ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
২১ °সে


ভারত থেকে আসছে ২০ রেল ইঞ্জিন

বাড়ছে না মৈত্রী ও বন্ধন এক্সপ্রেসের ট্রিপ
ভারত থেকে আসছে ২০ রেল ইঞ্জিন

ভারত থেকে আসছে ২০ রেল ইঞ্জিন (লোকোমোটিভ)। যাচাই-বাছাইয়ের জন্য আগামী রবিবার পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধিদল দিল্লি যাচ্ছেন। এ সফরেই সিদ্ধান্ত হবে বন্ধুত্বের নিদর্শন হিসেবে পাওয়া এসব ইঞ্জিন কবে বাংলাদেশে পৌঁছাবে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোফাজ্জল হোসেন। তবে রেল ভবন সূত্র জানিয়েছে, আপাতত বাড়ছে না ঢাকা-কলকাতা রুটে মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেন ও খুলনা-কলকাতা রুটে চলাচলকারী বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেনের ট্রিপ। বর্তমানে ঢাকা-কলকাতা রুটে মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল করে সপ্তাহে চার দিন। খুলনা-কলকাতা রুটে বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল করে সপ্তাহে এক দিন।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বাংলাদেশ রেলওয়ের ৭২ শতাংশ ইঞ্জিনের (লোকোমোটিভ) অর্থনৈতিক আয়ুষ্কাল পেরিয়ে গেছে অনেক আগেই। নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেলেও ৫০ শতাংশ ইঞ্জিনের ওভারহোলিং হয়নি। এছাড়া বেশ কয়েক বছর রেল বহরে যুক্ত হয়নি নতুন কোনো লোকোমোটিভ। যদিও এর মধ্যে যুক্ত হয়েছে ২৭০টি নতুন কোচ। তবে আশার কথা এরই মধ্যে ১২০টি ইঞ্জিন কেনার চুক্তি করেছে রেলওয়ে। তবে এসব ইঞ্জিন রেলের বহরে যুক্ত হতে আরো এক বছর বা তার বেশি সময় লাগতে পারে। এ অবস্থায় অন্তর্বর্তীকালীন সংকট মেটাতে খুব দ্রুত ভারত থেকে আনা হচ্ছে ২০টি লোকোমোটিভ (এর মধ্যে ১০টি বিজি ও ১০টি এমজি )। এগুলো পাওয়া যাবে বন্ধুত্বের নিদর্শন হিসেবে। গত ৬ আগস্ট রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন ভারতের রেলপথ, বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী পিযূষ গোয়েলের আমন্ত্রণে একটি প্রতিনিধিদল নিয়ে ভারত সফর করেন। এ সময় রেলপথমন্ত্রীর সঙ্গে রেল ইঞ্জিনসহ আরো কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা হয় ভারতীয় রেলপথমন্ত্রীর। ভারতীয় রেলপথমন্ত্রী প্রস্তাবে রাজি হন। এ ব্যাপারে সচিব মোফাজ্জল হোসেন বলেন, আগামী রবিবার একজন যুগ্মসচিবের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের টিম দিল্লি যাচ্ছেন। ভারত থেকে আমরা যেসব ইঞ্জিন পাচ্ছি (যে সিরিজের ইঞ্জিন) সেসব মেরামত আমাদের দেশে সম্ভব কি না এসব বিষয় বিস্তারিত আলোচনা হবে। আশা করি এরপরই আমরা নিশ্চিত হতে পারব কবে ইঞ্জিনগুলো (লোকোমোটিভ) দেশে পৌঁছাবে।

সর্বশেষ আজ বৃহস্পতিবার থেকে কুড়িগ্রাম- রংপুর- ঢাকা রুটে কুড়িগ্রাম এক্সপ্রেস নামে মিনি নন স্টপেজ ট্রেন চালু হয়েছে। এছাড়া নতুন কোচ রেলবহরে যুক্ত হলে ঢাকা-সিলেট ও সিলেট-চট্টগ্রাম, ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের পুরোনো ও জরাজীর্ণ কোচ পালটে আধুনিকায়ন করা হবে।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২১ নভেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন