২১ দিনেও নিবন্ধিত হননি কেউ

২১ দিনেও নিবন্ধিত হননি কেউ
২১ দিনেও নিবন্ধিত হননি কেউ

গত ১ নভেম্বর ফুটবলারদের রেজিস্ট্রেশন সময় শুরু হয়েছে। দেশি এবং বিদেশি ফুটবলারদের রেজিস্ট্রেশন শেষ হবে ১৫ ডিসেম্বর। গত একুশ দিনে এক জন ফুটবলারেরও রেজিস্ট্রশন হয়নি বাফুফে ভবনে। ক্লাব বলছে, তাদের হাতে সময় আছে। এত তাড়াহুড়া করে লাভ কী। প্রফেশনাল লিগ কমিটির কর্মকর্তা জাবের বিন আনসারী বললেন কোনো খেলোয়াড় রেজিস্ট্রেশন হয়নি এখনো। হাতে সময় আছে তাই হয়তো ক্লাবগুলো সময় নিচ্ছে।

খেলোয়াড়দের রেজিস্ট্রেশন এক দিনেই সারিয়ে নেওয়া সম্ভব। ক্লাবগুলো গত মৌসুমে যাদের রেখেছিল তাদেরই এবার রেখে দিচ্ছে। খুব একটা পরিবর্তন হচ্ছে না। কারণ করোনার কারণে ফুটবল মৌসুম স্থগিত হয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত প্রিমিয়ার লিগ শুরু হয়ে, কয়েক রাউন্ড খেলা হওয়ার পর বন্ধই হয়ে যায়। খেলোয়াড়দের পারিশ্রমিক নির্ধারণ করা আছে। ক্লাব এবং খেলোয়াড়দের সঙ্গে পারিশ্রমিক নিয়ে আলোচনা হয়ে আছে। পুরোনো বকেয়া দেওয়ার পাশাপাশি নতুন মৌসুমের ৩৫ শতাংশ অর্থ দেওয়ার কথা রয়েছে। যদিও খেলোয়াড়রা বলছে তারা ৪০ শতাংশ অর্থ চায়। জাতীয় দলের গোলকিপার আশরাফুল ইসলাম রানা জানিয়েছেন তারা বাফুফে সভাপতির সঙ্গে কথা বলেছেন, ৪০ শতাংশ অর্থ পাবেন। সেটা পুরোনো হবে কিনা, তা সময় বলে দেবে। তবে ক্লাবগুলো করোনার কারণে অর্থিক সংকটে রয়েছে, সে কথা বারবার বিভিন্ন সভায় উঠে এসেছে। ক্লাবগুলো খেলোয়াড় রেজিস্ট্রেশন না করালেও তারা থেমে নেই। ফুটবল অনুশীলন শুরু হয়ে গেছে অনেক ক্লাবের। বিশেষ করে মোহামেডান আবাহনী শেখ রাসেল, বসুন্ধরা কিংস অনুশীলন করছে অনেক আগে থেকেই। বসুন্ধরা কিংসের বেশির ভাগ ফুটবলার জাতীয় দলে রয়েছে। জাতীয় দলের অনুশীলনে ঢোকার আগে তারা স্প্যানিশ কোচ স্কার ব্রুজনের কাছে তালিম নিচ্ছিলেন। তাদের বিদেশি ফুটবলারও এসেছে। এক সঙ্গেই অনুশীলন চলছে। শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্রের অনুশীলন শুরু হয়েছে কোচ সাইফুল বারী টিটুর হাতে। ১৮ জন ফুটবলার নিয়ে শেখ রাসেল অনুশীলন শুরু করেছে। দলের বিদেশি ফুটবলাররা আগামী সপ্তাহে আসবেন বলে ক্লাব সূত্রে জানা গেছে।

মোহামেডানের অনুশীলনও গত সপ্তাহে শুরু হয়েছে। দলে বিদেশি কোচ খেলোয়াড়ও এসেছেন। ইংলিশ কোচ সিনলেন কোচিংয়ে নামার আগে আশংকায় ছিলেন তার খেলোয়াড়দের ফিটনেস আছে কিনা তা নিয়ে। কয়েক দিন অনুশীলন করার পর বেশ খুশি এই ইংলিশ কোচ। সংবাদ মাধ্যমকে বললেন,‘আমি বিশ্বাসই করতে পারিনি করোনাকালে খেলোয়াড়রা নিজেদের এতটা ধরে রাখতে পারবে। ফিটনসে ভালো আছে। আমি যেভাবে নির্দেশনা দিয়েছিলাম সেভাবে ছেলেরা কাজ করেছে বলে আমাকে শূন্য থেকে শুরু করতে হয়নি।’

আবাহনী অনুশীলন শুরু করেছে ৭ নভেম্বর। আবাহনীর ফুটবল ম্যানেজার বললেন, ‘ফুটবলার, কোচ, কোচিং স্টাফ, ক্লাব স্টাফ সব মিলিয়ে ২৬ জনের করোনা টেষ্ট করানো হয়েছিল। তারপরও রেজাল্ট হাতে নিয়ে ক্যাম্প শুরু করা হয়। এখন ১৯ জন ক্যাম্প রয়েছেন।’ পর্তুগিজ কোচ মারিও লেমস এখনো ঢাকায় আসেননি। তিনি আগামী সপ্তাহে আসবেন। আপাতত জাকারিয়া বাবুর ফুটবলারদের দুই বেলা অনুশীলন করাচ্ছেন। আর বিদেশি ফুটবলার গত মৌসুমে যারা খেলেছিলেন তাদের বাদ দিয়ে নতুন কোনো ফুটবলার আনা যায় কিনা, তা নিয়ে কাজ করছেন পেশাদার লিগের প্রথম হ্যাটট্টিক চ্যাম্পিয়ন আবাহনী।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত