ঢাকা সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬
২৯ °সে

এক নজরে বিদ্যানন্দ

এক নজরে বিদ্যানন্দ

বিদ্যাকে আনন্দের সাথে সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসে লাইব্রেরি দিয়ে যাত্রা শুরু করে বিদ্যানন্দ। ‘পড়বো, খেলবো, শিখবো’—শ্লোগান নিয়েই তারা তাদের কাজ শুরু করে। তারা লাইব্রেরির পাশাপাশি করছে স্কুল, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি কোচিং, মেধাবৃত্তি প্রদান, ফ্রেমে বাঁধা শৈশব, অনাথালয়, বৃদ্ধাশ্রম, ১ টাকায় আহার, ১ টাকায় চুলকাটা, ১ টাকায় আইনি সহায়তা ও ১ টাকায় চিকিত্সা।

একবার এক বালক অনেকক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে মন্দির থেকে কলাপাতায় করে খাবার নিয়ে দৌড়ে তার মায়ের কাছে যাচ্ছিল। এমন সময় বালকটির হাত থেকে খাবারগুলো পড়ে যায়। তখন তার খুব কষ্ট লাগে। তখন তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন বড় হয়ে প্রতিষ্ঠিত হলে তার মতো যারা খাবারের অভাবে কষ্ট পাচ্ছে তাদের খাবারের কষ্টটা অনুভব করতে দেবেন না। সেই উপলব্ধি থেকে আজকের এই ১ টাকার আহার। সেই বালকটি আর কেউ নন, তিনি হলেন বিদ্যানন্দের প্রতিষ্ঠাতা কিশোর কুমার দাশ।

১ টাকায় খাবার প্রথমে বিনামূল্যেই বিতরণ করা হতো। কিন্তু সুবিধাবঞ্চিতরা যে খাবার কিনতে সামর্থ্য তা বোঝাতেই এই ১ টাকার তকমা লাগানো। প্রতিদিন সুবিধাবঞ্চিতদের খাবার রান্না ও বিতরণের কাজে নিয়োজিত আছেন প্রায় ৩শ’ স্বেচ্ছাসেবক। ঢাকা, চট্টগ্রাম ও নারায়ণগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবকরা নিজেই রান্নার কাজ করে থাকেন। এই পরিকল্পনার আওতায় খাবার পেয়ে থাকেন ১২ বছরের নিচে অসহায় শিশু, আর ৬০ বছরের ঊর্ধ্বের বৃদ্ধরা।

শুধু আহারই নয়, এর পাশাপাশি শিশুদের পরিচ্ছন্ন জীবন উপহারে দিতে খাবারের পূর্বে হাত ধোয়া, নখ কাটা হয়েছে কি-না, চুল কাটতে হবে কি-না সেগুলো দেখে থাকে। যাদের নখ বড় তাদের নখ সেচ্ছাসেবকরাই কেটে দেয়। আর যাদের চুল কাটতে হবে তাদের ১ টাকার বিনিময়ে সেলুনে চুল কাটানো হয়।

১ হাজার ১০০ জন ছাত্রছাত্রীকে পড়ানো তাদের মূল কাজ। ছাত্রছাত্রীদের বিনামূল্যে পড়ানোর পাশাপাশি দেওয়া হয় শিক্ষা উপকরণ। তাদের নির্দিষ্ট কিছু বেতনভুক্ত শিক্ষক থাকলেও অনেক স্বেচ্ছাসেবকও এখানে পড়িয়ে থাকেন। এছাড়াও তাদের রয়েছে প্রায় ১০ হাজার বইয়ের উন্মুক্ত পাঠাগার। যে কেউ সেখানে বসে বই পড়তে পারেন। তাদের একটি অন্যতম কার্যক্রম হলো, বিনামূল্যে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং। এখানে গরিব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ভর্তি কোচিং করানো হয়। এর পাশাপাশি যারা গ্রামের তাদের থাকার ব্যবস্থা করে দেয়। বিনামূল্যে কোর্স পাওয়ার পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা উপকরণ, গাইড, লেকচার সিট দেয় বিদ্যানন্দ। তাদের এই কোর্স শুধুমাত্র বাণিজ্য আর মানবিক বিভাগের জন্য।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২২ এপ্রিল, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন