ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০১৯, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
৩৪ °সে


গরঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়

পাঠদান আকাশের নিচে মেঘ ডাকলেই ছুটি

পাঠদান আকাশের নিচে  মেঘ ডাকলেই ছুটি
গৌরীনদী (বরিশাল): গরঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা খোলা আকাশের নিচে ক্লাস করছে —ইত্তেফাক

মো. জামাল উদ্দিন, গৌরনদী (বরিশাল) সংবাদদাতা

মেঘ ডাকলেই গৌরনদী উপজেলার গরঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বেজে ওঠে ছুটির ঘণ্টা। ফলে তাদের পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, গৌরনদীর গরঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ২২৩ জন ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে। বিদ্যালয়ের মূল ভবন পরিত্যক্ত হওয়ায় ছাত্র-ছাত্রীদের প্রচণ্ড তাপদাহের মধ্যে খোলা আকাশের নিচেই পাঠদান চলছে।

স্কুলের শিক্ষার্থীরা জানায়, রোদে পুড়ে বৃষ্টিতে ভিজে আমাদের ক্লাস করতে হয়। আকাশে মেঘ দেখলেই স্কুল ছুটি হয়ে যায়। ফলে আমাদের লেখাপড়ায় বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে।

অভিভাবক আব্দুস সালাম জানান, প্রচণ্ড তাপদাহে শিশুরা অতিষ্ঠ। এতে শিশুরা বিভিন্ন রোগে ভুগছে। তিনি যত দ্রুত সম্ভব স্কুলের নতুন ভবন নির্মাণের জোড় দাবি জানান।

বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জানান, চার বছর আগে বিদ্যালয়ের মূল ভবনের পাঁচটি কক্ষের তিনটি কক্ষ পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। বাকি দুটি কক্ষের একটি শিক্ষক মিলনায়তন অপর কক্ষটিতে ক্লাস নেওয়া হয়। এ কক্ষ দুটিরও পলেস্তরা খুলে পড়ে মাঝে মাঝে। এ ছাড়া আরেকটি টিনের ঘর আছে সেখানেও ক্লাস নেওয়া হয়। টিনের ঘরটিও ঝুঁকিপূর্ণ। তাপদাহের কারণে বা মেঘ দেখলেই স্কুল ছুটি দিয়ে দিতে হয় বলে তারা জানান।

প্রধান শিক্ষক হাওলাদার খলিলুর রহমান জানান, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে আমাদের স্কুলের সমস্যাগুলো মৌখিকভাবে জানিয়েছি। আটমাস আগে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার বজলুল করিম স্কুলটি সরেজমিনে এসে দেখেও গেছেন ।

স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. শহিদুল খান জানান, স্কুলটির অবস্থা খুবই খারাপ। আমাদের ভয় হচ্ছে বড় কোনো দুর্ঘটনা না ঘটে। ছাত্র-ছাত্রীদের পড়ালেখার কারণে স্কুল বন্ধও করা যাচ্ছে না। আমরা বিগত চার বছর ধরে কর্তৃপক্ষকে বারবার তাগিদ দিচ্ছি। তারা আশ্বাসও দিচ্ছেন। কিন্তু সমস্যার কোনো সমাধান হচ্ছে না।

গৌরনদী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. ফয়সাল জামিল জানান, শুধু গরঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনই নয়। গৌরনদীর ৪০টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন ঝুঁকিপূর্ণ। এ কারণে ৪০টি ভবন পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। ধসে পরার আশঙ্কায় ওইসব ভবনে পাঠদানও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। একইসঙ্গে নতুন ভবন নির্মাণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বারবার জানানো হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২০ মে, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন