ঢাকা মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
১৯ °সে


সমাগত মাহে রবিউল আউয়াল

সমাগত মাহে  রবিউল আউয়াল

কুলকায়নাত সৃষ্টির উত্স ও আল্লাহর পেয়ারা হাবিব হযরত মুহম্মদ (স)-এর আগমনি মাস ‘মাহে রবিউল আউয়াল’ সমাগত। আহলান সাহলান মারহাবান। রবিউল আউয়াল মাস বিশ্ববাসীর জন্য অত্যন্ত তাত্পর্যপূর্ণ একটি মাস। এই মাসে দুনিয়ার বুকে তাশরিফ আনেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ নবি ও রসুল হযরত মুহম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। তিনি কেবল বা মুসলমানদের কল্যাণের জন্যই আসেননি; তিনি হচ্ছেন সমগ্র মানবজাতির জন্য রহমতস্বরূপ। তিনি উসওয়াতুন হাসানা বা মানবজাতির সর্বোত্তম জীবনাদর্শের অধিকারী। কিশোর বয়সেও তিনি সবার কাছে ‘আল-আমিন’ বা বিশ্বস্ত বলে পরিচিত ছিলেন।

ইতিহাসের এমন এক অধ্যায়ে তার আগমন ঘটেছিল, যখন বিশেষ করে আরবীয় সমাজ সীমাহীন অপকর্মের মধ্যে নিমজ্জিত ছিল। ‘আইয়্যামে জাহেলিয়া’ নামে পরিচিত সেই যুগেই আগমন করেছিলেন হযরত মুহম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। তিনি কেবল ধর্মপ্রচারকই ছিলেন না, একজন সমাজসংস্কারক হিসেবেও ছিলেন অত্যন্ত সফল। হযরত মুহম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মাধ্যমেই আল্লাহ তার মনোনীত দ্বিনের পূর্ণাঙ্গতা প্রদান করেন। আল্লাহ মানুষকে নির্দেশ দিয়েছেন রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনাদর্শকে অনুসরণ করতে। তার আনুগত্য করতে। তার জীবন ছিল বৈচিত্র্যময় ও ঘটনাবহুল। তার আবির্ভাবের মাসে আমরা সেগুলো জানতে, বুঝতে এবং গবেষণা করতে উদ্যোগী হতে পারি।

তাকে সৃষ্টি না করা হলে এই জগতের কিছুই সৃষ্টি হতো না। তাই মানবজাতির জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ আদর্শ তার আগমন মাসকে কেন্দ্র করে মাসব্যাপী অনুষ্ঠানমালা করা যেমন দরকার, তেমনি তাতে আমাদের সকলের অংশগ্রহণও জরুরি। বিশ্বশান্তির জন্যই এটা জরুরি। মানবজাতির কল্যাণের জন্য তার সমগ্র জীবন তিনি আল্লাহর নির্দেশ অনুসারে পরিচালিত করেছেন। তার জীবনাদর্শের অনুশীলন করতে হলে সঠিকভাবে তার জীবনদর্শন জানা দরকার। যেসব আলেম তা ভালো করে জানেন, ভালোভাবে বিশ্লেষণ করতে পারেন, তাদের উচিত বিশ্ববাসীর কাছে তার সেই সিরাত বা জীবনচরিত্রকে সুন্দরভাবে তুলে ধরা।

লেখক :সাংবাদিক ও সংগঠক

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১০ ডিসেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন