‘সাজাপ্রাপ্ত আসামির বিদেশে চিকিৎসার নজির এই দেশে রয়েছে’

সরকার অনুমতি দিতে পারতো: ইবরাহিম। প্রমাণ হল সরকার কতটা অমানবিক: এলডিপি
‘সাজাপ্রাপ্ত আসামির বিদেশে চিকিৎসার নজির এই দেশে রয়েছে’
মাহমুদুর রহমান মান্না। ফাইল ছবি

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য সরকার বিদেশে যাওয়ার অনুমতি না দেওয়ায় ক্ষুব্ধ বিএনপির জোটসঙ্গীরা। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না সোমবার এক বিবৃতিতে বলেছেন, সাজাপ্রাপ্ত আসামির বিদেশে যাওয়ার ক্ষেত্রে যে আইনি বাধার কথা আইন মন্ত্রণালয় থেকে বলা হয়েছে সেটির ব্যত্যয় ঘটিয়ে সাজাপ্রাপ্ত আসামির বিদেশে চিকিৎসার নজির এই দেশে রয়েছে।

মান্না বলেন, সাজাপ্রাপ্ত আসামি হওয়ার পরও বর্তমান জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রবকে ১৯৭৯ সালে উন্নত চিকিৎসার জন্য জার্মানে পাঠানো হয়েছিল। এক্ষেত্রে মানবিক বিষয়টি প্রাধান্য পেয়েছিলে সবার আগে। বেগম খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রেও তেমনটি আমি আশা করেছিলাম। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে যা করা হয়েছে তাতে আমি বিস্মিত ও উদ্বিগ্ন।

বিবৃতিতে মান্না বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার ফুসফুসে ও পেটে পানি এসেছে, যা ৭৬ বয়সী একজন মানুষের জন্য খুবই মারাত্মক। এই মুহূর্তে উনার সার্বক্ষণিক উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন। আমাদের দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার যে নাজুক অবস্থা তাতে দেশে থেকে উনার সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। এই পরিস্থিতিতে মানবিক দিক বিবেচনায় সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ও একজন বীরউত্তমের স্ত্রী হিসেবে বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করা সরকারের দায়িত্ব। কিন্তু এই ক্ষেত্রেও সরকার তাদের প্রতিহিংসার রাজনীতি থেকে বের হতে পারল না। সরকার মানবিক বিবেচনায় খালেদা জিয়ার সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিত করার জন্য তাকে বিদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করবে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক বলেন, অন্যথায় সঠিক চিকিৎসার অভাবে খালেদা জিয়ার কিছু হলে সেটির দায় সরকারকে বহন করতে হবে।

সরকার অনুমতি দিতে পারতো: ইবরাহিম

পৃথক বিবৃতিতে ২০ দল শরিক কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মে. জে. (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বলেন, আদালতের মাধ্যমে জামিন বঞ্চিত বেগম জিয়াকে নির্বাহী ক্ষমতা প্রয়োগ করে জেলের বাইরে, নিজ বাড়িতে সুযোগ দিয়েছে সরকার। এজন্য সরকার অবশ্যই ধন্যবাদ প্রাপ্য। একই পদ্ধতিতে সরকার, আইনি জটিলতাকে পাশ কাটিয়ে বেগম জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দিতে পারতো বা এখনও পারবে। আমরা সেই আবেদনই করছি।

প্রমাণ হল সরকার কতটা অমানবিক: এলডিপি

২০ দলের আরেক শরিক লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) একাংশের সভাপতি আবদুল করিম আব্বাসী ও মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম এক যুক্ত বিবৃতিতে খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি না দেওয়ায় তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা বিবৃতিতে বলেন, এই সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে প্রমাণ হলো এই সরকার কতটা অমানবিক। গোটা রাষ্ট্র ও সংবিধানকে তারা দলীয় হাতিয়ারে পরিণত করেছে। যে সরকার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত খুনের আসামিকে দেশের বাইরে পাঠিয়ে দিতে পারে, মাফ করে দিতে পারে। তাদের মুখে আইনের কথা মানায় না।

দেশের একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী যিনি এদেশের গণতন্ত্রের যুদ্ধে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন, তার চিকিৎসার ক্ষেত্রে সরকারের এমন সিদ্ধান্ত প্রতিহিংসার রাজনীতি চরিতার্থ করার নগ্ন বহিঃপ্রকাশ। আবদুল করিম আব্বাসী ও শাহাদাত হোসেন সেলিম আরও বলেন, খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসা জরুরি। দেশের হাসপাতালগুলো তার চিকিৎসার জন্য যথেষ্ট নয়। এমন অবস্থায় তাকে বিদেশ নেওয়ার ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে নিজেদের ষড়যন্ত্রের মুখোশ উন্মোচন করেছে। খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে কোনো অঘটন ঘটে গেলে এর দায় সরকারকে নিতে হবে।

ইত্তেফাক/এসআই

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x