ঢাকা শুক্রবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৬
৩০ °সে

এলোভেরার কদর বাড়ছে

এলোভেরার কদর বাড়ছে

অর্থকরী উদ্ভিদ

আবুল কাসেম ভূঁইয়া

বাংলাদেশে উত্পাদিত ঔষধি গাছ এলোভেরা সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মাঝে তেমন একটা আগ্রহ ছিল না। মোবাইলের ফেসবুকের মাধ্যমে এলোভেরার বিভিন্ন গুণাগুণ প্রচারিত হওয়ায় দেশের মানুষের মাঝে এলোভেরার ব্যাপারে আগ্রহ সৃষ্টি হয়। এক সময় পাহাড়ের ঝোপ ঝাড়ের মধ্যে এলোভেরা উত্পন্ন হতো। চাহিদা না থাকায় এগুলো পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে থাকত। কিন্তু ইদানীং এলোভেরার এত গুণাগুণ রয়েছে জানতে পেরে অনেকেই এলোভেরার ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে উঠে। এলোভেরা দিয়ে প্রসাধন কোম্পানিগুলো বিভিন্ন ধরনের প্রসাধন সামগ্রী তৈরি করছে। এলোভেরা দিয়ে উন্নতমানের ফেসওয়াশ, পেস্ট, জেল, ক্রিম তৈরি করা হচ্ছে।

এলোভেরার কদর এবং চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের বিভিন্ন স্থানে কিছু কিছু উত্সাহী চাষি এলোভেরা বাণিজ্যিক ভিত্তিতে চাষাবাদে এগিয়ে এসেছেন। প্রাপ্ত তথ্য থেকে জানা যায়, দেশের নাটোর, বগুড়া, টাঙ্গাইলসহ বিভিন্ন স্থানে এলোভেরার চাষ হচ্ছে। নাটোরের কৃষক কামাল হোসেন বাণিজ্যিক ভিত্তিতে তিনবছর আগে থেকে এলোভেরা চাষের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। প্রথমে তিনি আট বিঘা জমিতে এলোভেরার চাষ শুরু করেন। পরবর্তীতে ১০ বিঘা জমিতে এলোভেরা চাষ করছেন। কামাল হোসেন জানান, এলোভেরা একটি লাভজনক ফসল। এলোভেরা চাষে তেমন শ্রম দিতে হয় না। চারা রোপণের পর একটানা বিশ বছর ধরে এলোভেরা পাওয়া যাবে। জমিতে মাঝে মধ্যে সার এবং সেচের ব্যবস্থা করতে হবে। সবধরনের মাটিতে এলোভেরা উত্পন্ন হয়। তবে লাল মাটিতে এর ফলন হয় না। খোলামেলা একটু উঁচু জায়গায় এলোভেরার চাষ করতে হয়।

এলোভেরার চারা রোপণের আগে জমিতে জৈবসার এবং রাসায়নিক সার প্রয়োগ করতে হবে। জমি তৈরি হলে বেড পদ্ধতিতে এক হাত অন্তর অন্তর চারা রোপণ করতে হবে। চারা রোপণের এক বছর পর থেকে এলোভেরা তোলা যায়। প্রতি বিঘা জমিতে ১০ হাজার চারা রোপণ করা যায়। প্রতি বিঘা জমিতে এলোভেরার চাষ করতে দুই লাখ টাকা খরচ পড়ে। তার দশ বিঘা জমিতে গত দুই বছরে ২২ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছেন। দুই বছরে এলোভেরা বিক্রি করে আয় হয়েছে ২৭ লাখ টাকা। তার লাভ হয়েছে পাঁচ লাখ টাকা। বাজারে প্রতিমণ এলোভেরা বিক্রি হয় ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা। প্রতি পনের দিন পর পর ১০ থেকে ১২ মণ এলোভেরা তোলা হয় তার জমি থেকে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন