ঢাকা মঙ্গলবার, ২১ মে ২০১৯, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
২৮ °সে


রোড শোতে হামলাকারীরা তৃণমূলের সন্ত্রাসী :মোদি

বিদ্যাসাগরকে মেরে পশ্চিমবঙ্গ দখল হবে না :মমতা
রোড শোতে হামলাকারীরা তৃণমূলের সন্ত্রাসী :মোদি

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের শেষ মুহূর্তে উত্তেজনা ছড়াচ্ছে পশ্চিমবঙ্গে। এই রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের একচ্ছত্র প্রভাবকে চ্যালেঞ্জ করে ২৩টি আসন জয়ের মিশনে নেমেছে কেন্দ্রের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। এই মিশন সফল করতে পশ্চিমবঙ্গ চষে বেড়াচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। কিন্তু এ ক্ষেত্রে একবিন্দুও ছাড় দিতে রাজি নন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। মঙ্গলবার কলকাতায় অমিত শাহের রোড শোকে ঘিরে সহিংসতার পর বিজেপির সঙ্গে তৃণমূলের দ্বন্দ্ব আরো প্রকট হয়েছে। এই উত্তেজনাকর পরিস্থিতির মধ্যেই পশ্চিমবঙ্গে এসে মমতাকে আক্রমণ করলেন প্রধানমন্ত্রী মোদি।

গতকাল বুধবার বসিরহাট আসনের টাকিতে জনসভায় মমতাকে আক্রমণ করে মোদি বলেন, নিজের ছায়াকেই ভয় পাচ্ছেন দিদি। তার পায়ের তলার মাটি সরে যাচ্ছে। দিদি বলেছিলেন, ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে প্রতিশোধ নেবেন। এবার তৃণমূলের সন্ত্রাসীরা অমিত শাহের রোড শোতে হামলা চালিয়েছে। এই দিদিকে কি আপনারা ক্ষমা করতে পারবেন? দেশের বিরুদ্ধে গিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে সুর মেলানো দিদিকে শিক্ষা দেওয়া জরুরি। তিনি ক্ষমতা হারানোর ভয়ে কাঁপছেন। মনে রাখবেন, যে জনতা আপনাকে মাথায় তুলতে পারে, তারাই আপনাকে মাটিতেও নামিয়ে আনতে পারে। দিদি বাংলাকে জরুরি অবস্থার সময়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন। মোদি বলেন, এবারের নির্বাচনে বিজেপি একাই তিনশর বেশি আসন পাবে। এখন পর্যন্ত বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে গেছে। বসিরহাট আসনে বিজেপি প্রার্থী করেছে সায়ন্তন বসুকে। তার প্রতিপক্ষ তৃণমূলের তারকা প্রার্থী নুসরত জাহান।

এদিকে মোদিকে পাল্টা আক্রমণ করে মমতা ব্যানার্জি বলেছেন, বিদ্যাসাগর, রবীন্দ্রনাথকে মেরে পশ্চিমবঙ্গ দখল করতে পারবে না বিজেপি। বিদ্যাসাগরের ওপর হামলার অর্থ হলো পশ্চিমবঙ্গের ওপর হামলা। মমতা বলেন, বিহার, উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থান, বিহার, ঝাড়খণ্ড থেকে লোক এনে তাণ্ডব চালানোর পরিকল্পনা করেছিল বিজেপি। মোদি যতই মিটিং-মিছিল করুক, কিছুই হবে না। যত বেশি মিটিং করবে, তত ভোট কমবে বিজেপির।

অন্যদিকে মঙ্গলবার অমিত শাহের রোড শো চলাকালে বিদ্যাসাগর কলেজে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙচুর হয়। এ ঘটনায় অমিত শাহের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে এবং মোট ৫৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। হামলার ঘটনার প্রেক্ষিতে নয়াদিল্লিতে সাংবাদিক সম্মেলনে অমিত শাহ বলেছেন, কাল সিআরপিএফ না থাকলে আমি বাঁচতাম না। বিজেপি কর্মীরা মূর্তি ভাঙেনি, বরং তৃণমূলই সহানুভূতি কুড়ানোর জন্য বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙেছে। মমতা চাইলে নিরপেক্ষ সংস্থাকে দিয়ে এ ঘটনার তদন্ত করাতে পারেন। প্রচারণায় মমতার ওপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে বিজেপি।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২১ মে, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন