ঢাকা রবিবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২০, ৬ মাঘ ১৪২৭
১৭ °সে

অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে বিএনপি : ওবায়দুল কাদের

অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে বিএনপি : ওবায়দুল কাদের
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দূর্বল নেতৃত্বের কারণে বিএনপি এখন অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে। বিএনপির কে যে কখন কি বলেন, সেটা বোঝা বড় কঠিন। তাদের এ মুহূর্তের নেতৃত্বের দুর্বলতা, তাদের অস্তিত্ব ঝুঁকির মুখে ফেলেছে।

সোমবার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপির দুজন ডাক সাইটের নেতা বিদায় নিয়েছেন, আবার কে যে কখন যান, সেটা বলা মুশিকল। তাদের মধ্যে টানাপোড়েন চলছে। মুক্তির আন্দোলন নিয়ে কেউ বলছেন এখনও আন্দোলনের সময় হয়নি। তারা সব কিছুতে ব্যর্থ হয়ে আদালতের বিরুদ্ধে অঘোষিত যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন।’

আরপিও অনুযায়ী আওয়ামী লীগের কমিটিতে ৩৩ শতাংশ নারী কোটা প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা তো ২০২০ সাল পর্যন্ত সময় আছে। সেটা আমাদের মাথায় আছে। আমরা নারী নেতৃত্ব ও প্রতিনিধিত্ব আরো বাড়ানোর ব্যাপারে সক্রিয় চিন্তা ভাবনা করছি।’

মন্ত্রিসভার রদবদল প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, এটা প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার। তবে সম্মেলনের আগে তা হচ্ছে না। এ মাসে সম্ভবনা কম। নতুন বছরে হবে কিনা সেটা প্রধানমন্ত্রী বলতে পারেন। তবে মন্ত্রিসভার পরিবর্তন ও সংযোজন, এগুলো তো রুটিন অনুযায়ী সব দেশেই হয়।

আওয়ামী লীগের ২১তম সম্মেলনের প্রস্তুতির বিষয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আওয়ামী লীগের সম্মেলনের জন্য প্রস্তুতি ভালো। জেলা পর্যায়ে অনেকগুলো সম্মেলনের কাজ শেষ করেছি। ১৮ ডিসেম্বর সম্মেলন হবে ঝালকাঠি জেলায়। ১৩ তারিখ হবে গোপালগঞ্জের সম্মেলন। মোট ২৫-৩০টা সম্মেলন হয়ে যাবে। এখন সভাপতি-সেক্রেটারি নির্বাচন করা হচ্ছে, বাকি পূর্ণ কমিটি পরে অনুমোদন দেয়া হবে।

আরো পড়ুন : উগ্রবাদ সভ্যতা ও মানবতার শত্রু : স্পিকার

সম্মেলনে নেতৃত্বের পরিবর্তন আসবে কি না জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, পদে থাকা নিয়ে আমি এ ধরনের কথা বলিনি। আমি বলেছি- সভাপতি পদে পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই। নেত্রী বার বার বিদায় নিতে চান। তিনি যেতে চাইলেও তাকে যেতে দেওয়া যায় না।

তিনি বলেন, বাকি পদগুলো নেত্রী নিজে সাজান। তিনি যেটা ভালো মনে করেন তা করবেন। যেকোনো পদে পরিবর্তন হতে পারে, নেত্রী দলের স্বার্থে করতে পারেন। তিনি যা করবেন, এক বাক্যে সবাই মেনে নেবেন। এ ক্ষেত্রে কোন ক্ষোভ, দুঃখ কিংবা বেদনা নেই। এমন কিছু এ পর্যন্ত কখনও হয়নি, এবারও হবে না আশা করি।

নিরাপদ সড়ক আইন বাস্তবায়ন সম্পর্কে শাজাহান খানের দেওয়া বক্তব্যের জবাবে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী যেভাবে নির্দেশনা দেবেন, সেভাবেই সরকার চলবে। এখানে কারো ইচ্ছার কোনো বিষয় নেই। আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। বাসস

ইত্তেফাক/ইউবি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
১৯ জানুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন