আসছে মৌসুমেও দর্শকহীন ঢাকার ফুটবল

আসছে মৌসুমেও দর্শকহীন ঢাকার ফুটবল
বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) পেশাদার লিগ কমিটি সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম সংস্কারকাজ চলছে। নতুন মৌসুমে প্রিমিয়ার লিগের খেলায় ভেন্যু বাড়বে। ভেন্যু বাড়বে তবে ভেন্যু নিয়ে চিন্তিত না লিগ কমিটি। স্বাধীনতা কাপ ফুটবল দিয়ে আসছে নতুন মৌসুম শুরু হবে। এর পর ফেডারেশন কাপ ফুটবল মাঠে গড়াবে। এই দুটি আসরের পরই নতুন বছরে প্রিমিয়ার ফুটবল লিগ মাঠে গড়াবে। এমন পরিকল্পনা লিগ কমিটির। দুই টুর্নামেন্টের খেলা ঢাকার দর্শক দেখতে পারবেন।

কিন্তু ঢাকার দর্শক প্রিমিয়ার লিগের খেলা হতে বঞ্চিত হবেন। কারণ প্রায় সব খেলাই হতে পারে ঢাকার বাইরে। কোথায় খেলা হবে সেটি চূড়ান্ত না হলেও বাফুফের টেবিলে এক ডজন ভেন্যুর নাম জমা আছে।

বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে সংস্কারকাজ চলছে বলে সেখানে প্রিমিয়ার লিগের খেলা হচ্ছে না সেটি জানিয়েছেন বাফুফের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ। এর বাইরে কমলাপুর স্টেডিয়াম, আর্মি স্টেডিয়াম রয়েছে। রাজধানীতে নতুন ভেন্যু হতে পারে বসুন্ধরা কিংসের মাঠ। তাদের আবাসিক এলাকায় নিজস্ব ভেন্যু তৈরির কাজ প্রায় শেষ। যেটুকু বাকি আছে তা যদি লিগের আগে প্রস্তুত করতে পারে তাহলে ফুটবলে নতুন ভেন্যু দেখা যেতে পারে। বাফুফের সাধারণ সম্পাদক জানিয়েছেন বসুন্ধরা কিংস তাদের নিজেদের মাঠে খেলতে রাজি। আমরা দেখতে ভেন্যু প্রস্তুত আছে কিনা। ড্রেসিং রুম প্রস্তুত না। যদি এর মধ্যে হয়ে যায় তাহলে নতুন ভেন্যুর দেখা যেতে পারে। আর যদি সম্ভব না হয় তাহলে বসুন্ধরার আগের ভেন্যু কুমিল্লায় খেলবে তারা।

প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের খেলা যেসব ভেন্যুতে হয়ে আসছে তার সবকয়টির তালিকা করেছে বাফুফে। কুমিল্লা, মুন্সীগঞ্জ, নীলফামারী, গোপালগঞ্জ, টঙ্গী, ময়মনসিংহ রয়েছে। কমলাপুর স্টেডিয়ামও প্রস্তুত আছে। বাফুফে জানিয়েছে, কেউ যদি কমলাপুরে খেলতে চায় সেটা পারবে। সেখানে এখন ফ্লাডলাইটের ব্যবস্থা আছে। বাফুফে জানিয়েছে দুই একটা ক্লাব আর্মি স্টেডিয়ামে খেলতে চায়।

নতুন ভেন্যু হতে পারে রাজশাহী। বাফুফে বলেছে, রাজশাহীতে কেউ যদি পেশাদার লিগের খেলার ভেন্যু চায় তার জন্য রাজশাহীর দুয়ার খুলে দেবে। রাজশাহী নিজ উদ্যোগে এমন আগ্রহের কথা প্রকাশ করেছে বলে জানায় বাফুফের সাধারণ সম্পাদক।

পুরোনো ভেন্যু চট্টগ্রাম আবার ফিরে আসতে পারে। চট্টগ্রামে খেলা হয় না কয়েক বছর গড়িয়ে গেছে। এই ভেন্যুর দল চট্টগ্রাম আবাহনী ঢাকায় অবস্থান করে। কর্মকর্তারা তাদের খেলোয়াড়দের নিয়ে ঢাকায় বাসা ভাড়া করে আবাসিক ক্যাম্পের ব্যবস্থা করে। নাম চট্টগ্রাম আবাহনী হলেও তারা চট্টগ্রামে খেলছে না। কর্মকর্তারা ঢাকায় বসবাস করেন তাই ক্লাব কার্যক্রমও ঢাকায়। চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে খেলার আগ্রহ নেই। বাফুফে জানিয়েছে চট্টগ্রাম ভেন্যু এবার তালিকায় রয়েছে।

বাফুফে হতে তালিকাভুক্ত ভেন্যুগুলো পরিদর্শক করবে। সেই রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে ভেন্যু চূড়ান্ত হওয়ার আগে ক্লাবগুলোকে দেখানো হবে। ক্লাবগুলো সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। আর এই তালিকার বাইরে যদি কোনো ক্লাব পছন্দের ভেন্যুর নাম দেয়, তাহলে বাফুফে সেটি পরিদর্শন করবে এবং রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত দেওয়া হবে।

ইত্তেফাক/এমএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x