অ্যাটলেটিকো ব্যতিক্রমীদের সমাবেশ?

অ্যাটলেটিকো ব্যতিক্রমীদের সমাবেশ?
লুইস সুয়ারেজ। ছবি সংগৃহীত

ফুটবলের বিখ্যাত দুই ‘ব্যাডবয়’ দিয়েগো সিমিওনে আর দিয়েগো কস্তা ছিলেন আগে থেকেই। গতকাল অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদে তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন লুই সুয়ারেজও। আর্জেন্টাইন কোচ আর তার নতুন-পুরোনো দুই শিষ্যকে মিলিয়ে মাদ্রিদের দলটি তাই মাঠে ও মাঠের বাইরে ‘ব্যতিক্রমী’ সব লড়াইয়েরই আভাস দিচ্ছে।

প্রতিপক্ষ কিংবা ম্যাচ অফিশিয়ালদেরকে কথার তীরে বিদ্ধ করা, সাইডলাইনে ব্যতিক্রমী সব অঙ্গভঙ্গি, আগ্রাসি রক্ষণাত্মক কৌশল কিংবা বুনো সব উদ্যাপন। অ্যাটলেটিকো কোচ সিমিওনের ‘ব্যাডবয়’ চরিত্রের সঙ্গে পরিচয় দেওয়ার জন্যে এসব যথেষ্টের চেয়েও বেশি কিছু।

এদিকে কস্তার ক্যারিয়ারের শুরুটাই ছিল অ্যাটলেটিকোয়। ২০১৪ সালে চেলসিতে যোগ দিলেও দিয়েগো কস্তা মাদ্রিদে ফিরেছেন ২০১৭ সালে। তবে ইংল্যান্ডের তিন বছরে দারুণ শারীরিক ফুটবলের পাশাপাশি ‘নাম’ কামিয়েছিলেন প্রতিপক্ষকে স্লেজিংয়ের জন্যও। সব মিলিয়ে সিমিওনে-শিষ্য হওয়ার জন্য যথার্থ হয়ে উঠেছিলেন কস্তা।

অনেক গুঞ্জনের অবসান ঘটিয়ে গতকাল ছয় মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে বার্সেলোনা থেকে অ্যাটলেটিকোয় যোগ দিয়েছেন সুয়ারেজ। বার্সায় যোগ দেওয়ার আগেই বেশ আলোচিত-সমালোচিত ছিলেন যিনি। শুরুটা আয়াক্সে, ২০১০ সালে আইন্দহোভেনের ওটমান বাক্কালিকে কামড়ে দিয়েছিলেন সুয়ারেজ। ব্যাপারটা থামেনি সেখানেই, পরে চেলসির ব্রানিস্লাভ ইভানোভিচ আর ইতালির জর্জিও কিয়েলিনিকে কামড়ে উরুগুইয়ান এই স্ট্রাইকার বড় নিষেধাজ্ঞাই পেয়েছিলেন।

এখানেই শেষ নয়, ২০১০ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে নিজেদের গোলমুখে হাত দিয়ে বল থামিয়ে, কিংবা প্রতিপক্ষকে বর্ণবাদী মন্তব্য করে আলোচনায় এসেছেন আরো কয় বার। বার্সায় আর ১০টা সাধারণ খেলোয়াড়ের মতো বনে গেলেও ছাড়ার আগেই ফিরেছেন আবার সে পুরোনো রূপে। জুভেন্তাসে যোগ দেওয়ার জন্য আগে প্রয়োজন ছিল ইতালিয়ান পাসপোর্ট পাওয়ার, সে পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগও উঠেছে তার বিরুদ্ধে, চলছে তদন্তও।

সুয়ারেজ যদি শেষমেশ আগের রূপে ফেরেনই, তাহলে পারফর্ম্যান্স যেমনই হোক, অ্যাটলেটিকো যে আলোচনায় থাকবে তা অন্তত নিশ্চিত!

ইত্তেফাক/এএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত