ঢাকা বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬
২৭ °সে


প্রধানমন্ত্রীর হাতে ‘বীরগাঁথা’ তুলে দিতে চান কুড়িগ্রামের ডিসি

প্রধানমন্ত্রীর হাতে ‘বীরগাঁথা’ তুলে দিতে চান কুড়িগ্রামের ডিসি
জেলা প্রশাসক সুলতান পারভিন। ছবি: সংগৃহীত

১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর জেলার মুক্তিযোদ্ধাদের সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে হানাদার মুক্ত হয় উত্তরের জেলা কুড়িগ্রাম। মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য বীরবিক্রম এবং বীরপ্রতীক খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধারা ঐশ্বর্যময় ও গৌরবান্বিত করেছে এ জেলাকে। কিন্তু বয়সের ভারে ন্যুব্জ হয়ে মুক্তিযোদ্ধারা প্রতিনিয়ত হারিয়ে যাচ্ছেন। দিনদিন কমছে এসব বীরের সংখ্যা।

এমন চিন্তা থেকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ছড়িয়ে দিয়ে একটি অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার অভিযাত্রায় মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি সংরক্ষণে একটি ডকুমেন্টারি তৈরির উদ্যোগ নেয় কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভিন ও তার টিম।

বিভিন্ন তথ্যের মাধ্যমে একটি ডকুমেন্টারি ‘বীরগাঁথা’ তৈরি করেছে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসন।

‘বীরগাঁথা’ এ ডকুমেন্টারিতে জেলার তালিকাভুক্ত ২৭৩০ জন জীবিত বীর মুক্তিযোদ্ধার দুই হাতের ছাপসহ তাদের তথ্য এবং ১৫৭১ জন প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধার তথ্যসহ মোট ৪২৭৩ জন মুক্তিযোদ্ধার তথ্য সংরক্ষিত থাকছে। জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের দুই হাতের ছাপ, মহান মুক্তিযুদ্ধের দুর্লভ কিছু ছবি, মুক্তিযোদ্ধাদের অবদান ও তাদের সম্মুখ সমরের গল্প সম্বলিত ডকুমেন্টারিটি কুড়িগ্রামের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে খুব সহজেই জেলার মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে ও তাদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জাগ্রত রাখতে সহায়তা করবে।

আরও পড়ুন: সদস্য বাড়াতে জেএমবির টার্গেট রোহিঙ্গারা

এ প্রসঙ্গে কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক সুলতান পারভিন বলেন, ডকুমেন্টারির প্রতিটি খণ্ডের প্রতি পাতায় মুক্তিযোদ্ধাদের জীবন্ত স্পর্শ রয়েছে। ৬টি ভলিউমে ১৩২টি খণ্ডে প্রস্তুতকৃত ডকুমেন্টারিতে কোনো দলিল বা তথ্যের ছায়ালিপি ব্যবহার করা হয়নি।

তিনি বলেন, ‘বীরগাঁথা’ ডকুমেন্টারিটি প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি সাপেক্ষে সশরীরে হস্তান্তর করতে ইচ্ছুক। সাক্ষাতের অনুমতি পাওয়া গেলে ডকুমেন্টারিটি সরাসরি হস্তান্তর করা হবে।

ইত্তেফাক/এসি

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
১১ ডিসেম্বর, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন