অনেকের রোজা নষ্ট করছে একটি বিজ্ঞাপন

অনেকের রোজা নষ্ট করছে একটি বিজ্ঞাপন
[প্রতীকী ছবি]

পবিত্র মাহে রমজানে প্রতিদিন ইফতারের সময়ের আগে টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে একটি বিদেশি অরেঞ্জ জুসের আজান সংবলিত বিজ্ঞাপন প্রচারিত হওয়ায় চরমভাবে বিভ্রান্ত হচ্ছেন রোজাদারেরা। আজান শুনে ভুলক্রমে কেউ কেউ নির্দিষ্ট সময়ের আগেভাগেই ইফতার করে ফেলছেন। পরে তারা আফসোস করছেন। কেউ কেউ রোজা নষ্ট হওয়ার আশঙ্কাও করছেন। এ নিয়ে সারা দেশে রোজাদারদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

অনেকে ইত্তেফাকে ফোন করে এই বিজ্ঞাপনের বিরুদ্ধে তাদের অভিযোগের কথা জানিয়েছেন। ইফতারের সময়ের আধা ঘণ্টা আগে থেকেই প্রায় সব টেলিভিশন চ্যানেলে ‘ট্যাং জুস’-এর বিজ্ঞাপনটি প্রচার হতে শুরু করে। ইফতার সময়ের দুই-তিন মিনিট আগে পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে চ্যানেল ঘুরে ঘুরে চলে বিজ্ঞাপনটি।

বিজ্ঞাপনে দেখা যায়, একটি রোজাদার শিশু জগভর্তি ট্যাং নিয়ে বসে বারবার ধরার চেষ্টা করছে। আর দেওয়ালঘড়ির দিকে তাকাচ্ছে। অতঃপর আজান ভেসে আসছে। টেবিলে পরিবারের সবাই মিলে ইফতার করছে। আর টেলপে ভেসে আসছে, ‘ট্যাং এমন একটা পানি, যার জন্য অপেক্ষা করা যায় না। তাই রমজান উদযাপন করুন ট্যাঙের সাথে।’ পাকিস্তানি ২০ সেকেন্ডের এই বিজ্ঞাপন প্রচার করছে রাজধানীর ফার্মগেটের সেজান পয়েন্টের সজীব গ্রুপ। তারাই ট্যাঙের বাংলাদেশের পরিবেশক।

ইফতারির আগে এই বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধের দাবি জানিয়েছেন বহু রোজাদার। ফেসবুকসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় এই বিজ্ঞাপন নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা চলছে। অনেকে সেখানে মন্তব্য করেছেন, এই বিজ্ঞাপনটা রোজা নষ্ট করার জন্য পরিকল্পিত চক্রান্ত। ইফতারের আগে হঠাৎ এই বিজ্ঞাপনে আজানের শব্দ ভেসে আসছে। অনেকে না বুঝেই ইফতার করে ফেলছেন। আর বিজ্ঞাপনটি প্রচার করা হচ্ছে ইফতারের কাছাকাছি সময়ে।

আবদুল গফুর নামে একজন লিখেছেন, ‘আমার আট বছরের বাচ্চাটি সারা দিন কষ্ট করে রোজা রেখে এই আজান শুনে ইফতারের ছয় মিনিট আগেই ইফতার করে এখন কান্নাকাটি করছে। তাকে বোঝানো যাচ্ছে না। একজন লিখেছেন, এই বিজ্ঞাপন খুবই বিরক্তিকর। আজানের শব্দটি রোজাদারদের কনফিউজ করে দিচ্ছে। এটা দ্রুত বন্ধ করা উচিত। টাইমলাইনে দেখা যায়, ২০১৯ সালের ১৪ মে পাকিস্তানে উর্দুতে এই বিজ্ঞাপনের প্রচার শুরু হয়। সজীব গ্রুপ এখন এটা বাংলায় ডাবিং করে প্রচার করছে।

ইত্তেফাক/এমআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x