ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
২৭ °সে

খুলনায় বিক্রি হচ্ছে ক্ষতিকর কার্বাইড দিয়ে পাকানো আম

খুলনায় বিক্রি হচ্ছে ক্ষতিকর  কার্বাইড দিয়ে পাকানো আম

হুমকির মুখে জনস্বাস্থ্য

খুলনা অফিস

খুলনায় ফলের দোকানগুলোতে অবাধে বিক্রি হচ্ছে কৃত্রিমভাবে পাকানো আম। দাম বেশি পেতে মৌসুম শুরুর আগেই ব্যবসায়ীরা বিক্রি শুরু করেছে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মেশানো এসব আম। সোনালি রং দেখে পাকা মনে হলেও বিভিন্ন ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মিশিয়ে কাঁচা আম পাকিয়ে বাজারজাত করা হচ্ছে। কিছু কিছু অসাধু ফল ব্যবসায়ী সাতক্ষীরাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে নানা জাতের কাঁচা আম এনে তাতে রাসায়নিক দ্রব্য মিশিয়ে কাঁচা-পাকা আমের মতো রং করে তা বাজারে বিক্রি করছেন। ব্যবসায়ীরা জানান, মৌসুম শুরুর আগে আমের চাহিদা বেশি থাকে, সরবরাহ কম থাকে। ফলে দাম বেশি পাওয়া যায়। এজন্য কাঁচা আম নানাভাবে পাকিয়ে বিক্রি করা হয়।

মহানগরীর ডাকবাংলো মোড়, পিকচার প্যালেস মোড়ের আক্তার চেম্বারের সামনে, শান্তিধাম মোড়, ময়লাপোতা মোড়, বড়ো বাজার, সন্ধ্যা বাজার, শেখপাড়া কাঁচা বাজার, গল্লামারী মোড়, বানরগাতী বাজার, দৌলতপুর কাঁচা বাজার, ফুলবাড়িগেটসহ নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ফলের দোকানে কার্বাইড দিয়ে পাকানো আম বিক্রি হচ্ছে। আবার ভ্যানে করে বিভিন্ন বাজারের সামনে ও মহল্লার সড়কেও বিক্রি হচ্ছে কৃত্রিমভাবে পাকানো আম। প্রশাসনের নাকের ডগায় জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর কার্বাইড দিয়ে পাকানো আম বিক্রি হলেও দেখার কেউ নেই। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, অসময়ে রাসায়নিক দ্রব্য মেশানো এসব আম খেয়ে মানুষের শরীরে দীর্ঘমেয়াদি প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হতে পারে।

খুলনা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. আব্দুল আহাদ বলেন, কার্বাইডসহ ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মেশানো ফল খাওয়া মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তবে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মেশানো ফল খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই এর প্রতিক্রিয়া বোঝা যায় না। প্রতিক্রিয়া হয় ধীরে ধীরে। এতে মানুষের লিভার, কিডনি, পাকস্থলি, ব্রেইন নষ্ট হয়। হাড়েরও ক্ষয় হয়। এমনকি এটা ক্যানসারের কারণ হতে পারে। এ ব্যাপারে খুলনার ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. ইব্রাহীম হোসেন বলেন, ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মেশানোর অভিযোগ পেলে আমরা সেখানে অভিযান চালাই। তবে, এখনো আমরা সে ধরনের কোনো অভিযোগ পাইনি।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
০৪ জুন, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন