বেটা ভার্সন
আজকের পত্রিকাই-পেপার ঢাকা শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭
৩০ °সে

দুই-একজনের বিদায়ে স্বাস্থ্যখাতের  সঙ্কট কাটবে না : রিজভী

দুই-একজনের বিদায়ে স্বাস্থ্যখাতের  সঙ্কট কাটবে না : রিজভী
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। ফাইল ছবি

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বিদায়ের প্রসঙ্গ টেনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, দুই-একজনকে পদত্যাগ করিয়ে স্বাস্থ্যখাতের চলমান সঙ্কটের অবসান হবে না। করোনা সংকটের কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুরবস্থা জনগণের সামনে স্পষ্ট হয়ে পড়েছে। এই অবস্থায় দু‘একজনকে গ্রেপ্তার, বদলি কিংবা পদত্যাগ করিয়ে কিংবা দুই একটা মন্ত্রণালয়ের রদবদল করে পরিস্থিতির উন্নয়ন ঘটানো সম্ভব নয়।

শুক্রবার দলের নয়া পল্টনের কার্যালয় থেকে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।

কেন সম্ভব নয়, তার ব্যাখ্যায় তিনি বলেন, অপ্রিয় হলেও সত্য নিশিরাতের ষড়যন্ত্রের যারা সক্রিয় ভূমিকা রেখেছিল তাদের মধ্যে থেকে ‘ইধার কি মাল উধার মে ঢাল’ কিংবা ‘চোরে চোরে মাসতুতো’ ভাইদের দিয়ে পরিস্থিতি উন্নয়নের আশা করে লাভ নেই।কারণ এই ‘মাসতুতো’ ভাইয়েরা জানে তাদের অবস্থা-অবস্থান-উত্থান ঘটেছে দুর্নীতি প্রক্রিয়া, দুর্নীতিবাজদের মাধ্যমে, দুর্নীতিবাজদের দ্বারা।

সমাধান কীভাবে হবে- তার ব্যাখ্যায় রিজভী বলেন, বাস্তবতা হলো, পরিস্থিতির উন্নয়ন ঘটাতে চাইলে জনগণের স্বার্থ রক্ষায় গোটা সরকারেরই খোলনলচে পাল্টাতে হবে।

অর্থ পাচারের অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, জনগণের কাছে এখন স্পষ্ট এই সরকারের উদ্দেশ্য জনস্বার্থ নয়, এই উদ্দেশ্য জনগণের অর্থ সম্পদ লুটপাট ও টাকা পাচার। এদের আমলে দেশের ব্যাংকগুলো প্রায় দেউলিয়া অথচ বিদেশের ব্যাংকে জমছে বাংলাদেশ থেকে পাচার করা টাকা।

রিজভী বলেন, ২০১৯ সালে শুধুমাত্র সুইসজারল্যান্ডের কয়েকটি ব্যাংকে বাংলাদেশিদের গচ্ছিত টাকার পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৪২৭ কোটি টাকা। কারা এসবের মালিক, তারা এত টাকা কেমন করে সেখানে পাচার করলো? এই সরকারের গত এক দশকে দেশ থেকে ৯ লাখ কোটি টাকা পাচার হয়েছে। রাষ্ট্রের আনুকূল্যেই এই অর্থ লোপাট ও পাচারের কাজগুলো হয়েছে। এসব টাকা থাকলে সরকারকে এখন দেশের রিজার্ভের টাকার দিকে নজর দিতে হত না।

বিএনপিকে নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সমালোচনার জবাবে রিজভী বলেন, সর্বক্ষেত্রে ব্যর্থতা আর সর্বগ্রাসী দুর্নীতি-লুটপাটে বেসামাল মিডনাইট সরকার দেশে-বিদেশে বিতর্কিত হয়ে পড়ায় অস্থির হয়ে পড়েছে। নিজেদের আয়নায় এখন কেবল জনগণের দল বিএনপিকে কল্পনা করছে। কাদের সাহেবের কথাটা হবে ‘আওয়ামী লীগ জনরোষে আতঙ্কে আছে’। কিন্তু তিনি উল্টো দিকে ঘুরিয়ে ফেলেছেন কথাটা। নিজেদের অবস্থাটা এখন অন্যের ভিতরে দেখতে চাচ্ছেন।

ইত্তেফাক/ইউবি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত