ঢাকা শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ৩ কার্তিক ১৪২৬
২৭ °সে


এরশাদের আসন জাপাকে ছেড়ে দিল আওয়ামী লীগ

রাজুর প্রার্থিতা প্রত্যাহার
এরশাদের আসন জাপাকে  ছেড়ে দিল আওয়ামী লীগ

এইচএম এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া রংপুর-৩ আসনটি জাতীয় পার্টিকে (জাপা) ছেড়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগ। জাপা মনোনীত প্রার্থী এরশাদ-রওশনের ছেলে রাহগির আল মাহিরের (সাদ এরশাদ) সমর্থনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রেজাউল করিম রাজু গতকাল সোমবার প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। আগামী ৫ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় এই আসনের উপনির্বাচনে গতকাল প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিনে রাজু নিজেকে ভোটের লড়াই থেকে প্রত্যাহার করে নেন। প্রত্যাহারের পর রংপুরে সংবাদ সম্মেলনে রাজু বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমি নিজেকে বিসর্জন দিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নিলাম।’

রবিবার ঢাকায় এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে জাপা মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেছিলেন, ‘আশা করছি এরশাদের সম্মানে আওয়ামী লীগ জাপাকে আসনটি ছেড়ে দিয়ে নিজেদের প্রার্থীকে প্রত্যাহার করে নেবে।’ এর আগে গত বৃহস্পতিবার সংসদের চতুর্থ অধিবেশনের সমাপনী দিনে রংপুর-৩ আসন নিয়ে সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ ও জাপার চেয়ারম্যান জি এম কাদের। ঐ বৈঠকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও জাপা মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাও উপস্থিত ছিলেন।

দলের স্থানীয় কর্মী-সমর্থকদের বিরোধিতার মধ্যেই ‘নৌকা’র প্রার্থী ও রংপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজু নিজেই গতকাল রিটার্নিং কর্মকর্তা ও রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা সাহতাব উদ্দিনের কাছে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আবেদন জানান। ফলে এ আসনে এখন মহাজোটভুক্ত দলগুলোর মধ্যে শুধু জাপার সাদ এরশাদই প্রার্থী থাকছেন।

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে রাজু রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে যাওয়ার সময় রংপুর শহরের জিরো পয়েন্টে সড়ক অবরোধ করেন আওয়ামী লীগের কয়েক শত নেতাকর্মী। রাজু উপস্থিত হলে তারা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার না করতে তাকে চাপ দেন। পরে তাদের শান্ত করতে দলীয় প্রধান শেখ হাসিনার নির্দেশনার কথা জানান রাজু। তাদের শান্ত করে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের আবেদন জমা দেন তিনি। এসময় তার সঙ্গে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি শাফিউর রহমান শফি ও সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মণ্ডল প্রমুখ। রাজুর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের পর তুষার কান্তি মণ্ডল গণমাধ্যমকে বলেন, ‘গত ৭ সেপ্টেম্বর গণভবনে রংপুর উপনির্বাচনের মনোনয়ন বাছাই বোর্ডের সভায় প্রধানমন্ত্রী দলীয় প্রার্থী হিসেবে রাজুকে মনোনয়ন দেন। সেদিনই প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন—গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বৃহত্ দল হিসেবে আমাদের প্রার্থী দিতে হয়, তাই দিলাম। আবার যেহেতু জাপা আমাদের মহাজোটের অংশ, তাই এই প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে। আমরা জোটগত নির্বাচন করব।’

অধিকার আদায়ে জাপা শ্রমিকদের পাশে থাকবে : জি এম কাদের

জাপা চেয়ারম্যান জি এম কাদের গতকাল রাজধানীর বনানীতে তার কার্যালয়ে জাতীয় শ্রমিক পার্টির নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে বলেছেন, ন্যায্য অধিকার আদায়ে জাপা সবসময় শ্রমিকদের পাশে থাকবে। অধিকার ও দাবি আদায়ে সংগঠনের শক্তি বৃদ্ধির বিকল্প নেই। শ্রমিক পার্টির সভাপতি ও জাপার কেন্দ্রীয় ভাইস-চেয়ারম্যান মোস্তাকুর রহমান মোস্তাক এতে সভাপতিত্ব করেন।

আওয়ামী লীগের সম্মানে কাউন্সিল পেছাচ্ছে জাপা

এদিকে, আওয়ামী লীগের সম্মানে দলের কাউন্সিলের তারিখ পিছিয়ে নিচ্ছে জাপা। দলটির চেয়ারম্যান জি এম কাদের কয়েক দিন আগে জাপার কাউন্সিল আগামী ৩০ নভেম্বরের পরিবর্তে ২১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান। তবে আগামী ২০-২১ ডিসেম্বর কাউন্সিলের তারিখ ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ। জাপার দায়িত্বশীল সূত্র ইত্তেফাককে নিশ্চিত করেছে, আওয়ামী লীগের সম্মেলন থাকায় ২১ ডিসেম্বর আর জাপার সম্মেলন হচ্ছে না। সেক্ষেত্রে জানুয়ারিতে কাউন্সিল অনুষ্ঠানের চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৯ অক্টোবর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন