ঢাকা সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
২৪ °সে


কাতালানের স্বাধীনতা আন্দোলন

কাতালানের স্বাধীনতা আন্দোলন

বেশ কিছুদিন নিঃশব্দ থাকিবার পরে স্পেন হইতে বিচ্ছিন্ন হইয়া স্বাধীন কাতালান রাষ্ট্র গঠনের আন্দোলনটি আবার চাঙা হইয়া উঠিতে শুরু করিয়াছে। উল্লে­খ্য, গত সোমবার সুপ্রিম কোর্ট প্রদত্ত এক রায়ে ২০১৭ সালের স্বাধীনতা আন্দোলনকালে রাষ্ট্রবিরোধী তত্পরতায় জড়িত থাকিবার দায়ে ৯ জন শীর্ষস্থানীয় নেতাকে ৯ হইতে ১৩ বত্সর মেয়াদি কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এই রায় ঘোষণার পরেই রাজধানী বার্সেলোনাসহ কাতালান রাজ্যের অন্যান্য শহরে সহিংস বিক্ষোভের আগুন জ্বলিয়া উঠে। সংবাদমাধ্যম সূত্রে প্রকাশ, রায় প্রকাশিত হইবার পরপর এমনকি স্বাধীনতাপন্থি নহেন এমন অসংখ্য মানুষও রায়টির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ জানাইবার জন্য কাতালানের রাস্তায় নামিয়া আসেন। দণ্ডিত ৯ জনসহ স্বাধীনতাপন্থি নেতারা অহিংস প্রতিবাদ জানাইবার জন্য জনতার প্রতি আহ্বান জানাইলেও, কাতালানবাসীর এইবারের আন্দোলনটি নিছক অহিংসার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকিতেছে বলিয়া মনে হয় না।

কাতালানে বিক্ষোভ শুরু হইবার পরপর অনুমানমাফিক স্পেনের কেন্দ্র ও রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী একযোগে বিক্ষোভ দমনে রাস্তায় নামিয়াছে। এইদিকে স্পেনের প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ বিক্ষোভ দমনের জন্য প্রয়োজন হইলে সংবিধানের ১৫৫ ধারা ব্যবহারের হুমকি দিয়াছেন। উল্লেখ্য, কেন্দ্রীয় সরকার চাহিলে ১৫৫ ধারা ব্যবহার করিয়া কাতালানের রাজ্য সরকার ভাঙিয়া দিয়া তথায় কেন্দ্রের শাসন জারি করিতে পারে। সানচেজের এই হুমকিতে দৃশ্যত অবিচল থাকিলেও, কাতালানের স্বাধীনতাপন্থি নেতৃবৃন্দ সাবধানে পা ফেলিবার নীতি অবলম্বন করিয়াছেন বলিয়া মনে হইতেছে। তাহাদের মতে, আন্দোলন সহিংস হইয়া উঠিলে কেন্দ্রের পক্ষ হইতে ১৫৫ ধারা জারি করিবার যুক্তি শক্তিশালী হইয়া উঠিবে। আর তেমন কিছু হইলে কাতালানের স্বাধীনতা আন্দোলন লম্বা সময়ের জন্য স্তব্ধ হইয়া যাইবে। স্মর্তব্য, এখন অবধি কাতালানের আইন পরিষদ স্বাধীনতা আন্দোলনে নেতৃত্ব প্রদান করিতেছে। তবে অবস্থাদৃষ্টে প্রতীয়মান হইতেছে যে, অহিংসাভিত্তিক এই আন্দোলন এইবার এক ধরনের চ্যালেঞ্জের মধ্যে পড়িয়া গিয়াছে। বিশেষ করিয়া, ডিফেন্স অব দ্য রিপাবলিক (সিডিআর) কিংবা সুনামি ডেমোক্রেটিকের মতো নতুন গড়িয়া উঠা যেইসব সংগঠন কেন্দ্রীয় সরকারের সহিত সরাসরি সংঘাত ও প্রয়োজনে সংঘর্ষে লিপ্ত হইবার নীতি গ্রহণ করিয়াছে, এইবারের বিক্ষোভে তাহাদের সহিত জনগণের অধিক সংশ্লিষ্টতা দেখা গিয়াছে বলিয়া মত প্রকাশ করিতেছেন অনেক পর্যবেক্ষক।

স্মর্তব্য, ২০১৭ সালে পহেলা অক্টোবর কাতালানে অনুষ্ঠিত গণভোটে স্বাধীনতার পক্ষে ৯২ শতাংশ ভোট পড়ে। এই ধারাবাহিকতাতে ২৭ অক্টোবর কাতালান আইনসভাতে স্বাধীনতার ঘোষণা গৃহীত হয়। এই ঘোষণার প্রতিক্রিয়াতে স্পেনের কেন্দ্রীয় সরকার ব্যাপক ধরপাকড় ও আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের পথ অবলম্বন করে। এই ধারাবাহিকতাতেই গত সোমবার স্বাধীনতাকামী ৯ নেতাকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এইখানে শেষ নহে, আন্দোলনের দমনের লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় সরকার অস্ট্রিয়ায় আশ্রয় গ্রহণকারী কাতালান রাজ্যের প্রেসিডেন্ট কার্লস পুইগডেমন্টের বিরুদ্ধে পুনরায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করিয়াছে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৮ নভেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন