ঢাকা মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
২৭ °সে


সিরিয়া সংকটে লাভবান কে!

সিরিয়া সংকটে লাভবান কে!

এম এ আলআমিন

সিরিয়ায় বাশার আল আসাদের পরিবারের দীর্ঘ চার দশকের শাসনের বিরুদ্ধে শুরু হওয়া গণআন্দোলন ক্রমেই গৃহযুদ্ধের রূপ নেয়। গৃহযুদ্ধ থেকে এটি পরিণত হয়েছে আন্তর্জাতিক লড়াইয়ে। এই লড়াইয়ে কে জিতল বা কে হারল আট বছর পর এ প্রশ্ন আসা খুবই স্বাভাবিক। দেখা যাচ্ছে এ লড়াইয়ে পরাজিত অনেকগুলো পক্ষ রয়েছে, বিপরীত একটি বৃহত্ শক্তি জয়ের মুখ দেখতে পেয়েছে।

সিরিয়া সংকটে কোনো পক্ষ জয়ী বা লাভবান হয়ে থাকলে সেটি রাশিয়া। বিষয়টি অস্বীকার করার সুযোগ তেমন নেই। কারণ সিরিয়া থেকে হাত গুটানোর পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এখন দেশে ব্যাপক সমালোচনার শিকার। কারণ এই সুযোগে তুরস্ক সেখানে প্রাধান্য বিস্তার করে বসেছে। তবে তুরস্কও কুর্দিদের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান শুরু করে সমালোচিত হচ্ছে। অন্যদিকে রাশিয়া একই সঙ্গে আঙ্কারা ও দামেস্কের ওপর প্রভাব খাটানোর সুযোগ পেয়েছে। বলা যায় মস্কো এক্ষেত্রে কিংমেকার।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন এবং তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপ এরদোগানের মধ্যে সম্প্রতি একটি চুক্তি হয়। এর মাধ্যমে দেশ দুটি সিরিয়ার উত্তরাঞ্চল থেকে সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ফোর্স বা এসডিএফকে হটিয়ে দেওয়ার সুযোগ পেয়েছে। এসডিএফ একটি মিলিশিয়া বাহিনী যাতে কুর্দি যোদ্ধাদের প্রাধান্য রয়েছে। ১ নভেম্বর থেকে রুশ তুর্কি যৌথ বাহিনী ঐ অঞ্চল টহল দেওয়া শুরু করেছে। অন্যদিকে ট্রাম্প সম্প্রতি সিরিয়ার তেলক্ষেত্রগুলো রক্ষার জন্য ৫০০ সৈন্য পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছেন। ইসলামিক স্টেটের সম্ভাব্য হামলা থেকে তেলক্ষেত্র এর মূল উদ্দেশ্য বলা হলেও বিশ্লেষকদের ধারণা—দামেস্কের ওপর প্রভাব খাটানোর লক্ষ্য থেকে ট্রাম্প এই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকতে পারেন। দামেস্ক ও মস্কো আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন বলে যুক্তরাষ্ট্রের এই সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছে। রাশিয়া এখন যে শুধু মধ্যপ্রাচ্যে প্রভাব খাটানোর সুযোগ পেয়েছে তাই নয়, বরং তুরস্কের একটি গুরুত্ব ন্যাটো সদস্যকেও নিজের পক্ষে নিয়ে আসতে পেরেছে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১০ ডিসেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন