ঢাকা সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
২৩ °সে


সারের দাম কমানোর কথা ভাবছে সরকার ............................কৃষিমন্ত্রী

সারের দাম কমানোর  কথা ভাবছে সরকার  ............................কৃষিমন্ত্রী

কৃষকদের সুবিধা বিবেচনায় নিয়ে সরকার সব ধরনের সারের দাম কমানোর কথা ভাবছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক। তিনি জানান, সারের দাম কমাতে ধানমন্ডির কার্যালয় এবং অর্থনৈতিক ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে প্রস্তাব পাঠানো হবে। সারে যদি প্রণোদনা দেওয়া হয়, তবে সব কৃষকই সে সুফল পাবে। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত সার বিষয়ক জাতীয় সমন্বয় ও পরামর্শক কমিটির এক সভা শেষে তিনি এ তথ্য জানান। বর্তমান সারের মজুতের তথ্য তুলে ধরে কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশে বর্তমানে ২৪ লাখ ৩২ হাজার টন সারের মজুত রয়েছে। এর মধ্যে টিএসপি ৩ লাখ ৪৯ হাজার টন, ডিএপি ৫ লাখ ৯৭ হাজার টন, এমওপি ৭ লাখ ১৫ হাজার টন ও ইউরিয়া সার রয়েছে ৭ লাখ ৭১ হাজার টন। দেশে বছরে ৫০ লাখ টন সারের চাহিদা রয়েছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় সব সারের মজুতই এবার বেশি রয়েছে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, ডিসেম্বর শেষে বোরো মৌসুম শুরু হবে। মূলত এ সময়ে সারের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হয়। এ সময়ে সারের কোনো সংকট হবে না। পাইপলাইনে যা আছে, তাতে কৃষকের কোনো ভোগান্তি হবে না। সার নিয়ে এর আগে রাজনৈতিক অস্থিরতা তৈরি হয়েছে উল্লেখ করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, সারের জন্য কৃষক জীবনও দিয়েছে। সার বেচাকেনায় কৃষক যেন কোনোভাবেই কোনো ধরনের হয়রানির শিকার না হয়, সেদিকে নজর রাখা হচ্ছে। এছাড়া, কৃষকদের সুবিধার জন্য চলতি বছর থেকেই কৃষি যন্ত্রপাতি আমদানিতে ভতুর্কি দেওয়া হচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ধানের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, এ বছর ৬ লাখ টন ধান কেনা হবে সরাসরি চাষির কাছ থেকে, যা বাংলাদেশে অতীতে কোনোদিন হয়নি। গত বোরো মৌসুমে আমরা ৪ লাখ টন ধান কিনেছি, যা কেনার কথা ছিল দেড় লাখ টন। আগামী ২০ তারিখ থেকে আমন ধান কেনা শুরু হবে। আমরা মূলত প্রান্তিক চাষির থেকেই ধান কেনব। লটারি করে তাদের কাছ থেকে ধান কেনা হবে। আমন মৌসুমে যাদের কাছ থেকে ধান কেনা হয়েছে, তাদের কাছ থেকে বোরো মৌসুমে ধান কেনা হবে না। এভাবে আমরা মোটামুটি সব চাষিকে সুযোগটা দিতে চাই।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৮ নভেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন