ঢাকা বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬
৩৩ °সে


উপকথা

আরবদেশের লোককাহিনি মশার বড়াই

আরবদেশের লোককাহিনি মশার বড়াই

‘সিংহ মিছিমিছি বনের রাজা, সিংহের চেয়ে আমি অনেক শক্তিশালী আর সাহসী’—মশা ভনভন করে বলে। সেইমতো মশা সিংহকে লড়াইয়ের আমন্ত্রণ জানায়।

সিংহ মশার কথায় রা করে না। মশা কিছুতেই এমন সুযোগ হারাতে রাজি নয়।

‘তুমি ভীষণ ভীরু, সিংহ! লড়াইয়ে আমায় হারাও তো দেখি’, মশা বলে।

‘ঠিক আছে, মশা’, সিংহের গর্জন, ‘এটাই তোমার শেষ লড়াই।’ সিংহ প্রচণ্ড জোরে পায়ের থাবা তুলে মশার দিকে এগোয়। মশা শাঁ করে উড়ে এসে সিংহের নাকে কামড় দেয়। সিংহ আবারও থাবা মারে। মশার দেখা নেই। মশা এবার গিয়ে বসে সিংহের চোখের পাতায়।

অনেক সময় ধরে সিংহ আর মশার লড়াই চলে। সিংহ ভীষণ চিত্কার করে। আর দুষ্টু মশাও গুঞ্জন করে সিংহের শরীরের নানা জায়গায় কামড় বসায়। মশার কামড়ে সিংহের নাক আর চোখ ফুলে ঢোল। সিংহ চারদিক কেবল অন্ধকার দেখে। এমনকি ভীষণ কষ্টে শ্বাস নেয়।

‘মশা, একটু থামো,’ সিংহের অনুরোধ। ‘প্রচণ্ড ব্যথায় মরে যাচ্ছি।’

মশা ভারি খুশি। সিংহকে হারানোর গল্প শোনাবার জন্য মশা বনের দিকে ছোটে।

মশা মহাখুশিতে দিক ভুলে কেবলই উড়ছে। বনে গাছের এক বড় ডালে মাকড়সার বোনা জাল—সেদিকে তার খেয়াল নেই।

মশা মাকড়সার জালে আটকা পড়ে। মশা যতই বেরোতে চায় ততই জালে জড়িয়ে যায়।

ছোট্ট এক মাকড়সার কাছে হার হয় মশার।

রূপান্তর : কুতুব আজাদ

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৭ জুলাই, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন