ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
১৭ °সে


মোবাইল নম্বর জালিয়াতি থেকে বাঁচার উপায়

মোবাইল নম্বর জালিয়াতি থেকে বাঁচার উপায়
ফাইল ছবি

আপনি কাউকে কল করলে বা এসএমএস সেন্ড করলে আপনার নম্বরও সঙ্গে সেন্ড হয়ে যায়। আপনি কি কখনো ইচ্ছা করেছেন, আপনি কল করবেন কিন্তু আপনার নম্বর সেন্ড হবে না! এ ব্যাপারে কলার আইডি স্পুফিং আপনাকে সাহায্য করতে পারে। আপনার নম্বর কোন স্ক্যামার পাবে না, হ্যাকার আপনার সিম হাইজ্যাক করতে পারবে না, বা মার্কেটাররা বিরক্তকর এসএমএস সেন্ড করতে পারবে না।

কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে কলার আইডি স্পুফিং টেকনিক কীভাবে কাজ করে? এটা বৈধ নাকি অবৈধ? কীভাবে কলার আইডি স্পুফিং থেকে বাঁচা যেতে পারে? আপনি কীভাবে কলার আইডি স্পুফিং করবেন? এ বিষয়গুলো নিয়েই আলোচনা করা হয়েছে এ লেখায়।

কলার আইডি স্পুফিং কী?

কলার আইডি স্পুফিং হচ্ছে সেই টেকনোলজি যেটা ব্যবহার করলে আপনার আসল কলার আইডি হাইড হয়ে যাবে এবং ফেক কলার আইডি প্রদর্শিত হবে। আপনি কাউকে কল করলে নিশ্চয় আপনার নম্বর তার মোবাইল স্ক্রিনে শো করবে তাই না? কিন্তু কলার আইডি স্পুফিং করলে আপনার নম্বর শো না করে আলাদা নম্বর শো করবে। এখন আপনি যে কোনো নম্বরই ব্যবহার করতে পারেন, তার মোবাইলে আপনার আসল নম্বর শো না করে আপানর সেট করা ফেক নম্বরটি শো করবে।

কলার আইডি স্পুফিং বিশেষ করে প্রাইভেসি রক্ষার জন্য করা হতে পারে। আপনার নম্বর ভুল ব্যক্তির হাতে চলে গেলে নানানভাবে আপনাকে প্রতারিত বা বিরক্ত করার চেষ্টা করতে পারে। যেমন—অনেকেই মেয়ে মানুষের নম্বর পেলে সেখানে কল করে বারবার বিরক্ত করে। কলার আইডি হাইড করে আলাদা নম্বর ব্যবহার করলে আপনার আসল নম্বর কেউ জানবেই না আর বিরক্তও করতে পারবে না।

আরও পড়ুন: উদ্বোধনী অনুষ্ঠান মাতাবেন সালমান-ক্যাটরিনা

কিন্তু একইভাবে কলার আইডি স্পুফ করে স্ক্যামার বা হ্যাকার আপনাকে প্রতারিতও করতে পারে। ধরুন, আপনার ব্যাংকের হেল্পলাইন নম্বর ১৬২৩০, স্ক্যামাররা সহজেই এই নম্বর স্পুফং করে আপনাকে কল দিতে পারে, আপনার ফোনে শো করবে ১৬২৩০ থেকেই কল এসেছে, এখন আপনি যদি আপনার ব্যাংক পাসওয়ার্ড দিয়ে দেন সহজেই আপনি কাঙাল হয়ে যাবেন।

তবে স্ক্যামিং কলগুলো দেখতে আপনার ব্যাংকের নম্বরের মতো হলেও সম্পূর্ণ আপনার ব্যাংক নম্বর হয় না। যেমন—অনেকের কাছেই বিকাশের স্ক্যামিং কল আসে ১৬২৪৭ থেকে, কিন্তু স্ক্যামাররা যখন কল করে +১৬২৪৭ থেকে কল আসে, নম্বরের আগে একটা + চিহ্ন যুক্ত থাকে। এরকম নম্বরকে নেইবার স্পুফিং বলা হয়। মানে নম্বরটি আসল নম্বরের আশেপাশের নম্বর হয় এবং দেখতে একনজরে একই রকমের মনে হতে পারে।

কল স্পুফিং কি বৈধ?

এক কথায়, হ্যাঁ! কল স্পুফিং করা বৈধ, মানে বেশির ভাগ কলার আইডি স্পুফ করা বৈধ ব্যাপার। শুধু তখনই এটা অবৈধ যখন এটা ব্যবহার করে কোনো স্ক্যামিং করার চিন্তা করা হবে বা কারো কোনো ক্ষতি করা হবে। যদি কোনো স্ক্যামিংয়ে এটা ব্যবহূত না হয় বা কারো কোনো ক্ষতি সাধিত না হয়, তাহলে কল স্পুফিং করা যেতে পারে।

ধরুন আপনি স্ক্যাইপ ক্রেডিট কিনেছেন বাইরের দেশে কল করার জন্য, এখন ডাইরেক্ট ফোন থেকে কল করার চাইতে স্ক্যাইপে খরচ কম আসে, তাই স্ক্যাইপ ব্যবহার করা স্বাভাবিক ব্যাপার। আপনি যদি কলার আইডি সেট না করেন সেক্ষেত্রে যাকে কল করবেন তার ফোনে আজাইরা নম্বর শো করবে বা ‘Private Number’ লেখা আসতে পারে। সেক্ষেত্রে অনেকেই হয়তো আপনার ফোন কল রিসিভ করবে না। কিন্তু আপনি চাইলে স্ক্যাইপের মাধ্যমে আপনার নিজের আসল ফোন নম্বর স্পুফিং করতে পারেন, এতে আপনি কল করবেন স্ক্যাইপ ব্যবহার করেই কিন্তু অন্যদিকে আপনার আসল ফোন নম্বর শো করবে, সহজেই আপনার প্রিয়জন আপনার কল চিনতে পারবে ও রিসিভ করবে। তো এক্ষেত্রে কল স্পুফিং তো সম্পূর্ণ বৈধ ব্যাপার হলো তাই না?

কল স্পুফিং যেভাবে কাজ করে

অনেক টেকনিক ব্যবহার করে কলার আইডি স্পুফিং করা যেতে পারে, এর মধ্যে ভিওআইপি (ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকল) টেকনোলজি ব্যবহার করে বেশিরভাগ কলার আইডি স্পুফিং করা হয়। এই টেকনোলজিতে ইন্টারনেট থেকে সেলফোন টাওয়ারে কলকে সেন্ড করা হয়, আর কলারকে ইচ্ছামতো নাম্বার চয়েজ করার সুবিধা প্রদান করা হয় কলার আইডি হিসেবে। প্রথমে আপনি ভিওআইপি সার্ভিস গ্রহণ করলেন, তাদের অ্যাপ ফোনে ইন্সটল করলেন বা ওয়েবসাইট থেকে ড্যাশবোর্ড পেয়ে গেলেন।

আপনাকে ইচ্ছামতো এবার নাম্বার চয়েজ করতে দেবে, আপনি যেটা কলার আইডি হিসেবে দেখাতে চান। তবে নামি প্রভাইডাররা শুধু আপনার নিজের নাম্বার স্পুফিং করতে সুবিধা দেয়। আপনি তাদের কাছে যেকোনো নাম্বার স্পুফ করতে পারবেন না। এরপরে যাকে কল করবেন তার নাম্বার টাইপ করবেন, আর সেন্ড করে দেবেন। আপনার স্পুফ করা নাম্বার অপরদিকের স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে।

কল স্পুফিং স্ক্যাম থেকে বাঁচার উপায়

কল স্পুফিং স্ক্যাম অনেক মারাত্মক এক জিনিস, এতে প্রত্যেক বছর লাখো টাকার ক্ষতি গুণতে হয় সাধারণ মানুষকে। স্ক্যামাররা নানান ফন্দি বানিয়ে কল স্পুফ করে ফোন করে, এক ঝলকে নাম্বার দেখে আপনার আসল ব্যাংক বা সার্ভিস মনে হয়। তারপরে তারা কৌশলে আপনার থেকে গোপন তথ্যগুলো জেনে নেয় এবং অর্থ লোপাট করার ধান্দা করে। এরকম জালিয়াতি থেকে বাঁচার জন্য আমি রেকোমেন্ড করব পার্সোনাল নাম্বার যেখানে-সেখানে শেয়ার না করা। আপনি সেকেন্ড নাম্বার রাখতে পারেন যেখানে বাকি বাইরের কল ও যাবতীয় কাজ সারবেন আর পার্সোনাল নাম্বার পার্সোনাল কাজ এবং ব্যাংকে ব্যবহার করতে পারেন। স্ক্যামার আপনার ফোন নাম্বার না পেলে আপনাকে কলও করতে পারবে না। মনে রাখবেন বেশিরভাগ স্ক্যামিং অ্যাটাক কাউকে টার্গেট করে করা হয় না, জাস্ট তারা একের পর এক র?্যান্ডম পারসনকে কল করে, যারা কল ধরে আর তাদের ফাঁদে পা দেয় তারাই বিপদে পড়ে!

আরেকটি কথা মনে রাখবেন, আসল ব্যাংক থেকে কল করলে আপনাকে কখনোই আপনার পাসওয়ার্ড জিজ্ঞাস করবে না, যদিও স্ক্যামাররা এখন আর সরাসরি পাসওয়ার্ড জিজ্ঞেস করে না, কিন্তু তারপরেও তারা নানান ট্রিক খাটিয়ে পাসওয়ার্ড নেওয়ার চেষ্টা করে বা পাসওয়ার্ড রিসেট করাতে চায়। তাদের থেকে সম্পূর্ণ সাবধান, এ রকম কলে আপনাকে নানান লোভ দেখাতে পারে, জাস্ট সঙ্গে সঙ্গেই লোভে পড়বেন না, প্রয়োজনে ব্যাংকের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন বা নিজে থেকেই তাদের কল ব্যাক করুন, মানে আপনার ব্যাংকের অফিসিয়াল নাম্বারে, তারপরে কথা বলে নিশ্চিত করুন।

আপনার কমনসেন্স চালু রাখতে হবে। সঙ্গে আপনাকে প্রযুক্তি শিক্ষা নিতেই হবে। তবেই আপনি এমন জিনিসগুলো থেকে বাঁচতে পারবেন। বর্তমানে বিকাশ হাইজ্যাক হয়ে যাওয়া অনেক সাধারণ একটি ব্যাপার, তারা আপনাকে স্প্যাম কল করে তারপরে নানানভাবে ওটিপি বা পিন পাওয়ার চেষ্টা করে। আপনিই বলুন, ব্যাংক আপনাকে কল করে কেন আপনার থেকে এমন ডিটেইলস চাইবে যেটা অলরেডি তাদের সার্ভারেই মজুত রয়েছে?

আপনি অনেক অ্যাপের মাধ্যমে ভিওআইপি সার্ভিস গ্রহণ করে সহজেই নাম্বার স্পুফিং করতে পারবেন। আপনি হয়তো নিজের নাম্বার প্রকাশ করতে চাচ্ছেন না হতে পারে সেটা প্রাইভেসির জন্য বা সিকিউরিটির জন্যও বটে, সেক্ষেত্রে এই টেকনিক আপনাকে বিশেষ সুবিধা প্রদান করতে পারে। বাইরের দেশে কলার আইডি হাইড করার অপশন প্রদান করে, কিন্তু আমাদের দেশের অপারেটরগুলো তা সাপোর্ট করে না, তাই ভিওআইপিই একমাত্র উপায়।

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১২ ডিসেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন