ঢাকা বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬
২৮ °সে


বিমানে যাত্রীসেবার মান আরো উন্নত করতে হবে

ড্রিমলাইনার ‘গাঙচিল’ উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী
বিমানে যাত্রীসেবার মান  আরো উন্নত করতে হবে
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হযরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বোয়িং ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ ‘গাঙচিল’-এর উদ্বোধন শেষে ভেতরে ঘুরে দেখে বিমান থেকে নেমে আসছেন —পিআইডি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যাত্রী সেবার মান উন্নত করার মাধ্যমে জাতীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের সুনাম বৃদ্ধির জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘আমরা আশা করি, বিমানের সুনাম অক্ষুণ্ন রাখা এবং উত্তরোত্তর যাত্রী সেবার মান বৃদ্ধি করা এবং যে উড়োজাহাজগুলো আমরা এনে দিচ্ছি সেগুলো যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা সকলের দায়িত্ব। এটা নিজস্ব সম্পদ, সে কথা মনে রেখে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে আন্তরিকতার সাথে আপনাদের কাজ করতে হবে।’

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হওয়া বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির আরো একটি ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজ ‘গাঙচিল’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিভিআইপি টার্মিনালে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রনালয় এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

ফিতা কেটে উদ্বোধন করেই প্রধানমন্ত্রী উড়োজাহাজটিতে আরোহণ করেন এবং ককপিটসহ বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন এবং পাইলট ও ক্রুদের সঙ্গে কথা বলেন। বিকেল সাড়ে ৫টায় উদ্বোধনী ফ্লাইটে আবুধাবির উদ্দেশে আকাশে ডানা মেলে ‘গাঙচিল’। গত ২৫ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের সিয়াটল থেকে দেশে আসে এই উড়োজাহাজটি। জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর পছন্দে উড়োজাহাজটির নামকরণ করা হয়েছে ‘গাঙচিল’। এটি যুক্ত হওয়ার মধ্য দিয়ে ড্রিমলাইনার উড়োজাহাজের সংখ্যা দাঁড়ালো তিনটিতে। ‘গাঙচিল’ একটানা ১৬ ঘণ্টা উড়তে পারে। এটিতে অন্যান্য উড়োজাহাজের তুলনায় ২০ শতাংশ কম জ্বালানি খরচ হয়। এর আসন সংখ্যা ২৭১। এর মধ্যে বিজনেস ক্লাস ২৪টি এবং ২৪৭টি ইকোনমি ক্লাসের আসন রয়েছে। বিজনেস ক্লাসের ২৪টি আসন ১৮০ ডিগ্রি পর্যন্ত রিক্লাইন্ড সুবিধা এবং সম্পূর্ণ ফ্ল্যাটবেড হওয়ায় যাত্রীরা আরামদায়ক ও স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে ভ্রমণ করতে পারবেন। বিমানটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪৩ হাজার ফুট ওপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার সময়ও ওয়াইফাই সুবিধা নিতে পারবেন যাত্রীরা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একদম তৃণমূল পর্যায়ের মানুষকেও একটা সুন্দর জীবন যেন আমরা দিতে পারি সেই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। বিমানকে আরো উন্নত করার দিকে সরকারের দৃষ্টি রয়েছে।’ এ সময় সম্প্রসারণ, আধুনিকায়ন এবং নতুন নতুন বিমানবন্দর তৈরিতে তাঁর সরকারের পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরে তিনি বলেন, আজকের উদ্বোধন করা ‘গাংচিল’কে নিয়ে বোয়িং এর সঙ্গে চুক্তিকৃত ১০টি বিমান ক্রয়ের মধ্যে ৯ নম্বর বিমানটি বহরে যুক্ত হলো। আর একটা আসলেই ১০ টি পূর্ণ হবে। অচিরেই এই উড়োজাহাজগুলো ঢাকা-নিউইয়র্ক রুটে চলাচল করবে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘আমেরিকায় এখনও আমরা যেতে পারছি না, তবে, আশা করছি শিগগিরই এই সমস্যার সমাধান হবে। আমাদের ড্রিমলাইনার সরাসরি ঢাকা থেকে জেএফকে (জনএফ কেনেডি এয়ারপোর্ট,নিউইয়র্ক) যাওয়ার মত সক্ষমতা রাখে। কাজেই আমরা প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।’ সেই সঙ্গে লন্ডনে বিমানের জন্য স্লট যেন আরো বৃদ্ধি পায় এবং আরো কয়েকটি দেশে বিমান তার যাত্রীসেবা যেন বৃদ্ধি করতে পারে এবং যেতে পারে সরকার সেই চেষ্টাই চালিয়ে যাচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন