ঢাকা সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬
২৭ °সে


‘নেতিবাচক রাজনীতি না থাকলে প্রবৃদ্ধি বাড়তো আরও ২ শতাংশ’

‘নেতিবাচক রাজনীতি না থাকলে প্রবৃদ্ধি বাড়তো আরও ২ শতাংশ’
ছবি : সংগৃহীত

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও শিল্প মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আমির হোসেন আমু বলেছেন, ‘বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতাভোগের জন্য এসেছিল, আর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ দেশ পরিচালনায় আসে জনগণের কল্যাণের জন্য, দেশের উন্নয়নের জন্য।’

আজ রবিবার দুপুরে রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সেমিনার হলে ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির দশ বছর’ সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে অর্জিত স্বাধীনতার স্বাদ জনগণের কাছে পৌঁছানো এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে কাজ করছে শেখ হাসিনার সরকার। একদিকে বয়স্কভাতা, প্রতিবন্ধীভাতা, দুস্থভাতা প্রভৃতি চালু করে দরিদ্রকে টেনে তুলছেন শেখ হাসিনা, অন্যদিকে পায়রা বন্দর ও পদ্মা সেতু আজ দৃশ্যমান।’

সেমিনারের সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা ও আওয়ামী লীগের প্রচার উপ-কমিটির সভাপতি এইচ টি ইমাম বলেন, ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের বিস্ময়কর উন্নয়নকে আরও উচ্চতর স্থানে নিয়ে যেতে সবার ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা প্রয়োজন। তবেই বাংলাদেশ একটি আদর্শ দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে তার মর্যাদা সমুন্ন রাখতে সমর্থ হবে।’

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘দেশে নেতিবাচক রাজনীতি না থাকলে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আরও অন্তত ২ শতাংশ বৃদ্ধি পেতো। তারপরও বাংলাদেশ ধারাবাহিকভাবে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি ধরে রাখা বিশ্বের প্রথম পাঁচটি দেশের অন্যতম।’

ড. হাছান বলেন, ‘২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দু’টি প্রধান অঙ্গীকার ছিল, দিনবদল আর ডিজিটাল বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যুগান্তকারী নেতৃত্বে আমরা দু’টি অঙ্গীকার পালনে সমর্থ হয়েছি। বাংলাদেশ এখন স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। আমরা বিশ্বে মিঠা পানির মাছ ও সবজি উৎপাদনে ৪র্থ ও আলু উৎপাদনে ৭ম। আর ডিজিটাল বাংলাদেশে ১৭ কোটি মানুষের দেশে ১৫ কোটি মোবাইল সিম ১৪ কোটি গ্রাহক ব্যবহার করছে।’

‘শুধু তাই নয়, পঞ্চাশের দশকে ৪৭ মিলিয়ন জনসংখ্যা নিয়ে খাদ্য ঘাটতির দেশ, যার ভূমি একটুও বাড়েনি, সেই দেশ আজ খাদ্যশস্যে উদ্বৃত্ত এবং রপ্তানিকারক; কৃষিখাতে এ অভূতপূর্ব ঘটনা আজ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এবং বিশ্ব খাদ্য সংস্থারও গবেষণার বিষয়’, বলেন ড. হাছান মাহমুদ।

আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনন্য গতিশীল নেতৃত্বে ২০০৮ সালের ৬শত ডলারের মাথাপিছু আয় তিনগুণ বেড়ে এখন প্রায় ২ হাজার ডলার, রপ্তানি ১০ মিলিয়ন থেকে আজ ৪২ মিলিয়ন ডলার, মানুষের গড় আয়ু ৬৫ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭২.৮ বছর। মানবিক, সামাজিক ও অর্থনৈতিক সকল সূচকে আমরা পাকিস্তানসহ বিশ্বের অনেক দেশ থেকে এগিয়ে আছি, যা পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর মহাআক্ষেপের বিষয়।’

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ পুলিশকে সতর্ক থাকার নির্দেশ

আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে পরিকল্পনা কমিশন সদস্য ড. শামসুল আলম, অর্থনীতিবিদ ড. কাজী খলীকুজ্জামান, আওয়ামী লীগ ঢাকা দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, আওয়ামী লীগ প্রচার উপ-কমিটির যুগ্মসম্পাদক আমিন উদ্দীন আমিন প্রমুখ সেমিনারে গত দশ বছরে এদেশের বিস্ময়কর উন্নয়নচিত্র তুলে ধরে এর নানা দিক নিয়ে আলোচনায় অংশ নেন।

‘সেমিনারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন ও অগ্রগতির ১০ বছর’ পুস্তিকার মোড়ক উন্মোচন করেন অতিথিবৃন্দ।

ইত্তেফাক/কেকে

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২১ অক্টোবর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন