ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬
২৪ °সে


পুলিশ হেফাজতে যুবককে চোখ বেঁধে নির্যাতন!

পুলিশ হেফাজতে যুবককে  চোখ বেঁধে নির্যাতন!
নির্যাতিত শিহাব

নড়াইলের লোহাগড়া থানা পুলিশ হেফাজতে শিহাব মল্লিক (২৭) নামের এক যুবককে চোখ বেঁধে ও হাতকড়া পরিয়ে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। শিহাব মল্লিক বর্তমানে লোহাগড়া হাসপাতালে চিকিত্সাধীন রয়েছেন। তিনি লোহাগড়া পৌরসভার গোপীনাথপুর গ্রামের এনামুল মল্লিকের একমাত্র ছেলে। হাসপাতালে ভর্তি শিহাব মল্লিক গতকাল সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের জানান, গত শনিবার সকালে আর্থিক ও পারিবারিক বিরোধের জের ধরে ফুফাতো ভাই মনিরুল ও খাইরুল মল্লিকের সঙ্গে তার হাতাহাতি হয়। এ ঘটনায় মনিরুল বাদী হয়ে শিহাব ও তার মা বিউটি বেগমকে আসামি করে লোহাগড়া থানায় মামলা করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই নুরুস সালাম সিদ্দিক রবিবার সন্ধ্যায় শিহাবকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। পরিবারের লোকজন শিহাবের সঙ্গে থানায় দেখা করতে গেলে তাদেরকে দেখা করতে দেয়নি ঐ পুলিশ কর্মকর্তা। গত সোমবার সকালে শিহাবকে কোর্টে পাঠানোর আগে এস আই সিদ্দিক শিহাবকে হাতকড়া পরিয়ে চোখ বেঁধে তিন দফা পেটায়। নির্যাতনের কারণে সে কয়েকবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে তাকে কিছুটা সুস্থ করে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করে। আদালত চত্বরে তার পরিবারের কাছে ঐ নির্যাতনের বর্ণনা দেয় শিহাব। গত বৃহস্পতিবার জামিনে মুক্ত হলে শিহাবকে লোহাগড়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

শিহাব ও তার আত্মীয়দের অভিযোগ, এসআই নুরুস সালাম সিদ্দিক বাদীর কাছ থেকে মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে বাদীকে খুশি করতে শিহাবের ওপর নির্যাতন চালিয়েছে। শিহাবের পরিবার বর্তমানে আতঙ্কের মধ্যে আছে। লোহাগড়া হাসপাতালের কর্মরত ডাক্তার কামরুল ইসলাম বলেন, শিহাবের দুই পায়ের হাঁটুর ওপরে এবং কোমরের নিচে একাধিক স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এসআই সিদ্দিক শিহাবকে মারপিটের কথা অস্বীকার করে বলেন, সুস্থ অবস্থায় তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছিল। পরে কি হয়েছে তা জানি না। লোহাগড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোকাররম হোসেন জানান, বিষয়টি তদন্ত করে দোষীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৪ নভেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন