ঢাকা শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
১৮ °সে

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কৃষি খাতে আগামীতে বেশি বেশি বরাদ্দ আসবে ------আনোয়ার হোসেন মঞ্জু

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের কৃষি খাতে আগামীতে বেশি বেশি বরাদ্দ আসবে ------আনোয়ার হোসেন মঞ্জু
বরিশাল : পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায় গতকাল মঙ্গলবার কৃষকদের কাছ থেকে আমন ধান সংগ্রহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টি-জেপির চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি। এছাড়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে দুঃস্থ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে অসহায় দরিদ্র শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণকালে তিনি উপস্থিত ছিলেন —ইত্তেফাক

জাতীয় পার্টি-জেপির চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি বলেছেন, ‘যে সরকারই ক্ষমতায় থাকুক না কেন, আগামীতে আমাদের অবহেলিত দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে কৃষি খাতে বেশি বেশি বরাদ্দ আসবে। কারণ উত্তরাঞ্চলসহ দেশের অন্যান্য এলাকায় কৃষিকাজের জন্য এখন আর প্রয়োজনীয় জমি অবশিষ্ট নাই। এই এলাকার তরুণেরা শিক্ষিত হয়ে উঠছে বলে তারা যান্ত্রিক পদ্ধতিতে ফসল আবাদে সক্ষম হয়ে উঠছে। সরকার সাধারণ মানুষের কল্যাণের কথা চিন্তা করে বলেই সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয়ের উদ্যোগ নিয়েছে।’

তিনি গতকাল মঙ্গলবার বিকালে পিরোজপুর জেলার ভাণ্ডারিয়া উপজেলার ইকড়ি ইউনিয়নে কৃষকদের কাছ থেকে অভ্যন্তরীণ আমন ধান সংগ্রহ কর্মসূচির উদ্বোধন উপলক্ষ্যে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আরো বলেন, ‘আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দক্ষিণাঞ্চলের মানুুষ হওয়ায় এই অবহেলিত এলাকায় সব ক্ষেত্রে আমরা অনেক সুযোগ পাচ্ছি, যা ব্যবহার করে ভাণ্ডারিয়াসহ এই এলাকায় রাস্তা-ঘাট, পুল-কালভার্ট, স্কুল-কলেজ, বিদ্যুত্, জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলাসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে নানা অবকাঠামো নির্মাণে আল্লাহর রহমতে সক্ষম হচ্ছি। আমরা ঐক্যবদ্ধ থাকলে, পরিশ্রম করলে এবং আল্লাহর ওপর ইমান মজবুত থাকলে এই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে তথা আগামীতে বাড়বে। আমাদের স্বাধীনতার সময় দেশের মানুষ ছিল সাড়ে ৭ কোটি, যা বর্তমানে ১৭ কোটি। দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। তবে ভাণ্ডারিয়ায় খাদ্য উত্পাদনে কিছুটা ঘাটতি থাকলেও এখন শাক-সবজি, ফল-ফলাদিসহ নতুন নতুন খাদ্যশস্য উত্পাদনে আমাদের কৃষকেরা অনেক বেশি সফলতা দেখাচ্ছেন। আমাদের ছেলেরা লেখাপড়া করে এগিয়ে যাওয়ার নিদর্শন হচ্ছে কৃষির এই অগ্রগতি। ভাণ্ডারিয়াকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে হবে, যা আজ থেকে ৩০-৩২ বছর আগে ছিল না। আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে পরিশ্রম করে এই সফলতা অর্জন করছি। আল্লাহর হুকুমে মানুষের কল্যাণে একাগ্রচিত্তে কাজ করে যাচ্ছি বলে আপনারা আমাদের সঙ্গে রয়েছেন।’

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু আরো বলেন, ‘এই অঞ্চলের মানুষকে যেমন তাদের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য ৩৪ বছর ধরে সত্ পরামর্শ ও সহযোগিতা দিয়ে আসছি, তেমনি আল্লাহর প্রতি আনুগত্য ও ভক্তি বজায় রাখতে নানা প্রয়াসও নিয়েছি। বিভিন্ন রাস্তার সংযোগস্থলে ইসলামি স্থাপত্যকলা অনুযায়ী কলেমা ও বিসমিল্লাহ বাণী খচিত অবকাঠামো তৈরিসহ মসজিদ-মাদ্রাসা নির্মাণ করে যেমন মুসলমানদের ইমানি শিক্ষায় উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করছি, তেমনি মন্দির নির্মাণেও সহযোগিতা করে হিন্দুদের ধর্ম পালনে সহযোগিতা করছি।’

তিনি বলেন, দেশব্যাপী কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয় করার সরকারি উদ্যোগ অত্যন্ত কল্যাণকর। সরকার সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে বলে এই প্রচেষ্টা, যা মানুষের ভালো করার, কল্যাণ করার নির্দশন। সরকারের এই প্রচেষ্টা সফল করতে হবে। কৃষকেরা সরাসরি সরকারি ক্রয়কেন্দ্রে যাতে ধান বিক্রি করতে পারেন, তা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে মধ্যস্বত্বভোগীদের প্রভাব যাতে সরকারের এই শুভ উদ্যোগকে ব্যাহত করতে না পারে, সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে।

অভ্যন্তরীণ আমন ধান সংগ্রহ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইকড়ি ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির। এখানে উপস্থিত ছিলেন ভাণ্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুুল আলম, উপজেলা কৃষি অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুন, উপজেলা খাদ্যনিয়ন্ত্রক এস এম মোহেবুল্লাহ প্রমুখ।

সন্ধ্যার পর আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপি তেলিখালী ইউনিয়নের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে উপস্থিত এলাকাবাসীর উদ্দেশে বলেন, ‘আল্লাহর রহমতে ভাণ্ডারিয়ার নদীভাঙন রোধে ৬০০ কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ এগিয়ে চলেছে। এলাকার মানুষ ঐক্যবদ্ধ রয়েছে বলে আমরা এ ধরনের বড়ো বড়ো সাফল্য পাচ্ছি।’ এখানে তেলিখালী ইউনিয়নের অসচ্ছল পরিবারের মধ্যে দুঃস্থ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ করেন ইউপি চেয়ারম্যান মো. শামসুদ্দিন।

আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপির উপস্থিতিতে গতকাল দুপুরে ভাণ্ডারিয়া উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ তহবিল থেকে সাম্প্রতিক ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে উপজেলার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে ঢেউটিন ও অর্থের চেক বিতরণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল আলম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মৃধা, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের মধ্যে নদমূলা-শিয়ালকাঠির শফিকুল কবির বাবুল তালুকদার, ধাওয়ার সিদ্দিকুর রহমান টুলু, ভিটাবাড়িয়ার খান এনামুল করিম পান্না প্রমুখ। এর আগে আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এমপির উপস্থিতিতে ভাণ্ডারিয়া উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে পৌর এলাকার অসচ্ছল পরিবারের মধ্যে দুঃস্থ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ করেন পৌর কাউন্সিলর গোলাম সরওয়ার জোমাদ্দার, ধাওয়া ইউপি চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান টুলু প্রমুখ।

এছাড়া গতকাল ভাণ্ডারিয়া উপজেলার ইকড়ি, গৌরীপুর ও ভিটাবাড়িয়া ইউনিয়নে সুবিধাবঞ্চিত অসচ্ছল পরিবারের মধ্যে দুঃস্থ কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়। এই শীতবস্ত্র বিতরণ করেন দুঃস্থ কল্যাণ সংস্থার উপদেষ্টা এম এ রব্বানী ফিরোজ, কর্মকর্তা কাজী আতাহার আলী, সংসদ সদস্যের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা আতিকুজ্জামান খোকন প্রমুখ।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন