স্বাধীনতা পেয়েছি বলেই মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন হচ্ছে: আনোয়ার হোসেন মঞ্জু

স্বাধীনতা পেয়েছি বলেই মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন হচ্ছে: আনোয়ার হোসেন মঞ্জু
পত্তাশী জনকল্যাণ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজ প্রাঙ্গণে মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখছেন রাখেন আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি। ছবি: ইত্তেফাক

জাতীয় পার্টি-জেপি’র চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি বলেছেন, আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি বলেই মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন হচ্ছে। রাস্তা-ঘাট, বিদ্যুৎ-শিক্ষা প্রতিষ্ঠান-স্বাস্থ্য কেন্দ্র ইত্যাদি অবকাঠামো গড়ে উঠেছে। জীবনের সকল ক্ষেত্রে দৃশ্যমান পরিবর্তন লক্ষণীয়। পাশাপাশি এই পরিবর্তনকে সংহত ও অর্থবহ করতে ভোটের ব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে হবে।

তিন গতকাল মঙ্গলবার বিকালে পিরোজপুর জেলার ইন্দুরকানী উপজেলার পত্তাশী জনকল্যাণ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজ প্রাঙ্গণে স্থানীয় সর্বস্তরের জনসাধারণের সাথে এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আরও বলেন, মানুষ অনেক সময় বলে মন্ত্রী, এমপি, চেয়ারম্যান, মেম্বাররা কাজ না করে রাষ্ট্রীয় সম্পদের অপচয়-আত্মসাৎ করেন। ঢালাওভাবে করা এই অভিযোগ সত্য নয়। দেশে স্বাধীনতা উত্তর ৫০ বছরে যে দৃশ্যমান পরিবর্তন ঘটে চলেছে তা আমাদের অনুধাবন করতে হবে। মানুষের জীবনে সন্তুষ্টি বা শান্তি লাভের পথ দু’টি। একটি পারলৌকিক অন্যটি ইহলৌকিক। ইহলৌকিক বা পার্থিব প্রাপ্তির জন্যও আল্লাহর ওপরে ঈমান রেখে চলতে হয়। আল্লাহর ওপর ভরসা রেখেই তার কাছে চাইতে হবে। মানুষ এখন অনেক সচেতন হয়েছে। তরুণরা আজ শিক্ষিত হচ্ছে, বিদেশে গিয়ে কাজ করে অর্থ এনে দেশে পরিবার-পরিজনসহ স্বাচ্ছন্দে বসবাস করছে। শিক্ষিত তরুণরা ব্যবসা-বাণিজ্য, আধুনিক কৃষি কাজ ইত্যাদি কর্মসংস্থানে নিয়োজিত হয়েছে। সমাজ ও দেশের জন্য নিজেকে নিবেদন করছে। এমনকি নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হয়ে মানুষের কল্যাণে আত্মনিয়োগও করছে। জনজীবনে বিশেষ করে গ্রামীণ জীবনের এই পরিবর্তনের ধারাকে আমাদের অব্যাহত রাখতে হবে, এ ক্ষেত্রে অগ্রসর শ্রেণীর মানুষকে তরুণদের উত্সাহ-উদ্দীপনা যোগাতে হবে।

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু বলেন, বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন “আমাদের দাবায়ে রাখতে পারবা না”। তাঁর নেতৃত্বে ৫০ বছর আগে জাতি যেভাবে জেগে ওঠেছিলো সেই পথ অনুকরণ করে আমাদের এগুতে হবে। জাতিকে আবারও জাগ্রত হতে হবে। কোন বাধা আসলে তা সম্মিলিতভাবে প্রতিহত করার জন্য প্রস্তুতি দরকার। আমাদের যা প্রয়োজন তা পাই না, যা পাই তা সবটুকু সদ্ব্যবহার নিশ্চিত করা উচিত। অবকাঠামো উন্নয়নসহ সামাজিক নিরাপত্তা, প্রতিষ্ঠানিক উন্নয়ন, সেবা খাতসহ সকল ক্ষেত্রে বাস্তবায়ন প্রক্রিয়া সংহত করা আমাদের দায়িত্ব।

তিনি আরও বলেন, সামনে যে জাতীয় নির্বাচন আসছে তার গ্রহণযোগ্যতা যাতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয় তার জন্য এখন থেকেই সতর্ক থাকতে হবে। সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করা, ভোটে যাতে মানুষের সঠিকমতের প্রতিফলন ঘটে সে বিষয়েও বিশেষ নজর রাখা অতীব জরুরী। কেউ যাতে ভোটের অধিকার নস্যাৎ করতে না পারে তার জন্য ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। বিশেষ করে ইন্দুরকানী অঞ্চলে যাতে কোন উগ্রপন্থী রাজনীতি মাথাচাড়া দিতে না পারে সেদিকেও সতর্ক দৃষ্টি রাখা আবশ্যক। বর্তমানে এখানে এর ঝোঁক না থাকলেও এর আশঙ্কা যে একেবারে নেই তা নয়। ভিন্নমতের রাজনীতি এরূপ পরিস্থিতির জন্ম দিতে পারে, এই জন্য এলাকাবাসীকে সব সময় সতর্কভাবে চলাফেরা করা উচিত। মনে রাখতে হবে এরূপ প্রবণতা অশান্তি তৈরি করতে পারে, গোপনে বা রাতবিরাতে অন্তর্ঘাতমূলক কাজও হতে পারে।

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি আরও বলেন, ন্যায্যহিস্যা পাওয়ার জন্য আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। আমরা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকি, রাজনীতি নির্বিশেষে এক থাকি তাহলে আমাদের পাওনা আদায় করে আনবোই। আল্লাহতালা আমাদের ঈমান-জ্ঞান-ধৈর্য্য ও উন্নয়ন আকাঙ্ক্ষার সঠিক প্রতিদান দিবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি। এ দেশ আমাদের, স্বাধীন দেশে সবাইকে কাজ করতে হবে। আমাদের আত্মবিশ্বাস থাকলে কেউ বঞ্চিত করতে পারবে না। ঝগড়া-বিবাদ-হানাহানি-কলহ-কাইজ্যা এড়িয়ে শান্তি শৃঙ্খলার মধ্যেই বসবাস করার যে ধারা এ অঞ্চলে সৃষ্টি হয়েছে তা অক্ষুণ্ণ রাখা সকলের দায়িত্ব। নিকট অতীতে এলাকার মানুষ আইনশৃঙ্খলা জনিত যে বৈরিতার মধ্যে বসবাস করতেন গত ৭/৮ বছরে সে অবস্থার পরিবর্তন ঘটেছে। মানুষ আজ নিশ্চিন্তে, নিরাপদে বাড়ি-ঘরে ঘুমায়। এই পরিস্থিতি অবশ্যই অব্যাহত রাখা সকলের দায়িত্ব। তারমানে এই নয় যে মানুষ তার অধিকারের কথা বলবে না, নিজেদের পাওনা আদায় করার জন্য সোচ্চার হবে না। এ ক্ষেত্রে মানুষকে শৃঙ্খলার সাথে চেয়ারম্যান-মেম্বার বা প্রশাসনের কাছে তার ন্যায্য পাওনার হিসাব চাইবেন। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-মেম্বারদের দায়িত্ব হচ্ছে নাগরিকদের প্রত্যাশা পূরণ করা।

No description available.

সভায় উপস্থিত জনসাধারণের একাংশ। ছবি: ইত্তেফাক

তিনি বলেন, ইন্দুরকানী উপজেলার এই নিভৃত গ্রামে পত্তাশী জনকল্যাণ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজের বহুতল ভবনের নির্মাণ কাজ পরিদর্শনে এসে দেখতে পেলাম এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির নির্মাণ কাজের অগ্রগতি খুবই সন্তোষজনক। জনগণ যদি তাদের চাহিদা ও প্রত্যাশার কথা যথাসময় যথাস্থানে উপস্থাপন করতে সক্ষম হন তাহলে তাদের সেই দাবি অবশ্যই পূরণ হয়। আল্লাহর প্রতি জোরালো ঈমান রেখে যদি কিছু চাওয়া হয় তা তিনি অবশ্যই পূরণ করেন। পাঁচ বছর আগে এখানে একটি মতবিনিময় সভায় এই বিদ্যালয়টি উন্নয়নের দাবি পূরণের যে প্রতিশ্রুতি আমরা দিয়েছিলাম তা আজ বাস্তবায়িত হচ্ছে দেখে আমরা আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করি।

পত্তাশী জনকল্যাণ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি সিরাজিস সালেকীন শুভ তালুকদারের সভাপতিত্বে এ মতবিনিময় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন ইন্দুরকানী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মতিউর রহমান এবং উপজেলা জাতীয় পার্টি-জেপি’র সাধারণ সম্পাদক মো. শাহীন হাওলাদার।

এ সময় মঞ্চে ছিলেন ইন্দুরকানী উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুত্ফুননেছা খানম, ইন্দুরকানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির, পত্তাশী ইউপি চেয়ারম্যান মো. মোয়াজ্জেম হোসেন প্রমুখ।

বিদ্যালয়টির নির্মাণ কাজ পরিদর্শনের আগে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি বিশ্বব্যাংক সহায়তা পুষ্ট এলজিইডি’র ব্যবস্থাপনায় ইন্দুরকানী উপজেলার রেখাখালী-সুতারখালী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র’ নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। এ সময় তিনি অনুষ্ঠিত দোয়া ও মোনাজাতে অংশ নেন। এরপর তিনি রামচন্দ্রপুর পঞ্চগ্রাম সম্মিলনী (পিএস) মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন। পাশাপাশি তিনি রেখাখালী আশ্রয়ন প্রকল্পের পুকুরে মত্স্য বিভাগের উদ্যোগে মাছের পোনা অবমুক্ত করেন। গতকাল মঙ্গলবার আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি সংসদীয় এলাকাভূক্ত ইন্দুরকানী উপজেলা সফরকালে তাঁর সফরসঙ্গী ছিলেন ভান্ডারিয়া উপজেলা জেপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক ও পৌর কাউন্সিলর গোলাম সরওয়ার জোমাদ্দার, জেপি’র ভান্ডারিয়া উপজেলা যুগ্ম আহ্বায়ক ও গৌরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান চৌধুরী, সদস্য সচিব ও ধাওয়া ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান টুলু প্রমুখ।

ভান্ডারিয়া হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্সের চাবি হস্তান্তর: ভান্ডারিয়া সংবাদদাতা শংকর জীৎ সমাদ্দার জানান, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে ভান্ডারিয়া উপজেলা হাসপাতালের জন্য পাঠানো একটি অত্যাধুনিক অ্যাম্বুলেন্সের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন শেষে চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় পার্টি-জেপির চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি’র উপস্থিতিতে তাঁর ভান্ডারিয়াস্থ বাসভবন ‘তাসমিমা ভিলা’ প্রাঙ্গণে এ চাবি হস্তান্তর করা হয়। পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন ভান্ডারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ননী গোপাল রায়ের হাতে এ চাবি হস্তান্তর করেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভান্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মিরাজুল ইসলাম মিরাজ, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও পৌর প্রশাসক সীমা রানী ধর, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুমানা আফরোজ, জাতীয় পার্টি-জেপি’র উপজেলা যুগ্ম আহবায়ক ও পৌর কাউন্সিলর মো. গোলাম সরওয়ার জোমাদ্দার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফাইজুর রশিদ খশরু জোমাদ্দার, জেপি’র উপজেলা সদস্য সচিব ও ধাওয়া ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান টুলু, যুগ্ম আহবায়ক ও গৌরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. মজিবুর রহমান চৌধুরী, জেপি নেতা মো. ইউসুফ আলী আকন পৌর জেপির আহবায়ক মো. জামাল উদ্দিন মিয়া স্বপন, আওয়ামী লীগ নেতা হাফিজুর রশিদ তারেক জোমাদ্দার প্রমুখ।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি পার্শ্ববর্তী বন্ধু রাস্ট্র ভারত সরকারের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ সরকারকে ১০৯টি অত্যাধুনিক অ্যাম্বুলেন্স অনুদান হিসেবে পাঠানো হয়। জাতীয় পার্টি-জেপি’র চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি’র বিশেষ আগ্রহে এ উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী উপজেলাগুলোর মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতের জন্য এ অ্যাম্বুলেন্সটি ভান্ডারিয়া উপজেলা হাসপাতালে গত রবিবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে বরাদ্দ দেওয়া হয়।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x