ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ৩০ কার্তিক ১৪২৬
২৪ °সে


শুদ্ধি অভিযানে কাউকে ছাড় না দেওয়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নের আহ্বান টিআইবির

শুদ্ধি অভিযানে কাউকে  ছাড় না দেওয়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নের আহ্বান  টিআইবির

দুর্নীতির বিরুদ্ধে চলমান ‘শুদ্ধি অভিযানে’ প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ‘কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না’ এই ঘোষণার কার্যকর বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) বার্ষিক সভায় অংশগ্রহণকারী সদস্যরা। বৃহস্পতিবার বিকেলে টিআইবির ধানমন্ডিস্থ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় ন্যায়ভিত্তিক, সুশাসিত ও গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে নিজ নিজ অবস্থান থেকে একক ও সমষ্টিগতভাবে দুর্নীতিকে প্রতিরোধের সম্মিলিত প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করা হয়। গতকাল টিআইবি’র এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামানের সঞ্চালনায় সভায় সভাপতিত্ব করেন টিআইবি এর সাধারণ পর্ষদে সদস্যদের নির্বাচিত প্রতিনিধি কাজী মো. মোরতুজা আলী। টিআইবি এর সাথে স্বেচ্ছাসেবার ভিত্তিতে দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলনে সম্পৃক্ত বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ৫১ জন সদস্য সভায় অংশ নেন। তারা অনিয়ম, দুর্নীতি ও সহিংসতা মুক্ত শিক্ষাঙ্গন, সকল নাগরিকের জন্য মানবাধিকার নিশ্চিত, সড়ক পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় ‘সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮’ এর কঠোর বাস্তবায়ন এবং আর্থিক খাতে আস্থা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে স্বাধীন কমিশন গঠনের মাধ্যমে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণের দাবি জানান। একইসাথে সভার ঘোষণাপত্রে দুর্নীতি দমন ও প্রতিরোধে কার্যকর দুর্নীতি দমন কমিশন, জাতীয় উন্নয়নে স্বচ্ছতা ও সকলের অংশগ্রহণ, অবাধ তথ্য প্রবাহ ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা এবং দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলনে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল পর্যায়ের অংশগ্রহণকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের তাগিদ দেওয়া হয়। দেশের বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে একের পর এক রক্তক্ষয়ী ছাত্র সহিংসতা, ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়ম, দলীয় রাজনৈতিক প্রভাবদুষ্ট বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের পৃষ্ঠপোষকতা এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কার্যত নিস্ক্রিয়তা তথা শিক্ষাঙ্গনে শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সরকারের ব্যর্থতায় সদস্যরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

একইসাথে, সরকারের চলমান দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে ক্ষমতাসীন ছাত্র ও যুবনেতৃবৃন্দের একাংশের সাথে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীর অবাধ দুর্নীতির ভয়াবহ চিত্রকে মূলত রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় ও রাজনৈতিক পরিচয়ে দুর্নীতির গভীরতর ও ব্যাপকতর বিস্তৃতির পরিচায়ক হিসেবে অবিহিত করেন সদস্যরা।

সমাজের সকল পর্যায়ে দুর্নীতির প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ প্রতিরোধে ‘কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না’ মর্মে প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যের সাথে সদস্যবৃন্দ একাত্মতা ঘোষণা করে অনিয়মে জড়িত সকলকে পরিচয় ও অবস্থান নির্বিশেষে জবাবদিহিতার আওতায় আনা অপরিহার্য বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে দুর্নীতিবিরোধী সামাজিক আন্দোলনের কার্যক্রমে জনসম্পৃক্ততা বৃদ্ধিতে আগ্রহী বিভিন্ন পেশাজীবী ও সাধারণ নাগরিককে টিআইবি সদস্যভুক্ত করে আসছে। পাশাপশি সারাদেশে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) ও ইযুথ এনগেজমেন্ট অ্যান্ড সাপোর্ট (ইয়েস) প্ল্যাটফরমে স্বেচ্ছাসেবার ভিত্তিতে যুক্ত রয়েছেন প্রায় সাত হাজার নাগরিক- যার সিংহভাগ তরুণ প্রজন্মের সদস্য।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৪ নভেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন