ঢাকা সোমবার, ০৬ এপ্রিল ২০২০, ২৩ চৈত্র ১৪২৬
৩৬ °সে

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ

প্রধান সড়কগুলো ফাঁকা, বন্ধ গণপরিবহন ও দোকানপাট

প্রধান সড়কগুলো ফাঁকা, বন্ধ গণপরিবহন ও দোকানপাট
চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) : উপজেলা বাজারের দোকানপাট বন্ধ। বৃহস্পতিবার দুপুরে তোলা ছবি —ইত্তেফাক

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বিভিন্ন স্থানে বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন ও দোকানপাট। জনমানবশূন্য হয়ে পড়েছে প্রধান প্রধান সড়কগুলো। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সেনাবাহিনীসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের রাস্তায় টহল দিতে দেখা গেছে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকানসহ ওষুধের দোকান খোলা রয়েছে। আমাদের প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : বৃহস্পতিবার সকালে সেনাবাহিনী শহরের টি.এ রোড, হাসপাতাল রোডসহ বিভিন্ন এলাকায় টহল দেয়। এছাড়াও জেলা প্রশাসনের বেশ কয়েকটি ভ্রাম্যমাণ আদালত শহর জুড়ে সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়নে কাজ করছে। সকাল থেকেই হাসপাতাল, খাবারের দোকান, ফার্মেসি, মুদি দোকান ছাড়া সরকার নির্দেশিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানসমূহ বন্ধ রয়েছে। এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১২৫ জন প্রবাসীকে হোম কোয়রেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে ১ হাজার ৫৪৮ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে বলে স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে।

বাগেরহাট :জেলা শহর, বাজার, উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন হাটবাজারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর গাড়ি রাস্তায় টহল দিতে দেখা গেছে। প্রতিদিনের জমে ওঠা বিভিন্ন মোড়ের আড্ডা নেই। কোথাও একটি-দুইটি চায়ের দোকান খোলা থাকলেও ভিড় নেই। রাস্তাঘাট ফাঁকা তবে ‘অতিপ্রয়োজনে’ নামা কিছু মানুষকে রাস্তায় দেখা যাচ্ছে। বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মামুনুর রশীদ বলেন, এখনো যারা অপ্রয়োজনে বাড়ির বাইরে আছেন, তাদের ঘরে ফিরতে অনুরোধ করছি। তা না হলে রাস্তার টহলে থাকা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবে।

চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) : উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে পৌরসভাসহ উপজেলার তের ইউনিয়নের দোকানপাট বন্ধ। উপজেলার সকল রাস্তাঘাটসহ সর্বত্র এখন ফাঁকা। বৃহস্পতিবার দুপুরে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশের একটি টিম চৌদ্দগ্রাম বাজারে জনসাধারণকে ঘরে অবস্থান করার জন্য হ্যান্ডমাইকে ঘোষণা দিয়ে সচেতন করতে দেখা গেছে। বুধবার বিকাল থেকে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে শুধু হাসপাতাল, ফার্মেসি, মুদি দোকান ও কাঁচাবাজার ছাড়া উপজেলার প্রত্যেকটি বাজার, জনবহুল এলাকার সকল দোকান ও শপিংমল বন্ধ রয়েছে।

সৈয়দপুর (নীলফামারী) :নীলফামারীর বাণিজ্যিক শহর সৈয়দপুরে সকল যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। সেই সঙ্গে অত্যাবশ্যকীয় ওষুধের দোকান, কাঁচামালসহ ছাড়া সকল দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বুধবার বেলা ১১টায় মাঠে নামেন সৈয়দপুর উপজেলা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা। সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকার জানান, শহরের বাঁশবাড়ি এলাকায় করোনা সন্দেহে ইমরান (৩৬) নামে এক জনকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সেখানে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসাবে আশপাশের ১১টি বাড়ির বাসিন্দাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

বদরগঞ্জ (রংপুর) : বৃহস্পতিবার পৌরশহরের বাজার ঘুরে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও ব্যস্ততম সড়ক জনমানবহীন হওয়ার দৃশ্যই চোখে পড়ে। সেই সঙ্গে চোখে পড়ে কাঁচা বাজারের দোকানগুলোর পাশে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ হতে নির্ধারিত দূরত্ব চিহ্ন। যেখান হতে স্ব-স্ব ক্রেতারা একজন আরেকজনের দূরত্ব বজায় রেখে মালামাল ক্রয় করবেন। সব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। সেই সঙ্গে পুলিশ বাহিনীর টহল দলের তত্পরতায় রাস্তাঘাট জনমানবহীন হয়ে পড়েছে। তবে ওষুধ, সার, কীটনাশক ও কাঁচা মালের দোকান খোলা থাকলেও ক্রেতার সংখ্যা খুবই কম।

বামনা (বরগুনা) : উপজেলায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বিভিন্ন দেশফেরত প্রবাসী ৪১ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে বলে জানান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান। বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একাট দল বামনা উপজেলায় করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় দায়িত্ব পালন করছে। অভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে। ওষুধ, মুদি ও কাঁচা মালের দোকান ছাড়া সমস্ত দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। প্রয়োজন ব্যতিরেকে খুব কমসংখ্যক লোকজনকে রাস্তাঘাটে দেখা যাচ্ছে। তবে দিন মজুরেরা অসহায় জীবনযাপন করছে।

চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) :বৃহস্পতিবার সকালে অন্যান্য দিনের মতো এসব এলাকার বিপণিবিতান ও দোকানপাট খুললে লোকাজন যথারীতি এসে ভিড় করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে লাঠিচার্জ শুরু করলে অনুমতিহীন দোকানগুলো বন্ধ করে দেয় ব্যবসায়ীরা। একইভাবে রাস্তায় চলাচলকারী মানুষেরাও তখন ভয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে দুপুর নাগাদ রাস্তাঘাট সব ফাঁকা হয়ে যায়।

লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) :বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলা সদরের বাণিজ্যিক কেন্দ্র আমিরাদ-বটতলী মোটর স্টেশনের সব মার্কেট বন্ধ রয়েছে। খোলা রয়েছে ওষুধের দোকানসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দোকান। প্রশাসন, সেনাবাহিনী ও পুলিশ করোনার প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে জনসমাগম এড়াতে মাঠে তত্পর রয়েছে। ফলে পুরো উপজেলার জীবনযাত্রায় স্থবির অবস্থা বিরাজ করছে।

রাণীনগর (নওগাঁ) :উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে চালানো হচ্ছে বিভিন্ন কর্মকাণ্ড। করোনা ভাইরাস সচেতনতায় বিতরণ করা হচ্ছে মাস্ক। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মামুনের নেতৃত্বে প্রতিদিনই উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। বিভিন্ন এলাকার জনসমাগম স্থানে অবস্থিত হোটেল, রেস্তোরাঁসহ দোকান বন্ধ রাখার বিষয়ে কঠোর নজরদারি রাখা হচ্ছে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
০৬ এপ্রিল, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন