ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৭ ফাল্গুন ১৪২৬
২৬ °সে

বাণিজ্যযুদ্ধে বাংলাদেশ

বাণিজ্যযুদ্ধে বাংলাদেশ

আবুল হাসান জিহাদ

উইকিপিডিয়াতে পাওয়া তথ্য অনুসারে বাণিজ্যযুদ্ধ হলো এক ধরনের অর্থনৈতিক সংঘাত যা চরম সংরক্ষণবাদ নীতির ফলে এক দেশ প্রতিপক্ষ দেশের শুল্ক বৃদ্ধির প্রতিশোধ হিসেবে ঐ দেশের আমদানিকৃত পণ্যে নতুন করে শুল্ক আরোপ, বিদ্যমান শুল্ক বৃদ্ধি বা অন্য কোনোভাবে বাণিজ্য বাধার সৃষ্টি করে। বর্ধমান সুরক্ষার ফলে উভয় দেশের উত্পাদিত পণ্য অনেকটা নিজেদের অভ্যন্তরীণ চাহিদা অনুযায়ী তৈরি হয়। বৈশ্বিক অর্থনীতিতে বাণিজ্যযুদ্ধ দুই দেশের ভোক্তা ও ব্যবসায়ীদের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে এবং তা অর্থনীতির অন্য ক্ষেত্রেও ছড়িয়ে পড়তে পারে।

আন্তর্জাতিক বাণিজ্যকে সীমিত করতে সরকারের সংরক্ষণবাদ নীতির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলো বাণিজ্যযুদ্ধ। সরকার সাধারণত অভ্যন্তরীণ ব্যবসাবাণিজ্য ও শিল্পকে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের প্রতিযোগিতা থেকে সুরক্ষা দিতে সংরক্ষণবাদ নীতি গ্রহণ করে থাকে। আর এই সংরক্ষণবাদ নীতির ফলেই বাণিজ্যযুদ্ধ হয়ে থাকে।

সম্প্রতি শুরু হয়েছে বিশ্বের ইতিহাসের বৃহত্তম বাণিজ্যযুদ্ধ যা চলছে দুই অর্থনৈতিক পরাশক্তি চীন এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পই শুরু করেছেন দুই দেশের মধ্যে এই ভয়ংকর নীরব যুদ্ধ।

বাণিজ্যযুদ্ধ্যের প্রভাব সারা বিশ্বেই খুব ভালোভাবেই জানান দিতে শুরু করেছে এর মধ্যে এবং এই নীরব যুদ্ধ যদি দীর্ঘকাল স্থায়ী হতে থাকে তাহলে বিশ্ববাণিজ্যে মহামন্দা দেখা দিবে তা আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশ্বের এই বৃহত্ অর্থনীতির দেশগুলোর মধ্যে সম্প্রতি বাণিজ্যযুদ্ধ চলার কারণে বাংলাদেশের মতো ক্ষুদ্র অর্থনৈতিক দেশগুলোতে এখন না হোক কিন্তু দীর্ঘকাল পরে হলেও তার খারাপ প্রভাব খুব ভালোভাবে দেখা দিবে। শোনা যাচ্ছে যে বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির হার এ বছরের মধ্যেই কমে যেতে পারে এবং যার ফলে কর্মসংস্থানের ওপর এর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে।

আগে চীন আমাদের দেশ থেকে বিপুল পরিমাণে চামড়া ক্রয় করে তা দিয়ে পণ্য তৈরি করে যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি করতো কিন্তু বাণিজ্যযুদ্ধের ফলে আমেরিকা চীনের পণ্যে অতিরিক্ত ২৫ শতাংশ শুল্ক আরোপ করেছে এবং এর ফল ভুগতে হচ্ছে আমাদের দেশের চামড়া ব্যবসায়ীদের। দেখা যাচ্ছে একটি উপকরণ আরেকটির সঙ্গে সংযুক্ত থাকায় চক্রাবর্তের মতো প্রভাবিত হচ্ছে, স্বল্প মেয়াদে এই কয়টি খাতে প্রভাব পড়লেও এবং তা দীর্ঘকাল স্থায়ী হলে দেশের অর্থনীতিতে অনেক বড়োসড়ো ধাক্কা আসতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে যদি বাংলাদেশ পূর্বপ্রস্তুতি নিয়ে সুযোগ বুঝে সম্ভাবনাময় বাজার ধরতে পারে তাহলে দেশ বাণিজ্যযুদ্ধের সুবিধা নিয়ে অনেক খাতে দীর্ঘমেয়াদেও লাভবান হতে পারবে। এখন শুধু দেখার পালা কোথাকার জল কোথায় গিয়ে গড়ায়, তবে এই বাণিজ্যযুদ্ধ যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বন্ধ হলেই দেশ এবং বিশ্ববাণিজ্যের জন্যে মঙ্গলজনক।

n লেখক : শিক্ষার্থী, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন