কুয়াশা দিয়ে সেচের কাজ!

কুয়াশা দিয়ে সেচের কাজ!
[ছবি: সংগৃহীত]

পেরুর কাস্কোর পেরুভিয়ানের আদিবাসীরা তাদের তেষ্টা মেটাতে জল সংগ্রহ করে কুয়াশা থেকে। পেরুর আটটি গ্রামীণ সম্প্রদায়ের পাশাপাশি বলিভিয়া, কলোম্বিয়া এবং মেক্সিকোতে জালের সাহায্যে কুয়াশার জল সংগ্রহ করার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

কলাপাতায় শিশির জমে থাকতে দেখে সেখান থেকেই কুয়াশার মাধ্যমে জল সংগ্রহের কথা মাথায় আসে তাদের। এসব অঞ্চলে জল সংগ্রহের প্রভাবে কৃষিকাজেও নাটকীয়ভাবে পরিবর্তন দেখা গিয়েছে। তবে একটা সময়ের কথা ভাবলে এসব অঞ্চলে জলের অভাব ছিল বরাবরই। খোলা মাঠের মধ্যে বড় বড় জাল টানিয়ে রাখে তারা। এরপর সেখান থেকে জল জমা হয় নিচে পেতে রাখা পাইপে। সেখান থেকে জল সোজা গিয়ে নিচের ড্রামে জমা হয়। এভাবেই তারা নিত্য প্রয়োজনের জল সংগ্রহ করে থাকে যাতে প্রাকৃতিকভাবে ব্যবহৃত জলের যোগানও কম না পড়ে।

ইটালির প্রত্যন্ত এক দ্বীপ প্যান্টেলেরিয়ায়ও উঁচু প্রাচীর বানিয়ে কুয়াশাকে আটকে রেখে তাকে জলকণায় পরিণত করে মাটি ভিজিয়ে তারপর সেখানে বীজ পুঁতে তা থেকে চারাগাছ তৈরি করতেন তারা। পাথুরে দেয়ালে এক এক করে জলকণা জমতো। সেই জলকণা দেওয়াল বেয়ে নীচে নেমে এসে মাটি ভিজিয়ে রাখতো সবসময়। প্রাচীরের দেয়াল ঘেষে সেখানেই বীজ পোঁতা হতো।

ইত্তেফাক/এএইচপি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x