ঢাকা সোমবার, ০১ জুন ২০২০, ১৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
২৮ °সে

কনফারেন্সিং অ্যাপ থেকে সোশ্যাল নেটওয়ার্কে পরিনত হচ্ছে জুম

কনফারেন্সিং অ্যাপ থেকে সোশ্যাল নেটওয়ার্কে পরিনত হচ্ছে জুম
কনফারেন্সিং অ্যাপ থেকে সোশ্যাল নেটওয়ার্কে পরিনত হচ্ছে জুম

আমাদের সবার মতো এরিক ইউয়ানও প্রতিনিয়ত ভাবছেন। টেলি কনফারেন্সিং সংস্থা জুমের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তিন-চার ঘন্টা ঘুমানোর পর সকালে উঠে যান। তার সার্ভারগুলো ঠিকঠাক চলছে কিনা ও চাপ সইতে পারছে কিনা তা যাচাই করেন। তিনি জুমের মাধ্যমে বলেন, ‘এ অনেকগুলো জুম সভা, এগুলো আমার অপছন্দ।’

নতুন ব্যবহারকারীদের আকৃষ্ট ও করোনা চলাকালীন সময়ে ব্যবসা পরিচালনার চ্যালেঞ্জের পাশাপাশি নেতিবাচক সংবাদের একটি প্রভাব বর্তমানে লক্ষণীয়। নিউইয়র্ক সিটি থেকে এটর্নি জেনারেলের চিঠিতে, ডেমোক্রেটিক সিনেটরদের অভিযোগ, গ্রাহক ও শেয়ার হোল্ডারদের একই অভিযোগ হলো- জুম ব্যবহারকারীদের তথ্য অপব্যবহার করছে।

স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকাতে ইউয়ানের তিন বাচ্চা ওয়াই-ফাই দখল করে রাখছে। এক রাতে একজন মা ইউয়ানকে মেইল যোগে জানায়, তিনি তার বাচ্চার ভার্চুয়াল ক্লাসে অনুপযুক্ত জিনিস দেখতে পেয়েছেন যে কারণে তিনি রাতে আর ঘুমাতে পারেননি। ইউয়ানকে একমাত্র বুঝিয়ে থাকেন তার মা। যিনি ইউয়ানের সঙ্গে একই পরিবারে বসবাস করেন। তার মা যখন তাকে খাবার দেন তখন ইউয়ান তা অনেক সময় খেতে ভুলে যান। খাওয়া শেষে মা ও ছেলে তার বাড়ির আঙ্গিনায় হাঁটাহাঁটি করেন। ইউয়ান বলেন, যখন আমি ঘুম থেকে উঠি তখন দুইটি জিনিস চিন্তা করি ‘পৃথিবীকে হতাশ করবো না’ ‘আমার ব্যবহারকারীদের হতাশ করবো না’।

কনফারেন্সিং অ্যাপ থেকে সোশ্যাল নেটওয়ার্কে পরিনত হচ্ছে জুম

মাস খানেক আগে জুমের ক্রমরর্ধমান বিকাশ বিশ্বব্যাপী একটি সাফল্যের গল্প ছিল। হঠাত্ জুমের অবকাঠামো সমালোচনার মুখে। বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ করোনা ভাইরাসের কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখছে। সৌভাগ্যবসত, অনেকই এখন বাড়িতে বসে অফিস করার চেষ্টা করছে। এ কাজের জন্য তারা দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় এমন টুলস ব্যবহার করছে। কনফারেন্সিং সফটওয়্যার সিসকো ওয়েবেক্স, মাইক্রোসফট টিমস ও জুম ভিডিও কনফারেন্সিং ট্রাফিকের বিষ্ফোরণ ঘটিয়েছে। ইউয়ান বলেন, প্রতিদিনের রেকর্ড অনুযায়ী গত ডিসেম্বরে প্রতিদিন জুম ব্যবহার করতো ১০ মিলিয়ন ব্যবহারকারী যা বর্তমানে ২০০ মিলিয়নে ঠেকেছে। একই সময়ে কোম্পানির শেয়ার মূল্য বেড়েছে ৭২শতাংশ।

বর্তমানে স্কুল-কলেজগুলোতে জুমের মাধ্যমে পাঠদান করা হচ্ছে। এছাড়, বিভিন্ন ব্যবহার দেখা যাচ্ছে জুমের। কেউ কেউ ঘন্টার পর ঘন্টা আড্ডা দিচ্ছে, কেউ জন্মদিন পালন করছে, কেউ চিকিত্সাও গ্রহণ করছে জুমের মাধ্যমে।

ইউয়ান ক্যালিভোর্নিয়ায় ওয়েবেক্সে চাকরি পেয়েছিল। এটাই ছিল তার চাকরি জীবনের সূচনা। ১৯৯০ সালের শেষের দিকে রিয়েলটাইম সাই-ফাই ভিডিও চ্যাট প্রযুক্তি আবিষ্কার হয়। ওয়েবেক্সই ছিল গ্রহণযোগ্য ঐ পণ্যটির প্রথম উদ্ভাবক প্রতিষ্ঠান। ১৯৯৭ সালে ওয়েবেক্সে যোগদানের সময় ঐ প্রতিষ্ঠানের দশজন ইঞ্জিনিয়ারের মধ্যে ইউয়ান ছিলেন একজন। এক দশক পরে তিনি প্রতিষ্ঠানটির ইঞ্জিনিয়ারদের ভাইস-প্রেসিডেন্ট ও ৮০০ কর্মী পরিচালনার দায়ীত্ব পান। আইফোন ও অনুকরণকারীদের উত্থান দেখে তিনি ভাবতে থাকেন, শুধু পিসিই নয়, মোবাইল দিয়ে কাজ করা যায় এমন সংস্থার প্রয়োজন। কর্তৃপক্ষ তার প্রস্তাবে রাজি হননি। ফলে তিনি ২০১১ সালে জুম ভিডিও কনফারেন্সিং পদ্ধতি আনার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। চীনের সান জোসের প্রধান সদর দপ্তরে জুমের জন্য গবেষণা ও উন্নয়ন দল গঠন করেন। যেখানে ইঞ্জিনিয়াররা তাদের আমেরিকান অংশের তুলনায় অনেক কম কাজ করেন। জুম শুরু থেকেই নিরপেক্ষ একটি প্ল্যাটর্ফম ছিল। এটি অ্যাপলের ফেসটাইম, গুগল ও মাইক্রোসফটের হ্যাংআউট ও স্কাইপির মতো ছিল না। আপনি যদি ৪০ মিনিট ও ১০০ জন ব্যবহারকারীর মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে পারেন তাহলে আপনি বিনামূল্যে জুম ব্যবহার করতে পারবেন। মাসে ১৯.৯৯ ডলার পরিশোধ করলে এক হাজার অংশগ্রহণকারী ভিডিও কনফারেন্স করতে পারবে।

২০১৭ সালে জুমের বাজার মূল্য ১ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাওয়ার পার কৌতুহলবসত একটি পোস্ট দেয় ইউয়ান, ‘ব্যবসাটি বাড়তে না থাকলে এর কোনো অর্থ হয় না’। ২০১৯ সালে জুম যখন সার্বজনীন হয়েছে, তখন প্রথম বারেই ৭২ শতাংশ শেয়ার মূল্য বৃদ্ধি পায়। এমন প্রবৃদ্ধির কারণে ১৬ বিলিয়ন ডলারের কোম্পানি হয় এবং ইউয়ানের নিজের হয় ৩ বিলিয়ন ডলার। বর্তমানে কোম্পানিটি ৩২ বিলিয়ন ডলারের কোম্পানিতে পরিনত হয়েছে।

ইউয়ানের ব্যাখ্যা অন্যদের চেয়ে বেশি বিশ্বাসযোগ্য। ডাটা সংক্রান্ত কোনো বিষয় হলে তা সংবেদনশীল অ্যাপের কারণেই হবে বলে মনে করেন তিনি। ইলেক্ট্রনিকস পণ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান লুমেনটাম হোল্ডিং ইনক. এর প্রধান ইনফরমেশন অফিসার রালফ রওলা বলেন, ক্যমেরা, মাইক্রোফোন ও পর্দায় যা কিছু ঘটে তার অনুমতি আমরাই দিচ্ছি। জুম অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর চেয়ে নিরাপত্তার দিক থেকে অন্যতম প্রতিষ্ঠান হওয়া উচিত। এমন হতে পারে যে, জুম সফল হবে এমন কিছু তথ্য গোপন করা হচ্ছে। ইউয়ান স্বীকার করেছেন, সুরক্ষা ও সরলতার মধ্যে কোনো উত্তেজনা থাকতে পারে না। এটি পুর্নবিবেচনার বিষয় হতে পারে।

এক সময় মহামারী শেষ হবে, যদিও এটি কল্পনা করা কঠিন। কিছু দিন আগে একটি মিটিংয়ে বোর্ড তাকে প্রশ্ন করে ছিল, তাহলে জুম কি করপোরেট ভিডিও কনফারেন্সিং সংস্থার দিকে যাচ্ছে? এ বিষয়ে ইউয়ান বলেন, ‘আমার কোনো উত্তর নেই।’

সূত্র : ব্লুমবার্গ

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
০১ জুন, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন