বেটা ভার্সন
আজকের পত্রিকাই-পেপার ঢাকা মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭
২৮ °সে

করোনা ভাইরাস মোকাবিলা

প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে দেওয়া হবে ক্রিকেটারদের অনুদান

প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে দেওয়া হবে ক্রিকেটারদের অনুদান
বাংলাদেশ জাতীয় দলের তিন ক্রিকেটার। ছবি: সংগৃহীত

করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে হাত বাড়ালেন ২২ গজের যোদ্ধারাও। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটির মোকাবিলায় ব্যাট-প্যাড-গ্লাভস গুটিয়ে বাসায় বসে থাকা ক্রিকেটাররা এগিয়ে এলেন দেশ মাতৃকার সাহায্যে। সারা পৃথিবীর ক্রীড়াবিদদের মতো বাংলাদেশের ক্রিকেটাররাও এগিয়ে এলেন।

জাতীয় দলের ২৭ ক্রিকেটার মিলে অগ্রীম পাওয়া মার্চ মাসের বেতনের অর্ধেক দান করেছেন করোনা মোকাবিলায়। সব মিলিয়ে ৩১ লাখ টাকা অনুদান। কর কেটে রাখার পর অঙ্কটা দাঁড়াতে পারে ২৬ লাখের মতো। এই দুঃসময়ে দেশবাসীকে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জেতার রসদ, মনোবল যোগালেন তামিম ইকবাল, মুমিনুল হকরা। বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা ১৭ ক্রিকেটার ও জিম্বাবুয়ে সিরিজে খেলা ১০ জন মিলে, সর্বমোট ২৭ ক্রিকেটার অর্থসাহায্য দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছেই ক্রিকেটারদের এই অনুদান তুলে দেওয়া হবে। সেজন্য ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সঙ্গে যোগাযোগও করেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। বোর্ড সভাপতির নির্দেশনা মতোই সংশ্লিষ্ট জায়গায় টাকা দেবেন ক্রিকেটাররা।

গতকাল দুপুরে এমনটাই জানিয়েছেন এই মহতী উদ্যোগের মূলে থাকা বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল। বাঁহাতি এই ওপেনার বলেন, ‘আমরা সভাপতির সঙ্গে কথা বলেছি, সভাপতি প্রধানমন্ত্রীর অফিসে কথা বলেছেন। আমরা অপেক্ষা করছি, উনি যেভাবে বলবেন, আমরা ঐ ভাবে টাকাটা দিয়ে দেব। যেখানে দেওয়া দরকার।’

বিসিবি সূত্রে জানা গেছে, উদ্যোগটা নিয়েছেন তামিম। পরে টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল, টি-২০ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ, সিনিয়র ক্রিকেটাররা যোগ দেন। তামিম গোটা বিষয়টা সমন্বয় করেন। বিসিবির কাছে চেয়ে এপ্রিল মাসের বেতন অগ্রীম নেন। তাকে সহযোগিতা করেছে বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স বিভাগ।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোস্টে মাশরাফি ধন্যবাদ জানিয়েছেন, তিন ফরম্যাটের অধিনায়ককে। বিশেষ করে চট্টলার খান পরিবারের প্রতিনিধি তামিমকে ধন্যবাদ জানান সাবেক এই অধিনায়ক।

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন তামিম। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘যত ছোটো অবদানই হোক, সবাই মিলে সেটিই বড়ো হয়ে উঠবে। চারপাশের সবার সমালোচনায় মেতে না থেকে আমরা যদি নিজেরা দায়িত্ব নেই এবং নিজেদের সাধ্যমতো অবদান রাখি, তাহলেই করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে এ লড়াইয়ে জয় সম্ভব।’

মুশফিকুর রহিম ৩ লাখ ১০ হাজার, তামিম ৩ লাখ ২৫ হাজার, লিটন দাস ও মেহেদী হাসান মিরাজ ১ লাখ ৩৭ হাজার করে, তাইজুল ইসলাম ১ লাখ ২৫ হাজার, মোহাম্মদ মিঠুন ১ লাখ, নাজমুল শান্ত ৭৫ হাজার, মুমিনুল ১ লাখ ৬৫ হাজার, নাঈম হাসান-আবু জায়েদ রাহী-এবাদত হোসেন ৫০ হাজার করে, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ২ লাখ ১৫ হাজার, সৌম্য সরকার ও মুস্তাফিজুর রহমান ১ লাখ ৫০ হাজার করে, সাইফউদ্দিন ৭৫ হাজার, আফিফ হোসেন ও নাঈম শেখ ৫০ হাজার করে, শফিউল ইসলাম ১ লাখ ৫০ হাজার, মাশরাফি বিন মুর্তজা ২ লাখ ২৫ হাজার, আল-আমিন হোসেন ৭৫ হাজার, মেহেদী হাসান-হাসান মাহমুদ-সাইফ হাসান-ইয়াসির আলী-তাসকিন আহমেদ-নাসুম আহমেদ-আমিনুল বিপ্লব ৫০ হাজার করে টাকা দিয়েছেন।

ঘটনা পরিক্রমা : করোনা ভাইরাস

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত