদের কাছ থেকে সহজে সেবা নিতে পারবেন। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের লেনদেনকে আর্থিক ব্যবস্থায় নিয়ে আসার জন্যই কেন্দ্রীয় ব্যাংক এ উদ্যোগ নিয়েছে।

এ বিষয়ে সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে একটি সার্কুলার জারি করে বাণিজ্যিক ব্যাংক, মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ও পেমেন্ট সার্ভিস প্রোভাইডারগুলোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

সার্কুলারে বলা হয়, এর আওতায় ক্ষুদ্র, অতিক্ষুদ্র, প্রান্তিক পণ্য ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিরা সুবিধা পাবেন। এখন থেকে ব্যাংক, এজেন্ট ব্যাংকিং, মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান ও পেমেন্ট সার্ভিস প্রোভাইডারদের কাছে আলোচ্য উদ্যোক্তারা সেবা নিতে পারবেন। এগুলোয় তারা সহজে হিসাব খুলতে পারবেন। শুধু জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়েই এসব প্রতিষ্ঠানে চলতি হিসাব খুলে রিটেইল ব্যাংকিং পরিচালনা করা যাবে। অন্যান্য কাগজপত্র লাগবে না। এ ধরনের হিসাবে কোনো লেনদেন সীমা থাকবে না। গ্রাহকরা যত খুশি লেনদেন করতে পারবেন। অর্থাৎ হিসাব খোলার সময় গ্রাহকদের বছরে কী পরিমাণ লেনদেন হবে, এর একটি সীমা উল্লেখ করতে হয়। নতুন নিয়মে এ সীমা উল্লেখ করতে হবে না।

তবে বাংলাদেশ আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিটের নিয়ম অনুযায়ী ই-কেওয়াইসি বা গ্রাহককে জানার তথ্য থাকতে হবে। এক্ষেত্রে লেনদেনের সীমা কার্যকর হবে। এ সীমা মাসিক কোনোক্রমেই ১০ লাখ টাকা এবং এককালীন সর্বোচ্চ স্থিতি ১০ লাখের বেশি হবে না। হিসাব খোলার আগে গ্রাহকের পেশা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে।

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে হিসাব খোলার সময় সাধারণ কেওয়াইসির বা ই-কেওয়াইসি দুটির যে কোনো একটিতে খোলা যাবে। এসব হিসাব মোবাইল সেবাদানকারী এজেন্টের কাছে খোলা যাবে না। খুলতে হবে সেবা প্রদানকারীর সরাসরি নিয়োগ করা কর্মকর্তার তত্ত্বাবধানে। এক্ষেত্রে গ্রাহকের নিজস্ব জাতীয় পরিচয়পত্র ও নিজের নামে নিবন্ধিত মোবাইল নম্বর লাগবে।

ব্যাংকে ব্যক্তিপর্যায়ে লেনদেনগুলো হয় সঞ্চয়ী হিসাবের মাধ্যমে। এতে খুব একটা বড় আকারের লেনদেন করা যায় না। বড় লেনদেন হয় ব্যবসায়ীদের হিসাবের মাধ্যমে, ব্যাংকিং ভাষায় যাকে চলতি হিসাব (কারেন্ট অ্যাকাউন্ট) বলা হয়। এটি খুলতে ট্রেড লাইসেন্সের প্রয়োজন হয়। তবে এখন থেকে ব্যক্তিপর্যায়ের উদ্যোক্তারা বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে ব্যাংকে ‘ব্যক্তিক রিটেইল হিসাব’ খুলতে পারবেন।

এতে কোনো ধরনের ট্রেড লাইসেন্সের প্রয়োজন হবে না। ই-কেওয়াইসি ও ব্যাংক হিসাব খুলতে অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে। এটি চলতি হিসাবের মতোই পরিচালিত হবে। বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা যাবে এ হিসাব। তবে এ হিসাবের মাধ্যমে মাসে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকার বেশি লেনদেন করা যাবে না। অপরদিকে এমএএফএস অর্থাৎ মোবাইল ব্যাংকিং হিসাবধারীদের বেলায়ও এটি প্রযোজ্য হবে। তবে এক্ষেত্রে বেশ কিছু শর্ত ও প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। মোবাইল ব্যাংকিংয়ের কোনো এজেন্ট এ হিসাব খুলতে পারবে না। সংশ্লিষ্ট সেবা প্রদানকারী সংস্থার সরাসরি তত্ত্বাবধানে চলতি হিসাব পরিচালনা করা যাবে। এ হিসাব পরিচালনার মাধ্যমে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের গ্রাহকদের ক্ষেত্রে ব্যক্তিপর্যায়ের চেয়ে লেনদেনসীমা বেশি হবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত