ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০১৯, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
৩৩ °সে


চৌমুহনীতে খালে ফেলা হচ্ছে বর্জ্য!

হুমকিতে জনস্বাস্থ্য
চৌমুহনীতে খালে ফেলা হচ্ছে বর্জ্য!
চৌমুহনী (নোয়াখালী) :বেগমগঞ্জ বিসিকের পাশ দিয়ে প্রবাহিত শীর্ণকায় নোয়াখালী খাল। ইনসেটে: তুলাতুলী খালে বর্জ্যের স্তূপ —ইত্তেফাক

বেগমগঞ্জ বিসিক শিল্প নগরী সংলগ্ন ও চৌমুহনী শহরের ওপর দিয়ে প্রবাহিত বিভিন্ন খালে কারখানা ও বাজারের বর্জ্য ফেলার ফলে পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হয়ে জনস্বাস্থ্য হুমকির সম্মুখীন। জানা যায়, চৌমুহনী শহরের উত্তর পশ্চিম প্রান্তে বেগমগঞ্জ বিসিক শিল্প নগরী অবস্থিত। এই নগরীতে ৭৪টি শিল্প কারখানা উত্পাদনরত। রাসায়নিক, খাদ্য, রাবার, মেটাল, ইঞ্জিনিয়ারিং, প্রিন্টিংসহ বিভিন্ন শিল্প-কারখানা রয়েছে। বিসিক শিল্প নগরীর দক্ষিণ পাশ দিয়ে প্রবাহিত নোয়াখালী খাল, পূর্বদিক দিয়ে প্রবাহিত বেগমগঞ্জ-সোনাইমুড়ী-থানারহাট খাল। বেগমগঞ্জ বিসিক শিল্প নগরীতে দুয়েকটি বাদে অধিকাংশ কারখানায় পানি শোধন করার কোনো ব্যবস্থা নেই।

এদিকে চৌমুহনী প্রথম শ্রেণির একটি পৌরসভা। এই শহরের ওপর দিয়ে একাধিক বড় খাল প্রবাহিত হয়েছে। বিভিন্ন সড়ক ও দোকানপাট ঝাড়ু দিয়ে বর্জ্য পার্শ্ববর্তী খালে সরাসরি ফেলে দেয় অনেকে। এতে বর্তমানে খাল ভরাট হয়ে পানি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। এমনকি শহরের পানি নিষ্কাশনের জন্য যে ড্রেনেজ ব্যবস্থা রয়েছে এবং ওইসব ড্রেনের সাথে খালের যে সংযোগ রয়েছে তাও বন্ধ হয়ে আছে। খালের আবর্জনায় পরিবেশ দূষিত ও মশার বংশ বিস্তার হচ্ছে। এতে জনস্বাস্থ্য মারাত্মক হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে। পৌরসভার স্বাস্থ্য বিভাগ ব্যাপারটি আমলে নিচ্ছে না।

বেগমগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ওমর ফারুক বাদশা, চৌমুহনী সাধারণ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হুমায়ূন কবির, পৌরসভার ৪, ৫ ও ৬ আসনের সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর প্রতিভা রাণী দাশ বলেন, চৌমুহনীর খালগুলোর পানি নিষ্কাশনে নানা স্থানে প্রতিবন্ধকতা থাকায় বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়। খালের পানিও মারাত্মক দূষিত। তাছাড়া আবর্জনা ও ঝোপজঙ্গলের কারণে খালের বদ্ধ পানিতে মশার বংশবিস্তার ঘটছে। এসব সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা সংশ্লিষ্টদের কাছে জানিয়েছি। আশা করি তারা সমাধান করবেন।

চৌমুহনী পৌরসভার সচিব কাউয়ুমউদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, খালের পানিতে বর্জ্য-আবর্জনা ফেলার জন্য পৌরসভার নিজস্ব স্থান রয়েছে। তারপরও খালে আবর্জনা ফেলার প্রবণতা বন্ধ করা যাচ্ছে না। এ ব্যাপারে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে। বেগমগঞ্জ বিসিক শিল্প নগরীর এস্টেট অফিসার বদরুল আলমের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, নগরীর সব কারখানার মালিককে বলা হয়েছে যেন কারখানার কোনো প্রকার বর্জ্য খালে ফেলা না হয়। খালের পানিতে বর্জ্য ফেলা দণ্ডনীয় অপরাধ। ব্যাপারটি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জানানো হবে।

বেগমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাহবুবুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, বিসিক শিল্প নগরীর অনেক কারখানার বর্জ্য খালে ফেলা হয়। এসব বর্জ্য খালের পানির সাথে মিশে পানি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। নানান রোগব্যধিতে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। তাছাড়া শহরের বর্জ্য খালের মধ্যে ফেলে পরিবেশ আরো দূষিত করা হচ্ছে। পৌরসভার নিজস্ব স্বাস্থ্য বিভাগ থাকায় তারাই পৌরসভার স্বাস্থ্য সংক্রান্ত দেখাশুনা করে থাকে। উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কিছুই করণীয় নেই।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২৩ মে, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন