ঢাকা বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১ কার্তিক ১৪২৬
২৭ °সে


‘দায়বদ্ধ লেখকে পরিণত হয়েছেন শেখ হাসিনা’

বাংলা একাডেমিতে বইয়ের প্রদর্শনী শুরু
‘দায়বদ্ধ লেখকে পরিণত  হয়েছেন শেখ হাসিনা’

শেখ হাসিনার রচনায় বাংলাদেশের মানুষের দারিদ্র্য দূরীকরণ, শিক্ষাবিস্তার এবং গণতন্ত্রের প্রসার—এই তিনটি বিষয় মূল প্রতিপাদ্য হিসেবে ধরা দেয়। তার মানবিক অঙ্গীকার, উপলব্ধির সততা আর প্রকাশভঙ্গির সারল্য একজন সফল রাজনৈতিক নেতা ও রাষ্ট্রনায়কের পাশাপাশি তাকে পরিণত করেছে একজন দায়বদ্ধ লেখকে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩তম জন্মদিন উদ্যাপন উপলক্ষ্যে বাংলা একাডেমি আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। গতকাল বুধবার একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে ‘লেখক শেখ হাসিনা’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান, শেখ হাসিনাকে নিবেদিত স্বরচিত কবিতাপাঠ, আবৃত্তি ও সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেইসঙ্গে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে শেখ হাসিনা রচিত ও সম্পাদিত গ্রন্থের সপ্তাহব্যাপী প্রদর্শনীরও আয়োজন করা হয়েছে। অতিথিরা সবাই মিলে বই প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন ।

‘লেখক শেখ হাসিনা’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কবি কামাল চৌধুরী। প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, বিশেষ অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি সচিব মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল। সভাপতিত্ব করেন বাংলা একাডেমির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। স্বাগত ভাষণ প্রদান করেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী।

জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান বলেন, ‘ত্রিশ বছর আগে শেখ হাসিনার প্রথম গ্রন্থ ওরা টোকাই কেন-এর ভূমিকা লিখেছিলাম আমি। তখন ভাবিনি রাজনীতির প্রবল দাবি মিটিয়ে তিনি লেখালেখি অব্যাহত রাখতে পারবেন। কিন্তু আমাদের বিস্মিত করে দিয়ে রাজনীতির পাশাপাশি লেখালেখিতেও শেখ হাসিনা সমান সক্রিয়তার পরিচয় দিয়ে চলেছেন।’

কে এম খালিদ এমপি বলেন, এদেশের সাংস্কৃতিক জাগরণেও শেখ হাসিনা ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করে চলেছেন। কবি কামাল চৌধুরী বলেন, শেখ হাসিনার লেখালেখিকে মোটা দাগে দুই ভাগে বিভক্ত করা যায়। একটি আত্মজৈবনিক স্মৃতিকথা, অন্য অংশে তার রাজনৈতিক সামাজিক অর্থনৈতিক চিন্তা ও উন্নয়ন দর্শন প্রতিফলিত।

হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, ১৯৮৮ সালে প্রকাশিত হয়েছিল শেখ হাসিনার প্রথম বই। ২০১৮তে তার বই প্রকাশের ত্রিশ বছর পূর্ণ হলো। আজকের এই আলোচনা সে অর্থে শেখ হাসিনার লেখকজীবনের তিন দশক পূর্তিরও আনন্দ-উদ্যাপন।

বাংলাদেশ ও ভারতের শিল্পীদের যৌথ চিত্রপ্রদর্শনী শুরু :বাংলাদেশ ও ভারতের ২০ শিল্পীর যৌথ চিত্রকর্ম প্রদর্শনী ‘কোলাজ’ শুরু হয়েছে। গতকাল বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের জয়নুল গ্যালারিতে এই প্রদর্শনী শুরু হয়েছে। প্রদর্শনীর উদ্বোধনীতে উপস্থিত ছিলেন চিত্রশিল্পী সমরজিত্ রায় চৌধুরী, চিত্রশিল্পী হামিদুজ্জামান খান, চারুকলা অনুষদের ডিন নিসার হোসেন প্রমুখ।

প্রদর্শনীতে অংশ নেওয়া শিল্পীরা হলেন ভারত থেকে রূপালী রায়, প্রভাত চন্দ্র সেন, অঞ্জনসেন গুপ্ত, সন্ত সরকার, সোমা মাঝি, তন্ময় বিশ্বাস, প্রত্যূষা মুখার্জি, সন্দীপ ভট্টাচার্য, পপী ব্যানার্জী ও উমা বর্ধন। দেশের শিল্পীরা হলেন আফরোজা খন্দকার, লায়লা আঞ্জুমান আরা, কমর মুস্তারী শাপলা, সুজন দে, প্রহলাদ কর্মকার, ঊর্মিলা দাস, আহসান আহমেদ, শর্মিলা কাদের, রেজওয়ান পিলো, শর্বরী রায় চৌধুরী ও জি এম জোয়ারদার।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১৬ অক্টোবর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন