ঢাকা শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারি ২০২০, ১১ মাঘ ১৪২৭
২৪ °সে

বাংলাদেশ ২৫৫ মালদ্বীপ ৬

বাংলাদেশ ২৫৫ মালদ্বীপ ৬
রানের পাহাড় গড়ার পথে অপরাজিত সেঞ্চুরি করেন বাংলাদেশের দুই ক্রিকেটার—ফারজানা হক (১১০*) ও নিগার সুলতানা (১১৩*) — সংগৃহীত

অনেকগুলো রেকর্ড হয়ে যেতে পারত। বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটারদের কিছু প্রথম অর্জনও হয়ে যেতে পারত। কিন্তু দক্ষিণ এশিয়ান গেমসে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নারী দলটা ‘জাতীয় দল’ নয় বলে রেকর্ড বা অর্জন, কোনোটাই পরিসংখ্যানের খাতায় লেখা রইবে না।

এই হতাশাকে পাশে রেখেও বলা যায়, মালদ্বীপের বিপক্ষে অসামান্য এক জয় পেয়েছে বাংলাদেশ নারী দল। আগের দিনই এসএ গেমসে নিজেদের ফাইনাল নিশ্চিত করে ফেলা সালমা খাতুনের দল গতকাল ২৪৯ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে মালদ্বীপকে।

নিগার সুলতানা ও ফারজানা হকের ঝড়ো দুই সেঞ্চুরিতে ভর করে আগে ব্যাট করা বাংলাদেশ ২ উইকেটে ২৫৫ রান করে। জবাবে মালদ্বীপ ১২.১ ওভারে ৬ রানে অলআউট হয়ে যায়।

এক গাদা দলকে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি স্ট্যাটাস দিয়ে দেওয়ার ফলে নারী ক্রিকেটে ইদানিং ভয়াবহ সব রেকর্ডের অভাব নেই। এই ফরম্যাটে ৩০৪ রানের জয়ের রেকর্ডও আছে। তবে বাংলাদেশ কখনো ২০০ রানের জয় পায়নি এর আগে। এছাড়া প্রতিপক্ষকে ৬ রানে অলআউট করতে পারাটাও একটা বিরাট ব্যাপার।

আগে ব্যাট করা বাংলাদেশ অবশ্য ১৯ রানেই দুই ওপেনারের উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল। ৫ রান করে শামিমা এবং ৭ রান করে সানজিদা ফিরে আসেন। এখান থেকে অপরাজিত ২৩৬ রানের জুটি করেন নিগার ও ফারজানা।

নিগার ৬৫ বলে ১৪টি চার ও ৩টি ছক্কায় ১১৩ রান করে অপরাজিত থাকেন। অন্যদিকে ফারজানা ৫৩ বলে ২০টি চারে সাজানো ১১০ রান করে অপরাজিত থাকেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও ২৩৬ রানের জুটি নেই এই তৃতীয় উইকেট জুটিতে। বাংলাদেশের এই পর্বতসমান স্কোর পাড়ি দিতে গিয়ে প্রথম ওভারেই ২ উইকেট হারায় মালদ্বীপ। এরপর আর কখনোই দলটি লড়াইও করতে পারেনি। তাদের সাত জন ক্রিকেটার শূন্য রানে ফিরে আসেন। এছাড়া ২ জন করেন ১ রান। সর্বোচ্চ ২ রান করেন ১০ নম্বরে নামা শাম্মা আলী! বাংলাদেশের দুই উদ্বোধনী বোলার রিতু মনি ও সালমা খাতুন ৩টি করে উইকেট নেন। রিতু ৪ ওভারে ১ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন। আর সালমা ৩.১ ওভারে ২ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন। এ ছাড়া একটি করে উইকেট নেন পূজা ও নাহিদা।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
২৪ জানুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন