ঢাকা শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
১৮ °সে

আলোকপাত

ক্রিকেটের মতো ফুটবলেও জোর দিতে হবে

ক্রিকেটের মতো ফুটবলেও জোর দিতে হবে

বিশ্বদরবারে বাংলাদেশকে দিনে দিনে নতুন করে পরিচিত করে তুলেছে ক্রিকেট। ছোট্ট ভূখণ্ডের যে বাংলাদেশকে একসময় পৃথিবীর অনেক দেশই চিনত না, আজ সেসব দেশ এক নামেই বাংলাদেশকে চেনে। বাংলাদেশ ১৯৭৭ সালে আইসিসির সদস্যপদ লাভ করে। পরবর্তী সময়ে ১৯৭৯ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আইসিসি ট্রফিতে অংশগ্রহণ করার মাধ্যমে বিশ্ব ক্রিকেটে আত্মপ্রকাশ করে। ১৯৯৭ সালে আইসিসি ট্রফি জেতার পরই ১৯৯৯-এর বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পায়। ১৯৯৯ সালে সপ্তম বিশ্বকাপের আসরে প্রথম অংশগ্রহণ করেই আগেরবারের বিশ্ব ক্রিকেটের প্রভাবশালী, এশিয়ার ক্রিকেট পরাশক্তি সাবেক চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তান ও স্কটল্যান্ডকে হারিয়ে বিশ্বে হইচই ফেলে দেয়। বাংলাদেশ ২০০০ সালে টেস্ট খেলার যোগ্যতা অর্জন করে। ইতিমধ্যে হোম সিরিজে নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, জিম্বাবুয়েকে হোয়াইট ওয়াশ করেছে। এরপর থেকেই মোটামুটি ঘরের মাঠে জেতাটা হয়ে ওঠে হরহামেশা ব্যাপার। ২০১৮ সালে এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলে ভারতের সঙ্গে রানার্সআপ হয়েছে। সব কটি বিশ্বকাপেই বাংলাদেশ খেলে যাচ্ছে এবং কমবেশি বড়ো দলগুলোকেও হারিয়ে দিচ্ছে। তবে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে বাংলাদেশের অর্জন কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত, যা আমাদের জন্য কম অর্জন নয়! অদূর ভবিষ্যতে ফাইনালে বাংলাদেশ যে খেলবে না, তা-ও কিন্তু নয়। হয়তো ক্রিকেটে এগিয়ে যাওয়ার এই ধারাবাহিকতা বজায় থাকলে খুব তাড়াতাড়িই আমরা বিশ্বকাপও জয় করে ফেলব। এছাড়া বিপিএল, আইপিএল, সিপিএলের মতো প্রিমিয়ার লিগগুলোতেও টাইগাররা সুযোগ পাচ্ছে। ক্রিকেট বিশ্বে যেসব দেশ বাংলাদেশকে অবহেলা করত, যে কোনো ম্যাচ আমাদের সঙ্গে খেলতে চাইত না, তাদের কাছেই বাংলাদেশের টাইগাররা এখন আতঙ্কের এক নতুন নাম। যে কোনো দেশের বিরুদ্ধেই তারা তুরুপের তাস হয়ে ওঠার সক্ষমতা রাখে।

তবে ক্রিকেটে এত অর্জন আর সুনাম থাকলেও ফুটবলে নেই তেমন কোনো উল্লেখযোগ্য অর্জন। দ্য বেঙ্গল টাইগার খ্যাত বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠা লাভ করে এবং ১৯৭৪ সালে ফিফার সদস্যপদ লাভ করে। ঢাকায় আবাহনী, মোহামেডানের মতো গড়ে ওঠে বেশ কিছু ক্লাব এবং বিভিন্ন লিগে নিয়মিতই খেলা চলত। সব সময় কানায় কানায় স্টেডিয়াম দর্শকে পূর্ণ থাকত। তবে দিন যতই যাচ্ছে, বাংলাদেশের ফুটবল ততই জৌলুশ হারাচ্ছে। ফুটবল শ্রেষ্ঠত্বের বড়ো আসর ফিফা বিশ্বকাপের মূল পর্বে খেলার যোগ্যতা আজও অর্জন করতে পারেনি বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের একসময়ের ফুটবল আর ক্রিকেটের গ্রাফ যদি পাশাপাশি তুলনা করা যায়, তখন দেখা যাবে ফুটবল যখন মহীরুহ, ক্রিকেট তখন নিতান্তই চারা গাছ। সেই ফুটবলই এখন বনসাই, যার বিপরীতে ক্রিকেট সুনামের সঙ্গে আকাশপানে ধাবিত হচ্ছে তরতর করে। কিন্তু ফুটবলের কেন এই দুর্দশা, কেন এই অধঃপতন?

নতুন নতুন প্রতিভাবান ফুটবলারদের পর্যাপ্ত কোচিং, খাদ্যাভ্যাস, সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি ইত্যাদির মাধ্যমে বয়সভিত্তিক ফুটবল টুর্নামেন্টকে বেগবান করতে ক্রিকেটের মতোই অর্থ ব্যয় করতে হবে। সরকারের ক্রীড়া মন্ত্রণালয় এখনই কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে দিনে দিনে দেশের ফুটবলের চেহারা রুগ্ণ থেকে রুগ্ণই হবে। তবে আশার কথা হচ্ছে, ইতিমধ্যে ঘরোয়া লিগ ও যুব ফুটবল উন্নয়নে ভিশন এশিয়া প্রকল্পের অধীনে ফুটবলের মানোন্নয়নে বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।

n লেখক :প্রকৌশলী

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন