ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১২ বৈশাখ ১৪২৬
৩২ °সে


আইসিসির নতুন সিইও সাওয়ানি

আইসিসির নতুন সিইও সাওয়ানি
আইসিসির নতুন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মনু সাওয়ানি। ছবি-সংগৃহীত

সিঙ্গাপুর স্পোর্টস হাবের সাবেক প্রধান নির্বাহী ও ইএসপিএন স্টার স্পোর্টসের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনু সাওয়ানিকে আইসিসির নতুন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। খেলাধুলা ও বাণিজ্যের সাথে দীর্ঘদিন ধরে জড়িত সাওয়ানি আগামী জুলাই মাসে আইসিসির দায়িত্ব গ্রহণ করবেন।

তিনি আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপের পর বিদায়ী প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসনের স্থলাভিষিক্ত হবেন। তবে ফেব্রুয়ারি থেকেই আইসিসিতে কাজ করবেন সাওয়ানি।

ডেভ রিচার্ডসন পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ার পর থেকে নতুন সিইও খোঁজ করছিল আইসিসি। চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহরের নেতৃত্বে একটি কমিটি সারা বিশ্ব থেকে আবেদনপত্র নিয়ে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ করেছে। সাওয়ানির নিয়োগের খবর জানিয়ে মনোহর বলেছেন, তারা সর্বসম্মতিক্রমে এই নতুন সিইওকে বেছে নিয়েছেন।

আইসিসির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মনোহরকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, তিনি নতুন এই প্রতিষ্ঠানের প্রধানকে নিয়োগ দিতে পেরে খুব খুশী, ‘আমি আজ মনুর নিয়োগ নিশ্চিত করতে পেরে খুবই উচ্ছ্বসিত। সে আইসিসি ২২ বছরের অসাধারণ অভিজ্ঞতা নিয়ে আসছে। সে আমাদের খেলাটায় আমাদের নতুন বৈশ্বিক উন্নয়ন কৌশল ঠিকমতো কাজে লাগাতে পারবে। আমাদের খোঁজ (সিইওর জন্য) সারা বিশ্ব থেকে অসাধারণ সব আবেদনকারীকে হাজির করেছিল। কিন্তু মনু শেষ পর্যন্ত আমাদের সদস্যদের সাথে কাজ করার জন্য এবং ক্রিকেটকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য সঠিক লোক হিসেবে টিকে গেছেন।’

একই সাথে মনোহর বলেছেন, মনুর খেলা, সম্প্রচার ও বাণিজ্য নিয়ে যে অভিজ্ঞতা সেটাই আইসিসি খোঁজ করছিল। আইসিসি চেয়ারম্যান বলেছেন, ‘খেলা ও সম্প্রচার দুই ক্ষেত্রেই তার একাধিক নেতৃত্বগুণ ইতিমধ্যে প্রমাণিত। সে একজন কৌশলী চিন্তাবিদ এবং ক্রিকেটের বিশালত্ব ও এর জটিলতা খুব ভালো বোঝে। নিয়োগ কমিটির তাকে নিয়োগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত ছিল সর্বসম্মত। আমি এবং আমার সহযোগী পরিচালকরা তার সাথে কাজ করতে মুখিয়ে আছি।’

সাওয়ানি ইএসপিএন স্টার স্পোর্টসে ১৭ বছর কাজ করেছেন। ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে তার সময়েই প্রতিষ্ঠানটি তাদের বার্ষিক আয় দ্বিগুণ করে। ইএসপিএন স্টার স্পোর্টস এই সময়ে এশিয়ায় ২৪টি দেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথভাবে কাজ করার চুক্তি করে এবং ডিজিটাল উন্নয়ন কৌশল গ্রহণ করে। তার সময়েই আইসিসির সাথে এই প্রতিষ্ঠানটির সম্প্রচারস্বত্বের চুক্তি হয়। যে চুক্তি ২০০৭ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত কার্যকর ছিল। সে হিসেবে তিনি আইসিসির সাথে আগেই কাজ করে অভ্যস্ত। খেলাধুলায় সাওয়ানির আরও একটা পরিচয় আছে। তিনি বিশ্বের অন্যতম বৃহত্ ফুটবল ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের একজন ‘নন-এক্সিকিউটিভ’ পরিচালক ও প্রতিষ্ঠানটির অডিট কমিটির সদস্য।

আরো পড়ুন: কিমকে চিঠি পাঠিয়েছেন ট্রাম্প

সাওয়ানি নিজের নিয়োগের ফলে আইসিসিকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেছেন, ‘আইসিসির সিইও হিসেবে ক্রিকেট সমাজকে সেবা করাটা একটা অসাধারণ প্রাপ্তি ও দায়িত্ব। এই খেলাটির এখন বিলিয়নেরও বেশি ভক্ত আছেন। আর খেলাপি উচ্চাকাঙ্ক্ষি এক উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ফলে এই প্রতিষ্ঠানকে নেতৃত্ব দেওয়াটা একটা রোমাঞ্চকর ব্যাপার হবে।’

সাওয়ানি ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি আইসিসিতে যোগ দিয়ে ডেভ রিচার্ডসনের সাথে কাজ করবেন। জুলাই পর্যন্ত একটি মসৃণ হস্তান্তর প্রক্রিয়া চালাবেন দু’জন।

ইত্তেফাক/কেআই

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২৫ এপ্রিল, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন