বেটা ভার্সন
আজকের পত্রিকাই-পেপার ঢাকা বুধবার, ০৫ আগস্ট ২০২০, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭
৩০ °সে

সদকাতুল ফিতর প্রত্যেকের জন্য ওয়াজিব

সদকাতুল ফিতর প্রত্যেকের জন্য ওয়াজিব
সদকাতুল ফিতর প্রত্যেকের জন্য ওয়াজিব।ছবি: সংগৃহীত

মহান আল্লাহর অপার রহমত বরকত মাগফিরাত এবং নাজাতের মাস রমজান দেখতে দেখতেই শেষ হচ্ছে। মাসব্যাপী রোজা পালনের পর ঈদের আনন্দ উৎসবে জেগে উঠবে বিশ্ব মুসলিম উম্মাহ। যদিও এবার বিশ্বময় মহামারি করোনা ভাইরাসের কারণে সেভাবে হয়তো ঈদ উদযাপন করা সম্ভব হবে না যেভাবে মুসলিম বিশ্ব প্রতি বছর উদযাপন করে থাকেন। ইনশাল্লাহ আল্লাহতায়ালা যেভাবে চাইবেন সেভাবেই আমরা ঈদুল ফিতর উদযাপন করব এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি প্রার্থনা করব।

তবে ঈদুল ফিতর উদযাপনের পূর্বে আমাদের সবাইকে অবশ্যই ফিতরানা আদায় করতে হবে। আমাদের ফিতরানা যদি এখনই আদায় করি তাহলে তা ঈদের আগেই সুষ্ঠুভাবে বণ্টনের ক্ষেত্রে সহজতর হবে এবং গরীবদের ঈদ আনন্দে কাজে লাগবে।

কেননা ঈদুল ফিতরের ফিতরানা প্রত্যেক ব্যক্তির ওপর ওয়াজিব এমন কি ঈদের দিন সূর্য উদয়ের পূর্বে ভূমিষ্ঠ শিশুর জন্যও ফিতরানা দেয়া ওয়াজিব। এ ফিতরানা ঈদের নামাজের আগেই আদায় করা উচিত। কেননা গরীব রোজাদার যেন ফিতরানার অর্থ দিয়ে ঈদের খুশিতে অংশগ্রহণ করতে পারে। ফিতরানা দেয়া কারও ওপর কোনো প্রকার অনুগ্রহ নয়। এটা আমাদের জন্য ইবাদতের অংশ। এমনকি যে ব্যক্তিকে ফিতরানার সাহায্য দেয়া হয়, তার নিজের পক্ষ থেকেও ফিতরানা দেয়া কর্তব্য। সকলের অংশগ্রহণের ফলে সদকাতুল ফিতরের ফান্ডটি একটি সাধারণ ফান্ডে পরিণত হয়। যার ফলে এ থেকে যারা উপকৃত হয় তাদের মনে হীনমন্যতার ভাব সৃষ্টি হয় না।

মূল বিষয় হলো ফিতরানা আদায়ের মাধ্যমে আমরা আমাদের গরীব ভাইদের দু:খ-কষ্ট কিছুটা হলেও লাঘব করতে পারি এবং তাদেরকেও ঈদের আনন্দে অন্তর্ভুক্ত করি। যাদেরকে আল্লাহতায়ালা ধন-সম্পদ দিয়েছেন তারা আল্লাহর রাস্তায় এবং গরীব অসহায়দের প্রতি যতই দান করুক না কেন এতে কিন্তু তার ধন-সম্পদে কমতি দেখা দিবে না বরং বৃদ্ধি পেতে থাকবে।

আমরা সবাই জানি, ইসলামে দান-খয়রাতের এবং গরীব অসহায়দের সাহায্যের বিষয়ে বিশেষ গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। আল্লাহর রাস্তায় দানের গুরুত্ব যে কত বেশি তা পবিত্র কোরআন পাঠেই বুঝা যায়। কারণ এ বিষয়টিকে আল্লাহতায়ালা পবিত্র কোরআনের বহু স্থানে উল্লেখ করেছেন। যেমন পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘যারা সচ্ছল ও অসচ্ছল অবস্থায় আল্লাহর পথে খরচ করে, যারা ক্রোধ দমন করে এবং মানুষকে মার্জনা করে। আর আল্লাহ সৎকর্মপরায়ণদের ভালবাসেন’ (সুরা আলে ইমরান, আয়াত: ১৩৪)।

আরো পড়ুন: জাকাত প্রদানে আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভ

এই আয়াতে একটি বিষয় আল্লাহতায়ালা স্পষ্ট করেছেন যে, শুধু সুখে থাকলেই যে আল্লাহর রাস্তায় খরচ করবো তা কিন্তু নয়, সচ্ছল-অসচ্ছল সব অবস্থাতেই আল্লাহর রাস্তায় খরচ করতে হবে। সব অবস্থায় যদি আমরা খরচ করি তাহলে আল্লাহতাআলা আমাদেরকে ভালবাসবেন।

আল্লাহপাক বারংবার আমাদেরকে আদেশ দিচ্ছেন যে, আমরা যেন তার পথে খরচ করি, কিন্তু দেখা যায় আমরা দুনিয়াবি আজে-বাজে কাজে ঠিকই অর্থ সম্পদ ব্যয় করছি অথচ আল্লাহর রাস্তায় দেয়ার ক্ষেত্রে যেন অনীহা প্রকাশ পায়। এর কারণ হলো শয়তান মানুষের মনে কুমন্ত্রণা যোগায় যে, তুমি যদি আল্লাহর রাস্তায় দান করো তাহলে তোমার ধন-সম্পদ ফুরিয়ে যাবে আর তুমি দরিদ্র হয়ে যাবে।

অথচ পবিত্র কোরআন বলে যারা আল্লাহর রাস্তায় খরচ করে তাদেরকে এর তুলনায় অধিক বৃদ্ধি করে আল্লাহ ফেরত দেন। যেভাবে বলা হয়েছে, ‘যারা নিজেদের ধনসম্পদ আল্লাহর পথে খরচ করে তাদের দৃষ্টান্ত সেই শস্যবীজের ন্যায়, যা সাতটি শীষ উৎপন্ন করে এবং প্রত্যেকটি শীষে একশ শস্যদানা থাকে। আর আল্লাহ যার জন্য চান এর চেয়েও বাড়িয়ে দেন। আর আল্লাহ প্রাচুর্যদানকারী ও সর্বজ্ঞ’ (সুরা বাকারা, আয়াত: ২৬১)।

তাই একথা স্পষ্টভাবে বলা যায় আল্লাহর রাস্তায় খরচ করে কেউ গরীব হবে না বরং তাকে আল্লাহ অনেক গুণ বৃদ্ধি করে তা ফেরত দিবেন। এ বিষয়ে হাদিসে বর্ণিত হয়েছে হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেছেন, হজরত মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘দান করলে সম্পদ কমে না’ (মুসলিম)।

আমরা যদি আল্লাহর জান্নাত লাভ করতে চাই এবং তার শান্তির ছায়ায় আশ্রয় নিতে চাই তাহলে আমাদেরকে তার পথে খরচ করতে হবে। গরীব অসহাদেরকে সাহায্য সহযোগিতা করে তাদের কষ্ট দূর করতে হবে। বিশেষ করে বর্তমান মহামারি করোনার কারণে খেঁটে খাওয়া এবং দরিদ্ররা অনেক কষ্টে দিনাতিপাত করছেন, আমাদের উচিত হবে তাদের পাশে গিয়ে দাঁড়ানো। আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী গরীব-অসহায়দেরকে সাহায্যে এগিয়ে যেতে হবে।

দয়াময় প্রভুর দরবারে প্রার্থনা করি, তিনি যেন আমাদের দান-খয়রাত আর রোজার ইবাদত গ্রহণ করে আমাদেরকে ক্ষমা করেন। হে আল্লাহ! তুমি তোমার দয়ায় তোমার সৃষ্টিকে করোনার আক্রমণ থেকে রক্ষা কর।

আল্লাহতায়ালা আমাদের সকলকে ফিতরানা এবং জাকাত সঠিকভাবে আদায় করে গরীব ভাইদের পাশে দাঁড়ানোর তৌফিক দান করুন।

লেখক: ইসলামী গবেষক ও কলামিস্ট

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত