ঢাকা শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
২৪ °সে


বিশ্বসাহিত্যের আঙিনায় তরুণদের মিলনমেলা

বিশ্বসাহিত্যের আঙিনায় তরুণদের মিলনমেলা

বাংলাদেশের সাহিত্য সম্পর্কে বিদেশিদের আগ্রহ জন্মাতে সময় লাগবে। কারণ, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির সঙ্গে সেই ভাষার প্রতি বিদেশিরা আগ্রহী হয়ে ওঠার সম্পর্ক থাকে। তবে এ ধরনের আয়োজন বাংলাদেশের সাহিত্য সম্পর্কে বিদেশিদের আগ্রহী করে তুলবে। এ উত্সবে বিদেশিরা যত আসেন তার চেয়ে বেশি বাংলাদেশি সাহিত্যিক পাঠকরা আসেন। ফলে এ উত্সব প্রাঙ্গণ হয়ে উঠছে দেশি-বিদেশি লেখক পাঠকদের মিলনমেলা—বলছিলেন কথাসাহিত্যিক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেল সত্যিকার অর্থেই দেশি-বিদেশি পাঠক-লেখকদের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে উত্সব প্রাঙ্গণ। বিভিন্ন বইয়ের স্টলে বর্ধমান হাউজের সামনের খোলা চত্বরে আড্ডায় মুখরিত ঢাকা লিট ফেস্ট। প্রধানত তরুণরাই লিট ফেস্টের প্রাণ। বইয়ের টানে, লেখকের টানে আসছেন তারা। বিশ্বখ্যাত লেখকদের আকর্ষণেও ছুটে এসেছেন অনেকে। সব অধিবেশনেই তারা শুনছেন দেশ-বিদেশের লেখকদের কথা। বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে নানা জনের সঙ্গে মেতে উঠছেন আড্ডায়। ঢাকা লিট ফেস্ট দেশের তরুণদের জন্য সত্যিকার অর্থেই আন্তর্জাতিক মানের সাহিত্যের আঙিনা হয়ে উঠেছে। গত দুই দিনে বিভিন্ন সেশনে দেশি-বিদেশি লেখক, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক ও সমালোচকদের আলোচনায়, আড্ডায় মুখর হয়ে উঠেছিল বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ।

ঢাকা লিট ফেস্টের পরিচালক সাদাফ সায বললেন, বিশ্বসাহিত্যের প্রতি আগ্রহী প্রজন্মের জন্য একটি প্ল্যাটফরম সৃষ্টি করা গেছে। ৯ বছর আগে যখন শুরু হয় তখন মনে সাহস ছিল। আমাদের উদ্দেশ্য নিয়েও অনেকে প্রশ্ন তুলেছিলেন। কিন্তু এর ফলাফল এখন সবার চোখের সামনে।

গতকাল শুক্রবার বাংলা একাডেমির লন চত্বরে আধ্যাত্মিক সুরের মূর্ছনায় শুরু হয় লিট ফেস্টের দ্বিতীয় দিনের কার্যক্রম। সকালে একাডেমির বর্ধমান হাউজের সামনে লন চত্বরে আধ্যাত্মিক সুরের বাণী তুলে ধরেন ধর্মীয় সংগীত দল। তবে, দ্বিতীয় দিনের সকাল ছিল শিশুদের। সকালের সেশনে কসমিক টেন্ট ও নজরুল মঞ্চ জুড়ে ছিল শিশুদের কলতান। কসমিক টেন্টে বিজ্ঞানবাক্সের রাতুল খানের সঙ্গে শিশুরা মেতেছিল বিজ্ঞান নিয়ে মজার সব খেলাতে। ‘ফান উইথ ফিজিকস’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে রাতুল খান সাত থেকে ১০ বছর বয়সি শিশুদের সঙ্গে পদার্থবিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। উপহার হিসেবে বিজ্ঞানসামগ্রী পেয়ে খুশি শিশুরাও। একই সময়ে শিশুদের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন ব্রিটিশ চিত্রকর, অ্যানিমেটর এবং লেখক ক্রুটিস জবলিং। এদিকে, নজরুল মঞ্চে ‘চিলড্রেন’স ওয়ার্ল্ডস ফ্যান্টাসি’ শীর্ষক আয়োজন ছিল ছয় থেকে ১০ বছর বয়সি শিশুদের জন্য। শিশুরা মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে শুনছিল জবিলংয়ের সৃষ্ট বিভিন্ন চরিত্রের গল্প। বিখ্যাত ‘ওয়ারওয়ার্ল্ড’ ও ‘ম্যাক্স হেলসিং, মনস্টার হান্টার’ সিরিজ নিয়ে শিশুদের সঙ্গে কথা বলেন জবলিং।

এদিকে, গতকাল উত্সবে দেখানো হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র ‘হাসিনা : এ ডটারস টেল’। পরে এ প্রামাণ্যচিত্রের ওপরে আলোচনায় অংশ নেন বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ কন্যা শেখ রেহানার ছেলে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক, পিপলু আর খান এবং দেবজ্যোতি মিশ্র। এর আগে আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে ছিল ‘শেখ মুজিব : আইকন অব পোস্টকলোনিয়াল লিবারেশন’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনায় অংশ নেন অধ্যাপক ও গবেষক আফসান চৌধুরী, ভারতীয় সাংবাদিক শশী থারুর, কবি কামাল চৌধুরী। এছাড়াও অনুষ্ঠিত হয় মনিকা আলীর সাড়া জাগানো বই ব্রিক লেন নিয়ে আলোচনা। বিয়ন্ড ব্রিক লেন শীর্ষক এ আলোচনায় সাদাফ সাযের সঙ্গে যুক্ত হন বইটির লেখক মনিকা আলী।

কংগ্রেস নেতা শশী থারুর ও স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর বৈঠক

ভারতীয় রাজনীতিক ও কংগ্রেস নেতা, লেখক শশী থারুরের সঙ্গে দেখা করতে ঢাকা লিট ফেস্টে আসেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্য বিশারদ মিলনায়তনের গ্রিন রুমে শশী থারুর ও স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বৈঠক করেন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ।

প্রতিটি নারীই সুপার গার্ল :শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি

প্রতিটি নারীই এক একজন সুপার গার্ল। অন্তত অন্য সবকিছু বাদ দিয়ে শুধু তার সমাজে চলার বিষয়টিও যদি ধরা হয়, তবে একজন নারী যত বাধা অতিক্রম করে, তাতেই সেই নারীকে সুপার গার্ল হিসেবে আখ্যায়িত করা যায়। গতকাল শুক্রবার ঢাকা লিট ফেস্টে বাংলা একাডেমির নজরুল মঞ্চে ‘হার স্টোরী’ ফাউন্ডেশনের এক আয়োজনে এ কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, আমাদের জীবনে নারীর গল্প বাদ দিলে গল্প খুবই সামান্য। গল্পে নারীকে তুলে ধরলে তা পরিপূর্ণতা পায়। তাই নারীদের পুরুষের পাশাপাশি সমান জায়গায় তুলে আনতে হবে। আয়োজনে হার স্টোরী ফাউন্ডেশনের পক্ষে বিভিন্ন পরিবেশনা করেন জাগো ফাউন্ডেশন স্কুলের শিক্ষার্থীরা। এ সময় হার স্টোরী ফাউন্ডেশনের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ফাউন্ডেশনের জেরিন মাহমুদ হোসাইন, ক্যাটরিনা ডন, সাদিয়া আফরিন, নাইলা আজাদ, আরিফা আমরিন এবং জেনিফার রীড।

শেখ মুজিব :আইকন অব পোস্টকলোনিয়াল লিবারেশন

ঢাকা লিট ফেস্টে ‘শেখ মুজিব :আইকন অব পোস্টকলোনিয়াল লিবারেশন’ শীর্ষক আলোচনায় গবেষক, অধ্যাপক আফসান চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু নিজে মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে এসেছিলেন। এজন্য তিনি সাধারণ মধ্যবিত্তদের বিষয়গুলো ভালোভাবে বুঝতেন। একই সঙ্গে কোনো বিষয়কে কীভাবে উপস্থাপন করতে হবে, সেই ধারণাটি তিনি খুব ভালোভাবে বুঝতেন, যা অন্য অনেক নেতা সেভাবে বুঝতেন না। এই জায়গা থেকে মধ্যবিত্ত এবং নিম্নবিত্তদের একটি বড়ো সাপোর্ট পেয়েছেন বঙ্গবন্ধু এবং সেটিকে তিনি সফলভাবে ব্যবহার করেছেন। আলোচনায় আরো অংশ নেন ভারতীয় কংগ্রেস নেতা শশী থারুর এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল চৌধুরী।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৬ নভেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন