নির্বাসনকালেও ঔজ্জ্বল্য ছড়ান সাকিব

নির্বাসনকালেও ঔজ্জ্বল্য ছড়ান সাকিব
নিষেধাজ্ঞার এই সময়টাতে একেবারে অলস বসেছিলেন না সাকিব। এইরকম বাহারি বিজ্ঞাপনে অংশ নিয়েছেন —ওয়েবসাইট

ওয়েলকাম ব্যাক চ্যাম্প!— লিখেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

প্রশস্তিগাথা লিখে স্বাগত জানিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। ২২ গজে দেশের জন্য ম্যাচজয়ী জুটি গড়তে অপেক্ষায় মুশফিক। তার হাত থেকে টেস্ট ক্যাপ নিতে চান হালের তারকা মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। বাদ যাননি মুস্তাফিজ, সাব্বির, ইমরুল কায়েসরাও।

বুধবার সন্ধ্যার পর থেকে ভক্ত-সমর্থকদের মতোই জাতীয় দলের ক্রিকেটাররাও স্বাগত জানিয়েছেন সাকিব আল হাসানকে। ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব গোপন করে নিষিদ্ধ হওয়া এই ক্রিকেটার এখন মুক্ত। ক্রিকেট থেকে তার এক বছরের নির্বাসন কাল চোখের পলকেই যেন কেটে গেছে।

এই তো গত বছর ২১ অক্টোবর দেশের ক্রিকেটকে কাঁপিয়ে দেওয়া ক্রিকেটারদের আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। কয়েকদিন পরই সাকিবকে দেওয়া আইসিসির শাস্তি বড় বিস্ময় হয়ে ধরা দিয়েছিল সবার কাছে। নিষেধাজ্ঞার এই সময়টাতে বাংলাদেশের জার্সিতে ১৪টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ মিস করেছেন তিনি। তাকে ছাড়াই চার টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও সাত টি-২০ খেলেছে বাংলাদেশ। মাশরাফি বিন মুর্তজা ওয়ানডের নেতৃত্ব ছেড়েছেন, তার অনুপস্থিতিতে টেস্টের দায়িত্ব পড়েছে মুমিনুল হকের ওপর, তামিম ইকবালকে দেওয়া হয়েছে ওয়ানডে দলের অধিনায়কত্ব।

করোনার কারণে আইসিসি টি-২০ বিশ্বকাপ মিস হয়নি বাঁহাতি এই অলরাউন্ডারের। এবং আইসিসির সচেতনতার অংশ হিসেবে বিভিন্ন লাইভ অনুষ্ঠানে গিয়ে নিজের ভুল স্বীকার করেছেন।

শাস্তির সময়টার সিংহভাগ তথা ১১ মাসই সাকিব কাটিয়েছেন পরিবারের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে। ক্যারিয়ারের এই কঠিন সময়ে তার জীবন আলোকিত করে পৃথিবীতে এসেছে দ্বিতীয় কন্যা ইরাম হাসান।

শ্রীলঙ্কা সফরে প্রত্যাবর্তনের আশায় গত সেপ্টেম্বরে ঢাকায় ফিরে বিকেএসপিতে নিবিড় অনুশীলন করেছেন ছেলেবেলার কোচদের কাছে। লঙ্কা সফর স্থগিত হওয়ায় ফিরে গেছেন যুক্তরাষ্ট্রে। আগামী ৪ নভেম্বর ফেরার কথা রয়েছে তার।

লক্ষণীয় বিষয় যে, নিষিদ্ধ থাকার সময়কালে সাকিবের জনপ্রিয়তায় একটুও ভাটা পড়েনি। সমর্থক, ভক্তরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় ছিলেন। বিজ্ঞাপন, বাণিজ্যিক চুক্তির বাজারে তার অবস্থানের নড়চড় হয়নি। কোনো প্রতিষ্ঠানই ছেড়ে যায়নি বাংলাদেশ ক্রিকেটের এই পোস্টার বয়কে। বরং নতুন নতুন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন। যেমনটা সর্বশেষ সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের বিজ্ঞাপনে পুরোনো ঢাকার ব্যবসায়ী রূপে পর্দায় হাজির হন সাকিব। যা সারা দেশেই সাড়া ফেলেছে।

করোনার দুর্যোগে দেশের মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। নিজের নামে ‘সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন’ করেছেন। দুর্গতদের সাহায্য করতে নিজের ব্যাট, জার্সি নিলামে তুলে অর্থ সংগ্রহ করেছেন।

ইত্তেফাক/জেডএইচডি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত