ঢাকা বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
১৮ °সে


শরণখোলা-মোরেলগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কে ধস

শরণখোলা-মোরেলগঞ্জ  আঞ্চলিক মহাসড়কে ধস
শরণখোলা : শরণখোলা-মোড়েলগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের শরণখোলা রাজৈর বাসস্ট্যান্ড সড়কের মাঝখানে ধসে গেছে —ইত্তেফাক

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাব

ইত্তেফাক ডেস্ক

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে অতিবর্ষণে বিভিন্ন স্থানে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। শরণখোলা-মোরেলগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের রাজৈর বাসস্ট্যান্ডে রাস্তা ধসে গেছে। চিতলমারীতে গাছপালা, ঘরবাড়ি ও বৈদ্যুতিক লাইনের ক্ষতি হয়েছে। গোপালগঞ্জে ঘূর্ণিঝড়ের আঘাতে আগাম সবজির ক্ষতিতে কৃষক বিপাকে পড়েছেন।

শরণখোলা (বাগেরহাট) সংবাদদাতা জানান, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে অতিবর্ষণে শরণখোলা-মোরেলগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের শরণখোলার রাজৈর বাসস্ট্যান্ডে রাস্তার মাঝখান ধসে গিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধের উপক্রম হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে রাস্তার এ অবস্থা দেখা গেছে। বাগেরহাটের সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী আনিসুজ্জামান মাসুদ মোবাইল ফোনে বলেন, দ্রুতসময়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সড়কের ভাঙা অংশ মেরামত করা হবে।

চিতলমারী (বাগেরহাট) সংবাদদাতা জানান, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে গাছপালা, ঘরবাড়ি, বৈদ্যুতিক লাইনের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কৃষিখাত শতভাগ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সবজিচাষিরা দিশাহারা হয়ে পড়েছেন। চিতলমারীর কয়েক হাজার চিংড়ি ঘেরের মাছ ভেসে গেছে। চিতলমারী প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সোহাগ ঘোষ জানান, ঘূর্ণিঝড়ে উপজেলার সাতটি ইউনিয়নে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

আগৈলঝাড়া (বরিশাল) সংবাদদাতা জানান, ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে আগৈলঝাড়ার ১৪৪২টি ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১০৮৭ জন পানচাষি। দুর্যোগ পরবর্তী করণীয় জরুরি সভা করেছেন সংসদ সদস্য আলহাজ আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ। বরাদ্দকৃত ২০ মেট্রিক টন জিআর চাল ক্ষতিগ্রস্ত লোকজনের মধ্যে ৫০ কেজি করে বিতরণের জন্য ইউএনও বিপুল দাসকে নির্দেশ দেওয়া হয়।

তালা (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা জানান, তালায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে প্রায় ৫ হাজার বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পাশাপাশি অন্তত ডজনখানেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। তালা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আতিয়ার রহমান জানান, খলিলনগর ইউনিয়ন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের ক্ষয়ক্ষতির একটি তালিকা পেয়েছি।

মোরেলগঞ্জ (বাগেরহাট) সংবাদদাতা জানান, বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার বারইখালী ইউনিয়নে ঘূর্ণিঝড়ে ৩৬ একর জমির আপেলকুল খেত সম্পূর্ণ বিনষ্ট হয়ে গেছে। বারইখালী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান লাল জানান, ঘূর্ণিঝড়ে হাজার হাজার গাছপালা, নদীর তীরবর্তী কাঁচা ঘরবাড়ি, মত্স্য ঘের, রাস্তাঘাট ও ফসলি খেতের ক্ষতি হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১১ ডিসেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন