ঢাকা বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ৬ ফাল্গুন ১৪২৬
২৮ °সে

মিরাজের ব্যাটে চড়ে খুলনার ৮ উইকেটের জয়

মিরাজের ব্যাটে চড়ে খুলনার ৮ উইকেটের জয়
৬২ বলে ৮৭ রানের ইনিংস খেলার পথে মিরাজের একটি শট। ছবি-সংগৃহীত

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শনিবারের দ্বিতীয় ম্যাচে মেহেদি হাসান মিরাজের ব্যাটে চড়ে সিলেট থান্ডারের বিপক্ষে ৮ উইকেটের জয় পেয়েছে খুলনা টাইগার্স। ১৫৮ রানের লক্ষ্য ১৩ বল বাকি থাকতে ছুঁয়ে ফেলেছে মুশফিকুর রহিমের দল। শনিবার টানা তৃতীয় ম্যাচে ওপেন করতে নেমে মিরাজ দ্যুতি ছড়ালেন ব্যাটিংয়ে। আগের সেরা ৫১ ছাড়িয়ে খেললেন ৮৭ রানের ইনিংস।

খুলনার আমন্ত্রণে ব্যাটিংয়ে নামে সিলেট। দ্বিতীয় ওভারে রবি ফ্রাইলিঙ্কের ওপর চড়াও হন ফ্লেচার। এক ছক্কা ও তিন চারে তুলে নেন ২১ রান। তবে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আঁটসাঁট বোলিং করেন আমির। ফলে পাওয়ার প্লেতে কেবল ৪৩ রান তুলতে সক্ষম হয় সিলেট।

নবম ওভারে ফিরে ৬২ রানের উদ্বোধনী জুটি ভাঙ্গেন ফ্রাইলিঙ্ক। দ্বিতীয় ওভারের শোধ নেন ফ্লেচারের উইকেট নিয়ে। ২৪ বলে দুই ছক্কা ও চার চারে ফ্লেচার করেন ৩৭। অন্য প্রান্তে থাকা রুবেল মিয়ার সঙ্গে জুটি গড়তে ক্রিজে আসেন জনসন চার্লস। এই জুটিতে আসে ৩৯ রানে। দলীয় ১০২ রানের সময় ১২ বলে ১৭ রান করে ফিরে যান চার্লস। ১৪তম ওভারে পেসার শহীদুল রুবেল ও মিঠুনের উইকেট তুলে নিলে চাপে পড়ে সিলেট।

এসময় ক্রিজে আসেন অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেন। ৩৭ বলে ৫৩ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে দলকে দেড়শ রানে নিয়ে যান মোসাদ্দেক ও রাদারফোর্ড জুটি। ২০ বলে দুই ছক্কায় ২৬ রান অপরাজিত থাকেন রাদারফোর্ড। তিন চারে ১৮ বলে ২৩ রান করেন অধিনায়ক মোসাদ্দেক।

রান তাড়ায় শুরু থেকে সাবলীল ছিলেন মিরাজ ও শান্ত। ক্রিসমার সান্টোকির করা ইনিংসের প্রথম ওভারে দুই চার হাঁকান মিরাজ। নাঈম হাসানের পরের ওভারে তুলে নেন চার ও ছক্কা। সান্টোকির পরের ওভারে শান্তর ব্যাট থেকে আসে তিন চার। উড়ন্ত সূচনা পেয়ে যায় খুলনা। এরপর আর পেছনে তাকাতে হয়নি। একের পর এক বোলার বদল করেও লাভ হয়নি। তরতর করে এগিয়ে গেছে খুলনা।

আরও পড়ুন: ভিপি নুর ও তারেক রহমানের আলাপের স্ক্রিনশট ভাইরাল!

৩০ বলে পঞ্চাশ স্পর্শ করে জুটির রান, ৬৩ বলে একশ। পাঁচ চার ও দুই ছক্কায় ৩১ বলে টি-টুয়েন্টি ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি স্পর্শ করেন মিরাজ। গত আসরে খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে রাজশাহী কিংসের হয়ে করেছিলেন ৫১।

ইবাদত হোসেন খুলনার শান্তকে ফিরিয়ে ভাঙেন ১১৫ রানের জুটি। পাঁচ চারে ৩১ বলে ৪১ রান করেন শান্ত। এরপর ক্রিজে আসেন রাইলি ‍রুশো। একটি করে ছক্কা ও চারে ১১ বলে ১৫ রান করে রুশো ফিরে যাওয়ার পর মুশফিককে নিয়ে বাকিটা সহজেই সারেন মিরাজ। ৬২ বলে খেলা তার ৮৭ রানের ইনিংসটি গড়া নয় চার ও তিন ছক্কায়।

ইত্তেফাক/এসইউ

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
icmab
facebook-recent-activity
prayer-time
১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন