চাঁদাবাজদের কমিটিতে না রাখতে হাইকমান্ডের নির্দেশ

শ্রমিক লীগের সম্মেলন আজ
চাঁদাবাজদের কমিটিতে না রাখতে হাইকমান্ডের নির্দেশ
ফাইল ছবি

আওয়ামী লীগের সহযোগী-ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলোতে বইছে নেতৃত্ব পরিবর্তনের হাওয়া। সম্প্রতি সম্মেলনের মাধ্যমে কৃষক লীগের শীর্ষ দুই পদে পরিবর্তন এসেছে। এই পরিবর্তনের চমক আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন জাতীয় শ্রমিক লীগেও আসতে পারে। আজ শনিবার বেলা ১১টায় রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জাতীয় শ্রমিক লীগের সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনী অধিবেশন শেষে বিকালে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে (আইইবি) কাউন্সিল অধিবেশনে সংগঠনের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হবে। পরে ঘোষণা করা হবে পূর্ণাঙ্গ কমিটি। জানা গেছে, চিহ্নিত চাঁদাবাজদের শ্রমিক লীগের কমিটিতে না রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড।

জাতীয় শ্রমিক লীগের কাউন্সিলররা সবসময় তাদের নেতৃত্বে নির্বাচনের ক্ষমতা বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার ওপর অর্পণ করেন। তাই সম্মেলন ঘিরে এই মুহূর্তে সবার দৃষ্টি আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকে। নেতৃত্ব নির্ধারণে প্রধানমন্ত্রী এরই মধ্যে চুলচেরা বিশ্লেষণ করেছেন। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থাসহ নানা মাধ্যমে আদ্যোপান্ত খোঁজ নিয়েছেন সংশ্লিষ্ট নেতাদের। সম্ভাব্য সব নেতার আমলনামা রয়েছে তার কাছে। আওয়ামী লীগের একাধিক নীতিনির্ধারক পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে আলাপ করে এসব তথ্য জানা গেছে। এদিকে শ্রমিক লীগের বর্তমান সভাপতি শুক্কুর মাহামুদ আবারও সভাপতি পদপ্রত্যাশী। আর বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম এবার সভাপতি হতে চান। এছাড়া শ্রমিক লীগের শীর্ষ দুই পদে আলোচনায় রয়েছেন ইসরাফিল আলম এমপি, হাবিবুর রহমান আকন্দ, ফজলুল হক মন্টু, সেলিম আনসারী, মো.জহিরুল ইসলাম চৌধুরী, আমিনুল হক ফারুক, হুমায়ুন কবির, মো. আলাউদ্দিন মিয়া, শাহাবুদ্দিন মিয়া, আহসান হাবীব মোল­্যা, আবদুল হালিমসহ অনেকে। জানা গেছে, তারুণ্যনির্ভর, ত্যাগী ও স্বচ্ছ ভাবমূর্তির নেতৃত্ব চাচ্ছেন দলের হাইকমান্ড। বিতর্কিত ও অনুপ্রবেশকারীরা যাতে সংগঠনের কোনো পদ না পান সে ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে। দেশের বৃহত্ শ্রমিক সংগঠন জাতীয় শ্রমিক লীগের ৭৮টি জেলা ইউনিট ছাড়াও এর রয়েছে অনেক শাখা সংগঠন। শ্রমিক লীগের অন্তর্ভুক্ত ১৬টি ইন্ডাস্ট্রিয়াল/ক্রাফট ফেডারেশন হলো: বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগ, জাতীয় রিকশা ভ্যান শ্রমিক লীগ, জাতীয় ঘাট শ্রমিক লীগ, বাংলাদেশ ট্রাকচালক শ্রমিক ফেডারেশন, বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশন, ইউনাইটেড ফেডারেশন অব গার্মেন্টস ওয়ার্কার্স ফেডারেশন, বাংলাদেশ তেল, গ্যাস ও খনিজ সংস্থা শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশন, বাংলাদেশ তেল, গ্যাস ও খনিজ সংস্থা শ্রমিক কর্মচারী লীগ ফেডারেশন, বাংলাদেশ বিদ্যুত্ শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশন, বাংলাদেশ চিনিকল শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশন, বশিউক রাবার বিভাগ, সিলেট জোন শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশন, বাংলাদেশ কুলি শ্রমিক লীগ, মুক্ত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন, গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য লীগ, বাংলাদেশ নৌকা মাঝি শ্রমিক লীগ ও বাংলাদেশ বিড়ি শ্রমিক লীগ। জাতীয় শ্রমিক লীগের অন্তর্ভুক্ত ন্যাশনাল ইউনিয়ন আছে ৭৮টি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, বাংলাদেশ ব্যাংক এমপ্লয়ীজ অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক কর্মচারী ইউনিয়ন, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড শ্রমিক কর্মচারী লীগ, বাংলাদেশ রেলওয়ে শ্রমিক লীগ, বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন কর্মচারী ইউনিয়ন, ঢাকা ওয়াসা শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন, বাংলাদেশ সড়ক ও জনপথ শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন, বিআরটিসি শ্রমিক কর্মচারী জোট, বিমান শ্রমিক লীগ, তিতাস গ্যাস এমপ্লয়ীজ ইউনিয়ন, জাতীয় বিদ্যুত্ শ্রমিক লীগ ইত্যাদি। অধিকাংশ সরকারি প্রতিষ্ঠানে শ্রমিক লীগের অন্তর্ভুক্ত ন্যাশনাল ইউনিয়ন আছে। এছাড়া শ্রমিক লীগের অন্তর্ভুক্ত বেসিক ইউনিয়ন আছে ৩৩৩টি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো: ওয়াসা, রাজউক, ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন, ডিপিডিসি, এফডিসি, ডেসকো, গণপূর্ত যান্ত্রিক কারখানা, ট্যানারি, জাতীয় জাদুঘর, কম্পিউটার কাউন্সিল, এনটিআরসিএ, ঢাকা ঘাট, হোটেল সোনারগাঁও, হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল, কাওরানবাজার রিকশা ভ্যান শ্রমিক লীগ, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম রিকশা ভ্যান শ্রমিক লীগ ইত্যাদি। অন্যদিকে শ্রমিক লীগের ১২টি সিটি কমিটি, একটি মহিলা কমিটি, একটি যুবক কমিটি, ৩০টি আঞ্চলিক কমিটি, ১৫টি বিদেশি কমিটি, ৪৯১টি থানা/উপজেলা কমিটি ও ৩২৭টি মিউনিসিপ্যালসহ মোট ১ হাজার ৩৬৯টি কমিটি রয়েছে।

বর্তমান কেন্দ্রীয় কমিটি দুই বছর মেয়াদের হলেও সম্মেলন না হওয়ায় এর বয়স দাঁড়িয়েছে সাত বছর। এবারের সম্মেলনে শ্রমিক লীগের গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন এনে কমিটির মেয়াদ তিন বছর প্রস্তাব করা হবে। তবে কেন্দ্রীয় কমিটির কলেবর ৩৫ সদস্যই থাকছে। শ্রম আইন অনুযায়ী কমিটির কলেবর বাড়ানোর সুযোগ নেই।

আরও পড়ুন: বাড্ডায় ফার্নিচারের দোকানে আগুন

১৯৬৯ সালের ১২ অক্টোবর প্রতিষ্ঠা লাভ করে জাতীয় শ্রমিক লীগ। ২০১২ সালের ১৭ জুলাই এর সর্বশেষ সম্মেলনে শুক্কুর মাহামুদ সভাপতি এবং সিরাজুল ইসলাম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন। বর্তমানে সভাপতির বয়স প্রায় ৭৫ বছর। আর সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলামের বয়স ৭০ বছর।

ইত্তেফাক/কেকে

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত