‘আগুনের লেলিহান শিখায় বিএনপির রাজনীতির অপমৃত্যু ঘটবে’

 ‘আগুনের লেলিহান শিখায় বিএনপির রাজনীতির অপমৃত্যু ঘটবে’
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের [ফাইল ছবি]

বিএনপি একের পর এক আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থ হয়ে জনগণের ওপর প্রতিশোধ নিতে আগুন সন্ত্রাসের পথ বেঁচে নিয়েছে। এমন মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, তারা আবারও আগুন সন্ত্রাসের পথ বেঁচে নিয়েছে। দেশের জনগণ মনে করেন বিএনপি অপরাজনীতি থেকে ফিরে না এলে, আগুনের লেলিহান শিখায় তাদের রাজনীতির অপমৃত্যু ঘটবে।

সোমবার বিকালে ওবায়দুল কাদের তার নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালীর কবির হাট উপজেলা সদরের বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী ইদ্রিস চত্বরে দলীয় নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মফিজ উল্লাহ, এনামুল হক বাঙ্গালী, জসিম উদ্দিন, নুরুল আফসার রতন ও আনোয়ার হোসেনসহ সদ্য মৃত্যু বরণকারী দলের নেতা কর্মীদের স্মরণে এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, নির্বাচনে অংশ নিয়ে ভোটের দিন এজেন্ট পর্যন্ত দিতে পারে না, অথচ নির্বাচন হয়ে গেলে প্রতিবাদ করে। আজ নাকি সারা দেশে প্রতিবাদ। এসব যখন করে তাদের লজ্জা থাকা উচিত।

অপরাজনীতি থেকে ফিরে আসতে আহবান জানিয়ে তিনি বলেন বিএনপি আবার বলে তারা নাকি আগুন সন্ত্রাসে বিশ্বাসী নয়। দেশের মানুষ জানে ২০১৩-১৪ সালের আগুন সন্ত্রাসের কথা। তারা অস্বীকার করলেও জনগণ ভুলে যায়নি। শান্তি নষ্ট করে, ভয়ের স্থিতিশীলতা তৈরি করতে, তারা গুজবের, অপপ্রচারের আর আগুন সন্ত্রাসের, পথ বেঁচে নিয়েছে। এখনও সময় আছে। অপরাজনীতি থেকে ফিরে আসুন।

মন্ত্রী বলেন, জনবিরোধী, রাষ্ট্রবিরোধী এসব কর্মকাণ্ডের অর্থের উৎসের সন্ধান করছি আমরা। যারা এসব অপকর্মে, দেশ বিরোধী কর্মকাণ্ডে অর্থ জোগান দিচ্ছে, আগুন সন্ত্রাসের ফান্ডিং করছে তাদেরও বিচারের আওতায় আনা হবে। জনগণ ও রাষ্ট্রের সম্পদ কাউকে ছিনিমিনি খেলতে দেওয়া হবেনা।

ওবায়দুল কাদের সদ্য মৃত্যু বরণকারী মুক্তিযোদ্ধা ও দলীয় নেতাদের স্মরণ করে তাদের প্রতি শ্রদ্ধা ও আত্মার মাগফেরাত কামনা এবং তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বলেন, স্বাধীনতা অর্জনে গর্বিত সন্তান তারা । তাদের অবদান জাতি সারা জীবন স্মরণ করবে। দলীয় নেতা কর্মীদের আন্দোলন সংগ্রামে আজ আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায়। তারা আমাদের কাছে সব সময় স্মরণীয় ও বরণীয় হয়ে থাকবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিরাট এ স্মরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আমিন রুমি। বক্তব্য রাখেন, নোয়াখালী ৪ আসনের এমপি একরামুল করিম চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ খায়রুল আলম সেলিম, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এ কে এম সামছুদ্দিন জেহান ও কবিরহাট পৌরসভার মেয়র জহিরুল হক রায়হান প্রমুখ।

ইত্তেফাক/এমআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত