শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নারী-শিশু নির্যাতনকারীকে পরাস্ত করা হবে :নাসিম

১৪ দলের সঙ্গে পেশাজীবী নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়

প্রকাশ : ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  ইত্তেফাক রিপোর্ট

আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সমন্বয়ক ও খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ নাসিম এমপি বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জঙ্গি দমন হয়েছে। বিএনপি-জামায়াত সৃষ্ট অন্ধকারের বাংলাদেশ এখন আলোকিত। স্বাস্থ্য, শিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন, অবকাঠামো উন্নয়নসহ সর্বক্ষেত্রে দেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বিশ্ব বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করছে। তাহলে কেন একটি পাশবিক শক্তিকে দমন করতে পারব না। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নারী-শিশু নির্যাতনকারী দানবীয় পশু শক্তিকে পরাস্ত করা হবে।

গতকাল বুধবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৪ দলের সঙ্গে বিভিন্ন পেশাজীবী নেতৃত্বের মতবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। ‘শেখ হাসিনার নির্দেশ, নারী ও শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও বাংলাদেশ’ এই স্লোগানে আগামী ১ মার্চ বিকাল ৩টায় ঐতিহাসিক সোহ্রাওয়ার্দী উদ্যানের শিখা চিরন্তনে ১৪ দলের নারী-শিশু নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ এবং আগামী ১৭ মার্চ সন্ধ্যা ৬টায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউয়ে ক্ষমতাসীন জোটের মোমবাতি প্রজ্বালন কর্মসূচি সফল করতে এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে আগামী ১ মার্চ স্বাধীনতার স্মৃতি বিজড়িত ‘শিখা চিরন্তন’ থেকে সামাজিক আন্দোলন শুরু করবে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দল। ঐ দিন সেখানে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে একত্রিত করে শপথ নেওয়া হবে। অঙ্গীকার করব, এই স্বাধীন বাংলাদেশে একটাও নারী নির্যাতন আমরা হতে দেব না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তাদের বিচার করা হবে। চরম দণ্ড কার্যকর করা হবে। একই সঙ্গে শিখা চিরন্তনে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি অঙ্গিকার করবে, এদেশে অন্ধকার শক্তিকে আর ক্ষমতায় আসতে দেব না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে থাকবে আলোকিত বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত অতীতেও চক্রান্ত করেছে, ভবিষ্যতেও করবে। তবে অতীতের মতো ভবিষ্যতেও তাদের সব চক্রান্ত রুখে দেওয়া হবে। আইনমন্ত্রীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল আছে, এরপরও আমরা চাইব আরো সংক্ষিপ্ত করে, আরো কম সময়ের মধ্যে বিচার করে নারী-শিশু নির্যাতনকারী দানবীয় শক্তিদের চরমভাবে দণ্ড দিতে হবে। এটা দাবি, এটা প্রস্তাব আমাদের। কারণ তারা পশুর চেয়ে অধম। তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের বাংলাদেশে কোনো নারী নির্যাতন দেখতে চাই না। অপরাধী যেই হোক, শেখ হাসিনার কঠিন নেতৃত্বে কোনো অপরাধীকে ছাড় দেওয়া হয় নাই, ছাড় দেওয়া হচ্ছে না।’

কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় অন্যদের মধ্যে সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম, তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান নজিবুল বশর মাইজভান্ডারি, গণতন্ত্রী পার্টির ডা. শাহাদাত হোসেন, জাতীয় পার্টির (জেপি) প্রেসিডিয়াম সদস্য এজাজ আহমেদ মুক্তা, গণআজাদী লীগের সভাপতি এস কে শিকদার, বাসদের রেজাউর রশীদ খান, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহসভাপতি রফিকুল আলম, স্বাধীনতা চিকিত্সক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান, বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক, বাংলাদেশ খ্রিস্টান অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি নির্মল রোজারিও, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দিলীপ রায়, প্রকৌশলী মো. নুরুজ্জামান, সম্মিলিত মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নেতা মো. শাহজাহান আলী, নারী মুক্তি সংসদের সভাপতি হাজেরা সুলতানা, জাতীয় গার্হস্থ্য নারী শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মুর্শিদা আক্তার, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।