যে দেশের নাগরিকরা জাতীয় নির্বাচনে দু’টি করে ভোট দেন

যে দেশের নাগরিকরা জাতীয় নির্বাচনে দু’টি করে ভোট দেন
ছবি: সংগৃহীত।

জার্মানির সংসদ নির্বাচনে ভোটাররা দুটি করে ভোট দেওয়ার সুযোগ পান। প্রথমটি নির্বাচনী কেন্দ্রে সরাসরি প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য, দ্বিতীয়টি পছন্দের কোনো দলের জন্য। প্রার্থী ও দল ভিন্ন হলেও ভোট দিতে পারেন তারা। দ্বিতীয় তালিকায় দলীয় সমর্থনের অনুপাতের ভিত্তিতে সংসদে অর্ধেক আসনে প্রার্থী ঠিক করা হয়।

জার্মান ভোটদান পদ্ধতি ব্রিটিশ পার্লামেন্টারি ভোটদান পদ্ধতির চেয়ে একটু ভিন্ন। এজন্য যদিও জার্মানিতে ২৯৯ সংসদীয় এলাকা থাকলেও মোট ৫৯৮ জন সদস্যের সমন্বয়ে বুন্দেসটাগ গঠিত হওয়ার কথা। কিন্তু অধিকাংশ সময় নির্ধারিত সংখ্যার চেয়ে বুন্দেসটাগ এ সদস্যসংখ্যা বেশি থাকে। উদাহরণস্বরূপ বর্তমান সংসদ ৭০৯ জন সদস্য দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। এটাকে ব্যক্তিগতকৃত অনুপাতভিত্তিক নির্বাচন পদ্ধতি বলা হয়। এতে অতিরিক্ত ম্যান্ডেট ও ক্ষতিপূরণ ম্যান্ডেটের ব্যবস্থা থাকে।

German Parliament Employees, Location, Careers | LinkedIn

সহজ কথায় ২৯৯ আসনে সরাসরি নির্বাচন হয়। বাকি ২৯৯ আসন দ্বিতীয় ভোটের শতাংশের মাধ্যমে সদস্য নির্বাচিত হয়। মূল সদস্যদের পাশাপাশি ওপরে উল্লিখিত দুই পদ্ধতির মাধ্যমেও সংসদ সদস্যদের অন্তর্ভুক্তির ফলে বুন্দেসটাগের সদস্য সংখ্যা ৫৯৮ ছাড়িয়ে যায়।

একটি দল নির্বাচনে যদি দ্বিতীয় ভোটের মাধ্যমে ১০০টি আসন পায় এবং সেই একই দল যদি সরাসরি ভোটে ১১০টি আসন পায় তবে ওই দলের অতিরিক্ত ১০ জন সদস্যকে অতিরিক্ত ম্যান্ডেট হিসেবে গণ্য করা হবে। একটি নির্দিষ্ট দল যখন ১০% আসন বেশি পেয়ে যায় তখন অন্য দলগুলোকে সমহারে সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধির একই সুযোগ দেয়া হয়। আর এ পদ্ধতিকে বলা হয় ক্ষতিপূরণ ম্যান্ডেট।

১৯৪৯ সাল থেকে এই পর্যন্ত জার্মানিতে কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করতে পারেনি। এবারো তার ব্যতিক্রম হবে না বলে মনে হচ্ছে। অর্থাৎ ৫০ শতাংশের অধিক জনসমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করতে কমপক্ষে তিনটি দলের কোয়ালিশনের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে।

ইত্তেফাক/এএইচপি

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
আরও
আরও
x