ইসলামি সঙ্গীতে রেকর্ড গড়ছে হলিটিউন

ইসলামি সঙ্গীতে রেকর্ড গড়ছে হলিটিউন
ছবি: সংগৃহীত

দেশে শুধু ইসলামি সঙ্গীত প্রকাশ এবং প্রচারের জন্য প্রসিদ্ধ-অপ্রসিদ্ধ অনেক চ্যানেল রয়েছে। তবে, সবার চেয়ে এগিয়ে আছে হলিটিউন। চমৎকার সঙ্গীত ডিজাইন ও মানসম্মত ভিডিও হলিটিউনকে ইসলামি সঙ্গীত জগতে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে। এ চ্যানেলে কাজ করছেন দেশের জনপ্রিয় ইসলামি সংঙ্গীতের প্রসিদ্ধ প্রতিষ্ঠান কলরবের সেরা ইসলামি সঙ্গীত শিল্পীরা।

হলিটিউনের ইউটিউব চ্যানেলে ইতোমধ্যেই প্রায় ৪০ লাখ সাবসক্রাইবার রয়েছে। ফেসবুক পেইজে তাদেরকে অনুসরণ করছে ১৫ লাখের বেশি মানুষ। ইসলামি সঙ্গীত কেন্দ্রিক চ্যানেলের মধ্যে রেকর্ড গড়ে সর্বোচ্চ স্থানে রয়েছে। তাদের তৈরি সঙ্গীতগুলো ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হলে প্রথম দিনই লাখের বেশি দর্শক দেখে ফেলেন।

পরিপূর্ণ ইসলামি সংস্কৃতি ও মূল্যবোধকে ধারণ করে ২০১৬ সালে ‘চলার পথে’ শিরোনামে মুহাম্মাদ বদরুজ্জামানের একক একটি সঙ্গীতের মাধ্যমে হলিটিউন আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে। তারপর থেকে জাতীয় সাংস্কৃতিক সংগঠন কলরবের সাথে একটি চুক্তির মধ্যে দিয়ে এই প্রতিষ্ঠানের অধীনে কলরবের সমস্ত শিল্পীরা সঙ্গীত প্রকাশ করা শুরু করেন। ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হতে থাকে প্রতিষ্ঠানটি।

হলিটিউন নিয়ে স্বপ্নের কথা জানিয়ে কলরব শিল্পীগোষ্ঠীর যুগ্ম নির্বাহী পরিচালক এবং হলিটিউনের সিইও মুহাম্মদ বদরুজ্জামান বলেন, আমরা অনেক আগ থেকেই স্বপ্ন দেখি, মানুষ বিধর্মীদের সংস্কৃতি ও অপসংস্কৃতিকে দূরে ঠেলে দিয়ে ইসলামি সংস্কৃতি চর্চা করবে। অপসংস্কৃতির গান না শুনে ইসলামি গানে অভ্যস্ত হবে। এই লক্ষ্যকে সামনে নিয়ে কাজ শুরু করি। আলহামদুলিল্লাহ, মানুষের ভালোবাসা ও অনুপ্রেরণায় আমরা অনেক দূর এগিয়ে গেছি।

এছাড়াও ইসলামি সঙ্গীতের বাণিজ্যিক কার্যক্রমের ক্ষেত্রেও ‘হলিটিউন’ পথ দেখাচ্ছে অন্যদেরকে। এ বিষয়ে চ্যানেলটির সিইও মুহাম্মদ বদরুজ্জামান বলেন, 'ইসলামি সঙ্গীতের বাণিজ্যিক ব্যবহার না হলে এ ইন্ডাস্ট্রি টিকবে না। সঙ্গীত দিয়েই সঙ্গীতের খরচ এবং এর সাথে সংশ্লিষ্টদের জীবন-জীবিকা পরিচালিত হলেই তবে এই ইন্ডাস্ট্রি সামনে এগোবে।’

হলিটিউনের পরিচালক এবং কলরব শিল্পীগোষ্ঠীর নির্বাহী পরিচালক সাঈদ আহমাদ বলেন, বর্তমানে আমাদের সঙ্গীতগুলো খুব সহজেই দেশ বিদেশের কোটি কোটি মানুষের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে। অনেক মানুষ এখন হলিটিউনের নতুন নতুন সঙ্গীতের অপেক্ষায় থাকেন। তাদের ভালো লাগার কথা জানান। কেউ কেউ আমাদের পথচলাকে আরো সহজ করতে আমাদেরকে গঠনমূলক পরামর্শ ও সহযোগিতাও করে যাচ্ছেন। অবশ্যই এটা অনেক বড় সাফল্য এবং দ্বীনের খেদমত।

ইত্তেফাক/বিএএফ

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x